সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

৯ বছরের শিশুকেও কেন প্রাণ দিতে হলো : গুলজার

সহিংসতার আগুনে জ্বলছে ভারত। বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের (সিএএ) বিরোধী ও সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে এ পর্যন্ত ৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে দিল্লিতে। মৃতদের তালিকায় আছে নানা বয়সের মানুষ। ৯ বছরেরর শিশুকেও জীবন দিতে হয়েছে এই দাঙ্গায়। আহত হয়েছেন ৩০০ জনেরও বেশি মানুষ।

শুক্রবার সকাল থেকে কিছু এলাকায় ১৪৪ ধারা তুলে নেওয়া হয়। এছাড়া গ্রেফতার করা হয়েছে ৫১৪ জনকে।

সহিংসতা নিয়ে নাগরিক সমাজের কথা চিন্তা করে প্রতিবাদ করছেন সবশ্রেণির মানুষ। এবার প্রতিবাদ জানালেন বিখ্যাত গীতিকার গুলজার।

মাত্র ৯ বছরের শিশুর আর্তনাদ, তাকে বাধ্য করেছে এই কবিতা লিখতে। গুলজার ওই শিশুটিকে নিয়ে লিখেছেন, নিজের মর্জিতে সে তার ধর্ম বেছে নেয় নি, এ তারই ধর্ম যা তার মা বাবা তাকে উত্তরাধিকার হিসাবে দিয়েছে, বাবা-মাকে বেছে নেবে এমন উপায়ই তো নেই, সে তার দেশ ও বেছে নেয়নি, রাষ্ট্রও তাই তার মত মেনে কাজ করে না, মাত্র নয় বছর বয়স, দাঙ্গা কেন তাকে বেছে নিল, এই নির্মম দাঙ্গা তাকে হত্যা করল।

সোশ্যাল মিডিয়ায় লেখা গুলজারের এই কবিতা ইতোমধ্যেই ছড়িয়ে পড়েছে। হিন্দি-উর্দুর মিশেলে গুলজারের এই প্রতিবাদে সামিল নেটিজেনরা। কবিতার শুরুতেই ইংরাজিতে তিনি লিখেছেন, শান্তির জন্য অপেক্ষা করছি।

বৃহস্পতিবার রাতে ব্রিটিশ রক ব্যান্ড পিঙ্ক ফ্লয়েডের প্রাক্তন সদস্য রজার ওয়াটার্স প্রকাশ্য জনসভায় দাঁড়িয়ে এক ভারতীয় কবি আমির আজিজের কবিতা পড়েন। কবিতার নাম-সব ইয়াদ রাখা যায়েগা। তার ইংরাজি তর্জমা পড়েন তিনি। সঙ্গে নাগরিকত্ব-সংক্রান্ত আইনকে ফ্যাসিবাদী ও জাতিবৈষম্য সৃষ্টিকারী বলেও অভিহিত করেন তিনি।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: