সর্বশেষ আপডেট : ১২ মিনিট ৪৯ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

মামুনুলের সঙ্গে বিয়ের কথা জানে না ঝর্ণার পরিবার

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ের রয়্যাল রিসোর্টে নারীসহ বেড়াতে গিয়ে স্থানীয়দের দ্বারা অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মামুনুল হক।

গত শনিবার বিকেল ৩টায় রয়্যাল রিসোর্টের ৫ম তালার ৫০১ নম্বর কক্ষে তাকে অবরুদ্ধ করা হয়। সেখানে উপস্থিত হয় পুলিশও। পরে হেফাজতের নেতাকর্মীরা মামুনুল হককে সেখান থেকে এক প্রকার ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

ওই সময় মামুনুল হক দাবি করেন সঙ্গে থাকা নারী তার দ্বিতীয় স্ত্রী। তার নাম আমেনা তৈয়াবা। ইসলামি শরীয়ত মোতাবেক ওই নারীকে তিনি বিয়ে করেছেন। বেশ কয়েকদিন টানা রাতদিন পরিশ্রমের কারণে অনেকটাই হাপিয়ে উঠেছিলেন তিনি। তাই বিশ্রামের জন্য তাকে নিয়ে ঢাকার অদূরে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ের দর্শনীয় স্থান ঘুরে রিসোর্টে গিয়েছিলেন তিনি।

মামুনুল হক ওই নারীর নাম আমেনা তৈয়াবা বললেও ওই নারী নিজেকে জান্নাত আরা বলে পরিচয় দেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও গণমাধ্যমে প্রচারের পর দেশজুড়ে শুরু হয়েছে তোলপাড়।

এদিকে মামুনুল হকের দাবি করা দ্বিতীয় স্ত্রীর পরিচয় পাওয়া গেছে। সেই নারীর নাম জান্নাত আরা ঝর্ণা (২৭)। তিনি ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা উপজেলার গোপালপুর ইউনিয়নের কামারগ্রামের বীরমুক্তিযোদ্ধা মো. ওলিয়ার রহমান ওরফে ওলি মিয়ার মেঝো মেয়ে। ওলিয়ার রহমান কামারগ্রাম ৪ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি।

উপজেলা জুড়ে এখন ঝর্ণাকে নিয়েই চলছে আলোচনার ঝড়। তবে জান্নাতের আগে বিয়ে হয়েছে, দুটি সন্তান আছে, এ কথা সবাই জানলেও দ্বিতীয় বিয়ের কোনো খবরই জানেন না এলাকাবাসী।

সংবাদ পেয়ে শনিবার রাতে ঝর্ণার গ্রামের বাড়িতে গিয়ে জান্নাত আরা ঝর্ণার পিতা ওলিয়ার রহমান ও মা শিরীনা বেগমের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তাদের মেয়ের নয় বছর বয়সে বিয়ে হয়েছিলো হাফেজ শহীদুল ইসলাম ওরফে শহীদুল্লাহ নামে এক ব্যক্তির সাথে। তার বাড়ি বাগেরহাটের কচুড়িয়া এলাকায়। তাদের আব্দুর রহমান(১৭) ও তামীম(১২) নামে দুটি ছেলে সন্তান রয়েছে।

তারা জানান, পারিবারিক কলহের জেরে আড়াই বছর আগে ঝর্ণার স্বামীর সঙ্গে ডিভোর্স হয়ে যায়। তারপরে দু’বছর আগে পরিবার থেকে পাত্র দেখে মেয়েকে বিয়ে দেয়া কথা বললে সে বলতো তার বিয়ে হয়ে গেছে। তাই তার জন্য আর কোনো পাত্র না দেখতে। তবে কার সাথে তার বিয়ে হয়েছেসে কথা পরিবারকে কখনও জানায়নি। শুধু একবার ভিডিও কলে তার দ্বিতীয় স্বামী মামুনুল হককে দেখিয়েছিল; কিন্তু তারা বুঝতে পারেনি যে তিনি ছিলেন মাওলানা মামুনুল হক।

প্রথম স্বামী হাফেজ শহীদুল ইসলাম ওরফে শহীদুল্লাহর সাথে জান্নাত আরা ঝর্ণার পরিবারের কোনো যোগাযোগ আছে কি-না জানতে চাইলে তারা জানান, ডিভোর্সের পরে তার সঙ্গে আর কোনো যোগাযোগ রাখেননি তারা। তাই হাফেজ শহীদুল্লাহর সাথে যোগাযোগের কোনো মাধ্যম না পাওয়ায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

গোপালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মোনায়েম খান জানান, ঝর্ণার পিতা ওলিয়ার রহমান একজন সহজ সরল মানুষ। কামারগ্রাম চার নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি। তার মেয়ের আগে বিয়ে হয়েছে। তার দুই ছেলেও আছে, পরে বিয়ে হয়েছে কিনা জানি না। এলাকার কেউ জানে বলেও মনে হয় না।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: