সর্বশেষ আপডেট : ১০ ঘন্টা আগে
সোমবার, ৩০ মার্চ ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

আসামি ধরতে গিয়ে অবরুদ্ধ ৪ পুলিশ কর্মকর্তা, গ্রেফতার ১১

পরোয়ানাভুক্ত আসামি ধরতে গিয়ে এলাকাবাসীর কাছে অবরুদ্ধ হয়েছেন কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী মডেল থানা পুলিশের চার কর্মকর্তা ও এক কনস্টেবল। পরে থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের উদ্ধার করে।

বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে কটিয়াদী উপজেলার আচমিতা ইউনিয়নের পাইকশা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর রাতেই অভিযান চালিয়ে ১১ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

কটিয়াদী মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমএ জলিল ও হোসেনপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সোনাহর আলী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

ওসি এমএ জলিল বলেন, ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি ধরার জন্য থানা পুলিশের এসআই শফিকুল ইসলাম ও এসআই মোস্তাফিজের নেতৃত্বে অপর দুজন এএসআইসহ একজন কনস্টেবল বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে আচমিতা এলাকায় যান। এ সময় পাইকশা বাজারে মাদকদ্রব্য রয়েছে বলে গোপনে তাদের কাছে খবর আসে। মাদকের খোঁজ নিতে বাজারের সাত্তারের মুদি দোকানে তল্লাশি চালায় পুলিশ। দোকানে কিছু পাওয়া যায়নি। তবে দোকানের সামনে একটি সিগারেটের প্যাকেটের ভেতর কিছু গাঁজা পাওয়া যায়।

তিনি বলেন, সাত্তারকে ফাঁসাতে কেউ এ গাঁজা রেখে গেছে ধারণা করে পুলিশ সেখান থেকে ফিরে যাচ্ছিল। সে সময় ওই এলাকার ওয়ার্ড মেম্বার আলতু ও মহরমের ছেলে জাহাঙ্গীর পুলিশ কর্মকর্তাদের কাছে এসে জানতে চান কার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে অভিযানে এসেছেন। এ নিয়ে তর্কাতর্কির একপর্যায়ে শতাধিক গ্রামবাসী পাইকশা এলাকার রাস্তার মোড়ে পুলিশ সদস্যদের অবরুদ্ধ করে রাখে।

খবর পেয়ে কটিয়াদী থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) মো. শফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অবরুদ্ধ পুলিশ কর্মকর্তাদের উদ্ধার করে। পাশাপাশি খবর পেয়ে হোসেনপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সোনাহর আলী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

সোনাহর আলী বলেন, জাহাঙ্গীর ওই এলাকার একজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। নিরীহ দোকানি সাত্তারকে ফাঁসাতে যে কেউ মাদক আছে বলে পুলিশকে ভুল তথ্য দিয়েছিল। পুলিশ বিষয়টি বুঝতে পেরে ফিরে আসার সময় তাদের বেআইনিভাবে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়।

পুলিশের কাজে বাধা দেয়ার অপরাধে রাতেই পুলিশের এসআই শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে কটিয়াদী মডেল থানায় একটি মামলা করেছেন। এ ঘটনায় ১১ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলেও জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সোনাহর আলী।সূত্র : জাগো নিউজ




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: