সর্বশেষ আপডেট : ১১ ঘন্টা আগে
সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

যু’ক্তরাস্ট্রের বাফেলোতে দুর্ভোগে বাংলাদেশী বাড়ির মালিকেরা

বাংলাদেশি মা’র্কিন অ’ভিবাসী স্থা’নান্তরের ক্ষেত্রে এখন সবার পছন্দের তালিকার শীর্ষে রয়েছে নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্যের বাফেলো শহর। কিন্তু ভাড়াটিয়া বাড়ি ভাড়া পরিশোধ না করায় ও করো’নার কারণে ভাড়াটিয়া উচ্ছেদ করতে না পেরে এখানে বসবাসকারী অনেক বাংলাদেশি বাড়ির মালিক ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।

করো’না মহামা’রির কারণে যু’ক্তরাষ্ট্রে সৃষ্ট বেকারত্ব সমস্যা কমছে না। এখনো লাখো মানুষ কর্মহীন। আবার যারা কাজ করছেন, তাঁদেরও অনেকের কর্ম ঘণ্টা কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। তাই করো’নার প্রভাব পড়ছে অর্থনৈতিক ও সামাজিক ক্ষেত্রে।

করো’না মহামা’রি শুরুর পর মা’র্কিন সরকার নাগরিকদের আর্থিক সহযোগিতা প্রদানের জন্য বেকার ভাতা ও নাগরিক প্রণোদনা দিয়ে সাহায্য করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু এরপরও নাগরিকেরা আর্থিক সমস্যায় জর্জ’রিত। সৃষ্ট বেকার সমস্যার কারণে বাড়ির ভাড়াটিয়ারা যাতে ভাড়া পরিশোধ করতে কোনো সমস্যার সম্মুখীন না হয়, সে জন্য অসচ্ছল ভাড়াটিয়াদের বাড়ি ভাড়া সাময়িকভাবে না দেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়। এ ছাড়া ভাড়াটিয়া উচ্ছেদ না করার জন্য বাড়ির মালিকদেরও নির্দেশ দেওয়া হয়।

নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্যের গভর্নর অ্যান্ড্রু কুমো সম্প্রতি এক বিবৃতিতে আগামী ১ মে পর্যন্ত ভাড়াটিয়া উচ্ছেদের নোটিশ স্থগিত রাখতে নির্দেশ দিয়েছেন।

এ সুযোগে অনেকের সাম’র্থ্য থাকা সত্ত্বেও বাড়ি ভাড়া অনেকেই বাড়ি ভাড়া পরিশোধ করছে না। উচ্ছেদ করতে নিষেধাজ্ঞা থাকায় তাঁদের মধ্যে কোনো ভ’য় কাজ করছে না।

অনেকেই বাড়ি কিনে বিনিয়োগ করেছিলেন। যা দিয়ে তাঁরা বাড়ির ম’র্টগেজ প্রদানসহ অন্যান্য আনুষঙ্গিক ব্যয়ভা’র বহন করতেন। ভাড়াটিয়া বাড়ি ভাড়া পরিশোধ না করায় এসব বাড়ির মালিকেরা বিপাকে পড়েছেন।

করো’না মহামা’রির পর থেকে অনেক বাংলাদেশি নিউইয়র্ক শহর থেকে বাফেলোতে স্থা’নান্তরিত হচ্ছেন। আবার অনেকে নিউইয়র্ক থেকেই বাফেলোতে বাড়ি কিনে অর্থ বিনিয়োগ করছেন। বেশ কয়েক মাসের বেকার ভাতার টাকা জমিয়ে বাফেলোতে বসবাসকারী বাংলাদেশিরাও বাড়ি কিনছেন। এ কারণে বাফেলোর রিয়েল এস্টেট ব্যবসা বর্তমানে বেশ জমজমাট।

তবে এখনো বাফেলোর অনেক বাড়ির মালিক ভাড়াটিয়া নিয়ে বেশ বিপাকে আছেন। যেসব বাড়িতে ভাড়াটিয়া আছে, ক্রেতারা সাধারণত সেসব বাড়ি কিনতে চায় না। ভাড়াটিয়া উচ্ছেদ করতে না পারায় অনেক বাংলাদেশি বাড়ির মালিক বাড়ি বিক্রি করতে পারছেন না। এতে লোকসান গুনতে হচ্ছে তাঁদের। আবার অনেকেই বেশ কয়েক মাস থেকে বাড়ি ভাড়া পাচ্ছেন না। অনেকেই বাড়ির মালিককে সমস্যার কথা আগে না জানিয়ে স্থানীয় স্বাস্থ্য বিভাগে অ’ভিযোগ করছেন ভাড়াটিয়ারা। এতে মালিকের দুর্ভোগ আরও বাড়ছে। কারণ, স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে কর্মীরা বাড়ি পর্যবেক্ষণ করতে গিয়ে ভাড়াটিয়ার উল্লেখিত সমস্যা ছাড়াও আরও ভুল ধরছেন। যা বাড়ির মালিককে নির্দিষ্ট দিন-তারিখের মধ্যে সমাধান করে দিতে হচ্ছে। আবার, বাফেলোর বিভিন্ন জায়গায় ১৯৭৮ সালের আগে প্রতিষ্ঠিত বাড়িতে লেড বা সিসার উপস্থিতি আছে কিনা নগর কর্তৃপক্ষ থেকে তা পরীক্ষা করা হচ্ছে। এতে অনেকেই সমস্যায় পড়ছেন।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: