সর্বশেষ আপডেট : ২ মিনিট ১৬ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

শমশেরনগর মুক্ত দিবস পালিত

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি:

শোভাযাত্রা, মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত স্থান দর্শন ও মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিচারণের মধ্য দিয়ে কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর মুক্ত দিবস পালিত হয়েছে। শমশেরনগর সাহিতাঙ্গণের উদ্যোগে ৩ শতাধিক কলেজ শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহনে শোভাযাত্রা শেষে মুক্তিযোদ্ধারা স্মৃতিচারণ করলেন। মঙ্গলবার বেলা ১.৩০ টায় শমশেরনগর সুজা মেমোরিয়াল কলেজের শিক্ষার্থী ও এলাকার বিভিন্ন শ্রেণি পেশার লোকদের অংশগ্রহণে প্রায় ২ কিলোমিটার পথ শোভাযাত্রা করে স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।
বেলা ২টায় শমশেরনগর ডাক বাংলোর ঐতিহাসিক বট বৃক্ষের তলায় কলেজ শিক্ষার্থী, মুক্তিযোদ্ধা, শিক্ষক, সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও সাংবাদিকদের অংশগ্রহনে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠান শুরু হয়। শুরুতেই ৩ ডিসেম্বর শমশেরনগর মুক্ত দিবস ও শমশেরনগর ডাক বাংলোয় ১৯৭১ সালের কক্ষ সম্পর্কে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সুজা মেমোরিয়াল কলেজের অধ্যক্ষ ম. মুর্শেদুর রহমান। কবি ও প্রভাষক শাহাজাহান মানিকের সঞ্চালনায় স্মৃতিচারণমুলক বক্তব্য রাখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ক্যাপঃ (অব:) সাজ্জাদুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা নির্মল দাশ, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাই, লেখক ও গবেষক অধ্যক্ষ রসময় মোহান্ত, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও ১৯৭১ সালে শমশেরনগর ডাক বাংলোয় নির্যাতেন শিকার শহীদ পরিবার সদস্য সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মছব্বির, সাংবাদিক মুজিবুর রহমান রঞ্জু প্রমুখ।
স্মৃতিচারণমূলক সভায় মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন ধলাই সাব সেক্টরে বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী হামিদুর রহমানের সহযোদ্ধা বীর মুক্তিযোদ্ধা ক্যাপ্টেন (অবঃ) সাজ্জাদুর রহমান আবেগ আপ্লুত হয়ে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত গল্প বলেন। ৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী আর তাদের দোসরদের টর্চার সেল শমশেরনগর ডাকবাংলো ও বটগাছের ইতিহাস তুলে ধরেন। বক্তারা বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধে সারা দেশের মধ্যে শমশেরনগরই সর্বপ্রথম পরিকল্পিত সম্ম‚খ সমরে ১১জন পাক সেনাকে হত্যা করে ও পাকিস্তানি পতাকা পুড়িয়ে গর্বিত ইতিহাস রচনা করেন। মুক্তিযোদ্ধা ও অন্যান্য বক্তারা বলেন, আজও ইতিহাসের স্বাক্ষ্য হয়ে দাঁড়িয়ে আছে বট বৃক্ষ। রয়েছে ডাক বাংলো ও নির্যাতন কক্ষ। এগুলো সংরক্ষণের পাশাপাশি এখানে একটি স্মৃতি সৌধ নির্মাণ করতে হবে।
১৯৭১ মুক্তিযুদ্ধ শুরুর মুহুর্তে ২৮ মার্চ সর্ব প্রথম মুক্তিযোদ্ধারা পাক সেনা কর্মকর্তা ক্যাপ্টেন গোলাম রসুলসহ ৯জন পাক সেনাকে হত্যা করেছিল শমশেরনগরে। এরপর দীর্ঘ নয় মাস পাক সেনারা শমশেরনগরে শক্ত ঘাঁটি স্থাপন করে নারকীয়ভাবে নির্যাতন পরিচালনা করে অসংখ্য মানুষ হত্যা করেছিল স্থানীয় বিমান বন্দরের রানওয়ের বধ্যভ‚মিতে। এখানে পাক সেনাদের সাথে মুক্তিযোদ্ধাদের তুমুল সংঘর্ষ হয়েছিল। অবশেষে মুক্তিযোদ্ধাদের গেরিলা হামলায় ঠিকে থাকতে না পেরে পাক সেনারা ৩ ডিসেম্বর শমশেরনগর ছেড়ে মৌলভীবাজার জেলা সদরের দিকে পিছু হটেছিল।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: