সর্বশেষ আপডেট : ১০ ঘন্টা আগে
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

ইতালিতে কমতে শুরু করেছে মৃত্যুর সংখ্যা

চীনের উহান শহর থেকে শুরু হওয়া করোনাভাইরাসে মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে ইউরোপের দেশ ইতালি। করোনাভাইরাস আতঙ্কে হতাশায় দিন কাঁটাচ্ছে ইতালির ছয় কোটি মানুষ। জনগণকে সুরক্ষা দিতে ইতালি সরকার করোনা মোকাবিলায় সর্বোচ্চ চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। রবিবার তুলনামূলক ভাবে মৃত্যু সংখ্যা ছিলো কম। এদিন মৃত্যুবরণ করেছে ৫২৫ জন। আজকের মৃত্যহার আগের কদিনের চেয়ে কম।

শনিবার প্রান হারিয়েছিলো ৬৮১ জন ।শুক্রবার এ সংখ্যা ছিলো ৭৬৬ জন। বৃহস্পতিবার মোট প্রান হারিয়েছিলো ৭৬০জন। বুধবার প্রাণহানির সংখ্যা ছিলো মোট ৭২৭জন। এ পর্যন্ত মোট মৃত্যুর সংখ্যা ১৫ হাজার ৮৮৭ জন। একদিনে নতুন আক্রান্ত চার হাজার ৩১৬ জন। দেশটিতে গুরুতর অসুস্থ রোগীর সংখ্যা তিন হাজার ৯৭৭ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ৮১৮ জন। চিকিৎসাধীন ৯১ হাজার ২৪৬জন। এ নিয়ে দেশটিতে মোট আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা এক লাখ ২৮হাজার ৯৪৮ জন বলে জানিয়েছেন নাগরিক সুরক্ষা সংস্থার প্রধান অ্যাঞ্জেলো বোরেল্লি।

তিনি বলেন, জনগণকে সুরক্ষা দিতে সরকার করোনা মোকাবিলায় সর্বোচ্চ চেষ্টা চালাচ্ছে। ফলে এ পর্যন্ত চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ২১ হাজার ৮১৫ জন।

ইতালির ২১ অঞ্চলের মধ্যে লোম্বারদিয়ায় করোনার সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত (মিলান, বেরগামো, ব্রেসিয়া, ক্রেমনাসহ) ১১টি প্রদেশ। আজ এ অঞ্চলে মারা গেছে ২৪৯জন। গতকালের চেয়ে আজ সংখ্যায় কম,শনিবার এ সংখ্যা ছিলো ৩৪৫ জন।শুধু এ অঞ্চলেই মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে আট হাজার ৯০৫ জনে দাঁড়িয়েছে। মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ হাজার ৪৪৫ জন। আজ মোট আক্রান্তের সংখ্যা এক হাজার ৩১৭ জন।সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ১৮৪ জন।

লোম্বারদিয়ার প্রেসিডেন্ট আত্তিলিয়ো ফোনতানা জানান মিলানের বিখ্যাত ফিয়েরা মিলানো সিটি পরিণত হয়েছে ইতালির সবচাইতে বড় ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে।আগামীকাল সোমবার থেকে এ আপদকালীন হাসপাতালটি চালু হবে। ২০০ আইসিইউ বেড সম্বলিত অত্যাধুনিক এই হাসপাতালটি পলি ক্লিনিকের তত্বাবধানে ২০০ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক, ৫০০ অভিজ্ঞ নার্স এবং ২০০ স্বাস্থ্যকর্মী চব্বিশ ঘণ্টা নিয়োজিত থাকবেন ভয়ংকর জীবাণু কোভিড-১৯ আক্রান্ত মুমূর্ষু রোগীদের বাঁচাতে।

তিনি আরো বলেন এখনো অনেক লোক অপ্রয়োজনে বাইরে ঘোরাফেরা করছে।তিনি সবাইকে ঘরে থাকার পরামর্শ দেন।এছাড়াও তিনি বলেন,কেউ মাক্স ছাড়া বাইরে বের হবেন না।লোম্বারদিয়া এলাকায় তাবাকি,পোষ্ট অফিস,সুপারশপ গুলোতে জনসাধারনের জন্য মাক্স এবং হাতমোজা ফ্রিতে দেয়া হবে বলে তিনি জানান।

সারা ইতালি জুড়েই চলছে লকডাউন। এদিকে ষ্টার সানডেকে সামনে রেখে ইতালির সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী লেগা নর্দ নেতা মাথেও সালভিনি দেশের এই দূর্যোগ মুহূর্তে সব গীর্জা গুলোকে প্রার্থনা জন্য খুলে দিতে সরকারের প্রতি অনুরোধ করেছেন।তিনি বলেন দেশের এই দুর্দিনে আমাদের প্রত্যেকেরই প্রার্থনা করা উচিত।

প্রধানমন্ত্রী জোসেপ্পে কন্তের আহবানে সাড়া দিয়ে দেশের এই দূরদিনে ৭ হাজার ২২০ জন অবসরপ্রাপ্ত ডাক্তার,নার্সও এম্ন্বুলেন্স কর্মি স্বাস্থ্যসেবা দিতে করোনায় আক্রান্তদের পাশে এসে দাড়িয়েছে। এদিকে রবিবার চীন থেকে ইতালির পালেরমো এলাকায় ৪০ টন চিকিৎসা সামগ্রী এসে পৌঁছেছে।

শনিবার মিশরের স্বাস্থ্যমন্ত্রী চিকিৎসা সামগ্রী নিয়ে ইতালিতে এসেছেন।এছাড়াও করোনায় আক্রান্তদের সহযোগিতায় আলবেনিয়া, চীন ,কিউবা এবং রাশিয়া থেকে আগত মেডিকেল টিম ইতালির বিভিন্ন অঞ্চলে আক্রান্তদের সেবা দিয়ে যাচ্ছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: