সর্বশেষ আপডেট : ৭ মিনিট ৯ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

বেনাপোলে স্বাস্থ্য পরীক্ষা ছাড়া বাংলাদেশে প্রবেশ নয়

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে একের পর এক ছড়িয়ে পড়ছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশে কেউ এ ভাইরাসে আক্রান্ত না হলেও যুক্তরাষ্ট্র বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানিয়েছে, বাংলাদেশও উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছে। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্র করোনাভাইরাসের উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা ২৫টি দেশের তালিকা দিয়েছে। সেখানে বাংলাদেশের নামও রয়েছে। এতে আবারও নড়েচড়ে বসেছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

দেশের সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোলে জোরদার করা হয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগের কার্যক্রম। সর্বোচ্চ সতর্কতা নেয়া হয়েছে বেনাপোল চেকপোস্টসহ বন্দরের সর্বত্র। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত হয়ে যেসব দেশি-বিদেশি পাসপোর্টযাত্রী বাংলাদেশে প্রবেশ করছেন তাদের স্বাস্থ্য বিভাগ অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখছে।

করোনাভাইরাস আক্রান্ত কোনো পাসপোর্টযাত্রী যাতে কোনোভাবে দেশে প্রবেশ করতে না পারে সেজন্য স্বাস্থ্যকর্মীদের সহযোগিতা করছে ইমিগ্রেশন পুলিশ। বিশেষ করে বিদেশি নাগরিকরা এ পথে বাংলাদেশে প্রবেশ করলে পুলিশ সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্য বিভাগকে অবহিত করছে। গত ১৭ জানুয়ারি থেকে বেনাপোল চেকপোস্টে এ পরীক্ষা শুরু হয়। প্রথমে পাসপোর্টযাত্রীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হলেও বর্তমানে ট্রাক চালক, হেলপার ও রেলযাত্রীদেরও স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হচ্ছে।

ইতোমধ্যে কাস্টমস চেকপোস্টে সচেতনতার জন্য কাস্টম হাউজ বেনাপোলে করোনাভাইরাস সচেতনতা সেমিনার করা হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনও প্রস্তুতিমূলক আলোচনা সভা করেছে। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কোনো ব্যক্তি পাওয়া গেলে তাকে সার্বক্ষণিক সেবা প্রদানের লক্ষ্যে বেনাপোল চেকপোস্টের পাশাপাশি উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে একটি বিশেষ আইসোলেশন ইউনিট চালু রাখা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৫ মার্চ) বিকেলে বেনাপোল চেকপোস্টে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ভারত থেকে আসা শতভাগ পাসপোর্টধারী যাত্রীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষা ছাড়া ইমিগ্রেশনের অন্যান্য আনুষ্ঠানিকতা সারতে দেয়া হচ্ছে না। ভারত থেকে আসা আমদানি পণ্যবাহী ট্রাকের চালক-শ্রমিকদের ক্ষেত্রেও অনুসরণ করা হচ্ছে একই নিয়ম। বেনাপোল রেলস্টেশনে রোববার ও বৃহস্পতিবার ভারত থেকে আসা বন্ধন ট্রেনের যাত্রীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা হচ্ছে।

বেনাপোলে দায়িত্বরত মেডিকেল টিমের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এ পর্যন্ত (৫ মার্চ বিকেল ৩টা) এক লাখ ৫২ হাজার ৯১ জন বাংলাদেশিসহ বিদেশি যাত্রী ও ট্রাক চালকের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেছেন তারা। এর মধ্যে ভারত থেকে আসা এক লাখ ১৪ হাজার ৫০৫ জন বাংলাদেশি, ২৫ হাজার ৫৭৫ জন ভারতীয়, ৩১২ জন বিভিন্ন বিদেশি যাত্রী, ১১ হাজার ২৪১ জন ট্রাকচালক-হেলপার ও ৪৫৮ জন রেলযাত্রী রয়েছেন। চেকপোস্ট ইমিগ্রেশনে পাসপোর্টের মাধ্যমে ভারত থেকে আসা দেশি-বিদেশি পাসপোর্টযাত্রী, প্রধান প্রবেশ দুটি গেটে (বাইপাস সড়ক ও প্রধান সড়কে) চলাচলকারী আমদানি-রফতানি পণ্য নিয়ে আসা ট্রাকচালক ও হেলপার এবং রেলপথে চলাচলকারী যাত্রীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হচ্ছে।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে বেনাপোল চেকপোস্টে চারটি মেডিকেল টিম দায়িত্ব পালন করছে। প্রত্যেক টিমে দুইজন করে মেডিকেল অফিসার রয়েছেন। সেখানে স্বাস্থ্য সহকারী ও নার্স মিলে ২৪ জন পর্যায়ক্রমে দায়িত্ব পালন করছেন বলে জানান উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. ইউসুফ আলী।

তিনি আরও জানান, মেডিকেল টিম, আইসোলেশন রুম, কন্ট্রোল রুম পারসোনাল প্রোটেকটিভ জিনিসপত্রসহ প্রয়োজনীয় সবকিছু প্রস্তুত রাখা হয়েছে। সব কিছুর প্রতি সতর্ক দৃষ্টি রাখা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত আতঙ্কগ্রস্ত হওয়ার মতো তেমন কিছু পাওয়া যায়নি। বেনাপোল স্থলবন্দরে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে পর্যাপ্ত লোকবল নিয়োগ দেয়া হয়েছে। প্রয়োজনে আরও দেয়া হবে।

বেনাপোল চেকপোস্টে কর্মরত মেডিকেল অফিসার ডা. সুমন সেন জানান, চীনের করোনাভাইরাস সারাবিশ্বে বিভিন্ন মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। স্বাস্থ্য অধিদফতর ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে সর্বোচ্চ সতর্কতা হিসেবে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে আগত বিভিন্ন দেশের পাসপোর্টযাত্রীদের থার্মোমিটারের মাধ্যমে শরীরের তাপমাত্রা নির্ণয় করা হচ্ছে। আমরা তাপমাত্রা দেখে তারপর তার অন্য পরীক্ষা-নিরীক্ষা করবো। বিশেষ করে সন্দেহজনক ও বিদেশি নাগরিকদের স্পেশালভাবে দেখা হচ্ছে। এ পর্যন্ত যে সব যাত্রীদের দেখা হয়েছে তাদের শঙ্কামুক্ত হিসেবে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে প্রবেশের অনুমতি দেয়া হচ্ছে। বেনাপোল চেকপোস্টকে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি রাখা হয়েছে। ইমিগ্রেশন পুলিশ, কাস্টমস, বন্দর কর্তৃপক্ষের সহযোগিতায় আমরা সতর্কতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি।

বেনাপোল বন্দরের উপপরিচালক (প্রশাসন) আব্দুল জলিল বলেন, ভারত থেকে আগত পাসপোর্টযাত্রীদের পাশাপাশি আমদানি পণ্যবাহী ভারতীয় ট্রাকের চালক ও শ্রমিকরাও করোনাভাইরাসের জীবানু বহন করে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে পারে। সে লক্ষ্যে আমরা বন্দর থেকে ভারতীয় ট্রাক চালক ও হেলপারদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য বাংলাদেশের প্রবেশের দুটি গেটে মেডিকেল টিম বসিয়ে কাজ চালিয়ে যাচিছ।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: