সর্বশেষ আপডেট : ৮ ঘন্টা আগে
বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ আষাঢ় ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

রোগীর মৃত্যু: চিকিৎসক-কর্মচারীদের সঙ্গে রোগীর স্বজনদের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ

জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে রোগীর মৃত্যুর ঘটনায় চিকিৎকের অবহেলার অভিযোগে রোগীর স্বজনের সঙ্গে ডাক্তার এবং ইন্টার্নি ডাক্তারদের হাতাহাতি ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় বিক্ষুব্ধ লোকজন হাসপাতাল ভাংচুর করে।

শুক্রবার বিকালে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালের ক্যাম্পাসে প্রায় ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষে হাসপাতাল ক্যাম্পাস রণক্ষেত্রে পরিণত হয়।

সংর্ঘষে ডা. চিরঞ্জিৎ, ডা. হাবিবুল্লাহ, কর্মচারী কিরন, রোগীর স্বজন শহিদুল্লাহ (৪০), জিহাদ (২০) ও সাইদুরসহ ১০ জন আহত হয়েছেন।

এদিকে চিকিৎসক আহতের খবরে ইন্টার্নি ডাক্তারদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। রোগীর স্বজনদের সঙ্গে ইন্টার্নি ডাক্তাররা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। দু’পক্ষের দফায় দফায় সংঘর্ষে হাসপাতাল ক্যাম্পাস রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। পুলিশ লাঠিচার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

নিহত রোগীর ভাতিজা সাইদুর জানান, শহরের ইকবালপুর জামে মসজিদে আমার চাচি করিমন নেছা (৫৫) জুম্মা’র নামাজ পড়তে যান। মসজিদের নির্মাণাধীন দ্বিতীয় তলায় দেয়াল ভেবে কাপড়ের পর্দায় হেলান দিতে গিয়ে নিচে পড়ে গুরুতর আহত হন। স্বজন ও স্থানীয় লোকজন উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পর জরুরি বিভাগে ফেলে রাখে। সময় ক্ষেপণ করে কর্তব্যরত চিকিৎসক চিরঞ্জিত ডক্টরস রুম থেকে বেড়িয়ে এসে রোগী দেখে মৃত ঘোষণা করেন।

সময় মতো রোগী দেখা এবং অক্সিজেন দিলে ভুক্তভোগীর চাচী মারা যেত না বলে অভিযোগ করেন তিনি।

তিনি বলেন, আমি হাসপাতাল থেকে ফেরার পথে ইন্টার্নি ডাক্তাররা আমার ওপর হামলা করে আমাকে মারধর ও আমার মোটরসাইকেল ভাংচুর করেছে।

হাসপাতালের প্রত্যক্ষদর্শিরা জানায়, রোগী মৃত্যুতে ডাক্তারের অবহেলা অভিযোগ ঘিরে জরুরি বিভাগে রোগীর স্বজন ও ডাক্তার কর্মচারীদের মধ্যে তর্কের এক পর্যায়ে হাসপাতাল ভাংচুর হাতাহাতি মারপিটের ঘটনা ঘটে।

এ সময় ডা. চিরঞ্জিত, ইন্টার্নি ডাক্তার হাবিবুল্লাহ, কর্মচারী কিরন,রোগীর স্বজন শহিদুল্লাহ ও জিহাদ আহত হন। এ ঘটনার খবর ছড়িয়ে পড়লে রোগীর স্বজন ও ইন্টার্নি ডাক্তাররা মুখোমুখি অবস্থান নেন। দুইপক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

লাশের পেছনে যাওয়া রোগীর স্বজন সাইদুরের ওপর উত্তেজিত ইন্টার্নি ডাক্তাররা হামলা চালায়। তাক বেদড়ক পিটিয়ে তার মোটরসাইকেল ভাংচুর করা হয়। এ সময় পুলিশ লাঠিচার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।ঘটনাস্থল থেকে এক চিকিৎসকসহ ৭ ইন্টার্নি ডাক্তারকে সদর থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। পরে অবশ্য এক ঘণ্টার মধ্যে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়।

এ বিষয়ে আহত কর্তব্যরত ডাক্তার চিরঞ্জিত বলেন, রোগীর মৃত্যুতে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগ সঠিক নয়। আমি যথা সময়ে রোগীকে পরীক্ষা নিরিক্ষা করে মৃত ঘোষণা করি। কিছু বুঝে উঠার আগেই রোগীর স্বজনরা আমার ওপর হামলা চালিয়ে ইমারজেন্সির আসবাবপত্র ভাংচুর করেছে।

হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. ফেরদৌস হাসান বলেন, ডাক্তারের বিরুদ্ধে দায়িত্ব অবহেলা সঠিক নয়। দুপক্ষের মধ্যে ভুল বুঝাবুঝিতে অনাকাংঙ্খিত ঘটনা ঘটেছে। আমরা সৃষ্ট সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করছি।

জামালপুর সদর থানার ওসি রেজাউল করিম খান বলেন, জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে একজন রোগীর মৃত্যুর ঘটনায় একটি অপ্রীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল। পরিস্থিতি শান্ত করতে পুলিশ ঘটনাস্থল একজন ডাক্তারসহ ৭ ইন্টার্নি ডাক্তারকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছিল। কিন্তু কারো কোনো অভিযোগ না থাকায় আটককৃতদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে এবং বিষয়টি স্থানীয় নেতৃবৃন্দের মাধ্যমে সমঝোতা করা হয়েছে। সূত্র: যুগান্তর

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  • 63
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    63
    Shares

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: