সর্বশেষ আপডেট : ৪ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ৩ এপ্রিল ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ২০ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সিলেট ওসমানী বিমানবন্দরে বসছে ই-গেইট, ১৫ সেকেন্ডে ইমিগ্রেশন 


ডেইলি সিলেট ডেস্ক:: মাত্র ১৫ সেকেন্ডে ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও স্থলবন্দর ইমিগ্রেশন পার হওয়ার সুযোগ আসছে বাংলাদেশে। শুধু ওসমানীতেই নয়, ঢাকা-চট্রগ্রাম বিমানবন্দরে ও দু’টি স্থলবন্দরে সীমান্ত পারাপারে স্বয়ংক্রিয় সীমান্ত নিয়ন্ত্রণ ব্যবসস্থাপনা পদ্ধতি বা ই-গেইট স্থাপন করা হবে।
সিলেটসহ এসব বন্দরে ৫০টি ই-গেট স্থাপন হবে, যাতে ইলেকট্রনিক পাসপোর্টধারীরা সহজেই ইমিগ্রেশন পার হতে পারবেন। ১ জুলাই থেকে দেশের নাগরিকদের ই-পাসপোর্ট দেওয়ার জন্য তোড়জোড় শুরু হয়েছে। ৩০ জুনের মধ্যে সব কাজ শেষ করা হবে বলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানিয়েছেন। ই-পাসপোর্টের ডাটা থাকবে পৃথিবীর অন্যান্য দেশের ডাটা বেইসেও।
এ উদ্যোগ ২০১৭ সালে নেওয়া হলেও বিভিন্ন কারণে তা সম্ভব হয়ে ওঠেনি। কয়েক দফা পেছানোর পর ১ জুলাই থেকে নাগরিকদের ই-পাসপোর্ট দেওয়ার জন্য কাজ চলছে বলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়। এ প্রকল্পে ব্যয় ধরা হয়েছে চার হাজার ৫৬৯ কোটি টাকা। জার্মানির সরকারি একটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি হয়েছে অনেক আগেই।
ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর সিভিল এভিয়েশনের ব্যবস্থাপক হাফিজ আহমদ জানান, ই-গেইট স্থাপন প্রক্রিয়াধীন। এটি ইমিগ্রেশনের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হবে। আমরা কেবল তাদের কাজে সহায়তা করবো।
ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ইমিগ্রেশনের পুলিশ সুপার সাইফুজ্জামান ফারকি জানান, ই গেইট স্থাপন হওয়ার বিষয়টি জানতে পেরেছি। এ জন্য এসবি ও পাসপোর্ট অধিদফতরের সমন্বয়ে একটি প্রতিনিধি দল ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর পরিদর্শন করে গেছেন। তবে ঠিক কতটা ই-গেট স্থাপন করা হবে, এ বিষয়টি নির্দিষ্ট করে বলা যাচ্ছে না।
সূত্র জানায়, ৩১ মার্চ মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব মো. শহিদুজ্জামানের সভাপতিত্বে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেই সভায় ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, বেনাপোল ও বাংলাবান্দা স্থলবন্দরে ৫০টি ই-গেট স্থাপনের সিদ্ধান্ত হয়। সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জার্মানির প্রতিষ্ঠান থেকে ই-গেট আনা হচ্ছে। শিগগিরই এগুলো দেশে পৌঁছবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র নিশ্চিত করেছে।
সূত্র আরো জানায়, ৫০টি ই-গেটের মধ্যে সবচেয়ে বেশি বসানো হবে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে। ভিআইপি, ভিভিআইপি যাত্রী ছাড়াও শুধু ২৪টি গেট সাধারণ যাত্রীদের ব্যবহারের জন্যই বসানো হতে পারে।

যেভাবে কাজ করবে ই-গেট :
ই-পাসপোর্ট নিয়ে যখন একজন ব্যক্তি ই-গেটের কাছে যাবেন, তখন একটি নির্দিষ্ট স্থানে ই-পাসপোর্টটি রাখলে সঙ্গে সঙ্গে গেট খুলে যাবে। নির্দিষ্ট নিয়মে গেটের নিচে দাঁড়ানোর পর ক্যামেরা ছবি তুলে নেবে। এরপর সব ঠিকঠাক থাকলে ১২-১৫ সেকেন্ডের মধ্যেই যাত্রী ইমিগ্রেশন পেরিয়ে যেতে পারবেন। তবে কেউ যদি ভুল করেন তা হলে লাল বাতি জ্বলে উঠবে। তখন সেখানে দায়িত্বরত কর্মকর্তারা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে সঠিকভাবে ই-পাসপোর্ট ব্যবহারে সহযোগিতা করবেন।
তথ্য সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট বা এমআরপি নিয়ে ইমিগ্রেশন পার হতে গেলে ১০-১৫ মিনিট বা কখনো আরো বেশি সময়ও লেগে যায়। যে কারণে লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। কিন্তু ই-পাসপোর্ট থাকলে কয়েক সেকেন্ডে পার হওয়া সম্ভব হবে বলে এমন বিড়ম্বনায় পড়তে হবে না।
পাসপোর্ট অধিদপ্তর সূত্র জানায়, শুরুর দিকে প্রতিদিন দুই থেকে আড়াই হাজার ই-পাসপোর্ট প্রিন্ট করার চিন্তা নিয়ে এগোনো হচ্ছে। বিষয়টি নতুন হওয়ায় ধীরে ধীরে এ সংখ্যা বাড়ানো হবে। বর্তমানে প্রতিদিন ১৫ থেকে ২০ হাজার পাসপোর্টের চাহিদা রয়েছে। সেই ক্ষেত্রে পর্যায়ক্রমে ই-পাসপোর্ট দেওয়া হবে। বর্তমানে বই আকারে যে পাসপোর্ট আছে, ই-পাসপোর্টেও একই ধরনের বই থাকবে। তবে বর্তমানে পাসপোর্টের বইয়ের শুরুতে ব্যক্তির তথ্যসংবলিত যে দুটি পাতা আছে, ই-পাসপোর্টে তা থাকবে না। সেখানে থাকবে পলিমারের তৈরি একটি কার্ড। এই কার্ডের মধ্যে থাকবে একটি চিপ। সেই চিপে পাসপোর্টের বাহকের তথ্য সংরক্ষিত থাকবে। ই-গেটে চিপটি ব্যবহার করে দ্রুত ইমিগ্রেশন পার হওয়া যাবে।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: