সর্বশেষ আপডেট : ৪ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ২ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

গণপরিবহন বন্ধের সময় বাড়লো

করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় দেশব্যাপী চলমান গণপরিবহন বন্ধের সিদ্ধান্ত আগামী ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বর্ধিত করেছে সরকার।

আজ শনিবার (৪ এপ্রিল) সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের উপপ্রধান তথ্য অফিসার মো. আবু নাছের এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছেন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পণ্য পরিবহন, জরুরি সেবা, জ্বালানি, ওষুধ, পচনশীল ও ত্রাণবাহী পরিবহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতামুক্ত থাকবে। পণ্যবাহী যানবাহনে যাত্রী পরিবহন করা যাবে না।

এদিকে আজ শনিবার সংসদ ভবন এলাকায় নিজের সরকারি বাসভবনে এক ভিডিও বার্তায় সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, আগামী ১১ এপ্রিল পর্যন্ত গণপরিবহন বন্ধ থাকবে বলে। করোনা প্রাদুর্ভাব রোধে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতের অংশ হিসেবে দেশের সব ধরনের যানবাহন বন্ধের সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে।

গত বছরের শেষ দিন চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এরপর সেটি চীনের ভূখণ্ড পেরিয়ে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে। বিশ্বের ২০০টির মতো দেশে শনাক্ত হওয়া করোনার উপস্থিতি বাংলাদেশে দেখা দেয় গত ৮ মার্চ। সেদিন তিনজনের শরীরে করোনা শনাক্ত হলেও এখন সেই সংখ্যাটা ৭০। তাদের মধ্যে আটজন মারাও যান।

করোনাভাইরাস বাংলাদেশে যেন ব্যাপক আকারে ছড়াতে না পারে সেজন্য সরকার নৌপথে লঞ্চ, রেলপথে ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দেয়। এছাড়া ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত গণপরিবহনও বন্ধ করা হয়। আজ শেষ দিন ছিল।

কিন্তু বাংলাদেশে এখনো করোনার সংক্রমণ দেখা দেয়ায় ঝুঁকি এড়াতে গণপরিবহন বন্ধের সময় আরও বাড়ানো হয়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশের জনগণ, যাত্রী সাধারণ পরিবহন মালিক ও শ্রমিক সংগঠনসহ সকল স্টেক হোল্ডারদের অবগতির জন্য জানাচ্ছি, ইতোপূর্বে ২৬ মার্চ হতে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সরকার সব ধরনের যানবহন বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল। আপনারা জানেন সরকার আগামী ১১ এপ্রিল পর্যন্ত সরকারি ছুটি বর্ধিত করেছে। এই অবস্থায় জনস্বার্থ বিবেচনায় ১১ এপ্রিল পর্যন্ত দেশব্যাপী সকল প্রকার যানবাহন বন্ধ রাখার অনুরোধ করছি। তবে জরুরি সার্ভিস বিশেষ করে পণ্যবাহী ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, ওষুধ, জ্বালানি, পচনশীল পণ্য, ত্রাণবাহী গাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স এই নিষেধাজ্ঞার বাইরে থাকবে। তবে পণ্যবাহী যানে কোনোভাবেই যাত্রী পরিবহন করা যাবে না।

দেশের সংকটকালে পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের অবদান স্বীকার করে মন্ত্রী বলেন, এই সংকটে আমাদের দেশের পরিবহন অনেক গুরুত্বপূর্র্ণ ভূমিকা পালন করেছে। অতীতে অনেক ত্যাগ স্বীকার করেছে মালিক-শ্রমিকরা। আজকে এই সংকট আমাদের সকলের। এই সংকট উত্তরণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যে নির্দেশনামা সেটি মেনে চলে আপনারা ১১ তারিখ পর্যন্ত পরিবহন বন্ধ রাখবেন। পরবর্তী সিদ্ধান্ত পরবর্তীতে জানা যাবে।

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, সাধারণ ছুটির মধ্যে যানবাহনের ফিটনেস বা ড্রাইভিং লাইসেন্সের মেয়াদ উত্তীর্ন হলে জরিমানা ছাড়া নির্ধারিত ফি ও কর দিয়ে ৩০ জুন পর্যন্ত ফিটনেস নবায়ন ও লাইসেন্স আবেদনের সুযোগ দেয়া হয়েছে।সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল

 

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: