সর্বশেষ আপডেট : ১ মিনিট ৭ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

পেঁয়াজের দাম কবে কমবে জানেন না বাণিজ্যমন্ত্রী

পেঁয়াজের দাম কবে কমবে তা জানেন না বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। তিনি বলেছেন, সমস্যা সমাধানের একটাই পথ, দেশি উৎপাদন বাড়ানো।

রোববার জাতীয় সংসদ ভবনের মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে টিপু মুনশি এ মন্তব্য করেন।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্নের জবাবে ওই কমিটির সভাপতি তোফায়েল আহমেদ বলেন, পণ্যের দাম বাড়লেও দোষ, কমলেও দোষ। বাড়লে লেখালেখি হয়। আর কমলে লেখা হয় কৃষক দাম পাচ্ছেন না।

সংবাদ সম্মেলনে সংসদীয় কমিটির সভাপতি তোফায়েল আহমেদ বলেন, পেঁয়াজের সংকট সাময়িক। তার দৃঢ় বিশ্বাস দাম ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে চলে আসবে।

তিনি বলেন, সিন্ডিকেট বলে কিছু নেই। ব্যবসায়ীরা সরকারের বন্ধু। ধরপাকড়, জোরজবরদস্তি করে বাজার নিয়ন্ত্রণ করা যায় না।

পেঁয়াজের দাম কবে নাগাদ কমবে এমন প্রশ্নে সংবাদ সম্মেলনে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, কবে কমবে তা পূর্বানুমান করা সম্ভব নয়। মিসর, উসবেকিস্তান থেকে পেঁয়াজ আমদানী করা হলে খরচ পড়বে ৪০–৪৫ টাকা। সে জায়গায় যেতে সময় লাগবে। কারণ নতুন বাজারে যাওয়া, আর মিশরে পেঁয়াজের দাম নগদে দিতে হয়। সমস্যা সমাধানের একটাই পথ, দেশি উৎপাদন বাড়ানো। উৎপাদন বাড়াতে হলে কৃষকেরা যাতে ন্যায্য দাম পায় তা দেখতে হবে। দেশি পেঁয়াজ উঠলে এবং দাম পেতে শুরু করলে আমদানি কমিয়ে দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, ডিসেম্বরের শেষে বা মাঝামাঝি সময়ে দেশি পেঁয়াজ বাজারে আসবে। মিসর থেকেও যদি পুরোদমে চালান ঠিক থাকে এবং তাদের দাম না বাড়ে তাহলে দাম কমবে বলে তিনি মনে করেন।

এর আগে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি তোফায়েল আহমেদ পেঁয়াজের দাম বাড়ার প্রেক্ষাপট তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, পৃথিবীর সব দেশেই এখন পেঁয়াজের দাম বেশি। সংসদীয় কমিটির বৈঠকে এ বিষয় আলোচনা হয়েছে। আসন্ন রমজানে যাতে বাজার স্বাভাবিক থাকে সেজন্য এক সপ্তাহের মধ্যে তারা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে সভা করবেন। তাতে বড় বড় আমদানীকারকেরা উপস্থিত থাকবেন। বার্ষিক চাহিদা কত, উৎপদন কত আর কত আমদানি করতে হবে—তা নিরূপন করা হবে।

তিনি পেঁয়াজ ও বাজারদর নিয়ে সাংবাদিকদের সহযোগিতা কামনা করেন।

তিনি আশা করেন, আগামী দুই বছরের মধ্যে বাংলাদেশ পেঁয়াজ রপ্তানী করতে পারবে।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, পণ্যের দাম বাড়লেও দোষ, কমলেও দোষ। বাড়লে লেখালেখি হয়। আবার কমলে লেখা হয় কৃষক দাম পাচ্ছেন না।

তোফায়েল আহমেদের সভাপতিত্বে কমিটির সদস্য বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন, মোহাম্মদ হাছান ইমাম খাঁন, সেলিম আলতাফ এবং সুলতানা নাদিরা বৈঠকে অংশ নেন।

এ ছাড়া বাণিজ্য সচিব জাফর উদ্দিন, ট্যারিফ কমিশনের চেয়ারম্যান নূর-উর-রহমানসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর



নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: