সর্বশেষ আপডেট : ৫ ঘন্টা আগে
বৃহস্পতিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১৫ ফাল্গুন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

গুলশান হামলার রায়, আদালতে থাকবেন বিদেশি পর্যবেক্ষকরা

নিউজ ডেস্ক:: গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার মামলার রায়ের সময় আদালতে থাকবেন দেশি-বিদেশি পর্যবেক্ষকরা।

বুধবার দুপুরে ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালে গুলশান হামলার মামলার রায় হবে। এই রায়কে কেন্দ্র করে আদালত এলাকায় কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

২০১৬ সালের ১ জুলাইয়ের ওই হামলায় যেসব দেশের নাগরিকরা নিহত হয়েছিলেন, ওই সব দেশের দূতাবাসের কর্মকর্তারা রায় শুনতে আসবেন বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

হামলায় ১৭ বিদেশি নিহত হন। তার মধ্যে ৯ জন ইতালীয়, ৭ জন জাপানি, একজন ভারতীয়। জাপানের ওই সাত নাগরিক ঢাকার মেট্রোরেল প্রকল্পে কাজ করছিলেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ঢাকা মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের পরিদর্শক হুমায়ুন কবির জানান, জাপানসহ কয়েকটি দেশের দূতাবাসের প্রতিনিধি রায় দেখতে এজলাসে উপস্থিত থাকবেন।

যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্টের অর্থায়নে পরিচালিত ন্যাশনাল সেন্টার ফর স্টেট কোর্টের প্রতিনিধি হিসেবে আবু ওবায়দুর রহমান টগর রায় পর্যবেক্ষণে এজলাসে থাকবেন বলে জানিয়েছেন।

ঢাকা মহানগর অপরাধ, তথ্য ও প্রসিকিউশন বিভাগের উপ-কমিশনার জাফর হোসেন বলেন, যে আদালতে রায় হবে, সেখানে দিনের প্রথমভাগে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-৩ এর বিচারক বসেন এবং দ্বিতীয় ভাগে সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক বসেন। দুই বিচারকই সিদ্ধান্ত নেবেন, বুধবার কোন আদালত প্রথমে বসবে।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনাকারী আইনজীবী গোলাম ছারোয়ার খান জাকির জানিয়েছেন, আদালতের কার্যক্রম দুপুর ১২টার দিকে শুরু হবে। বিচারক মো. মজিবুর রহমান আসন নেয়ার পর ঘোষণা করা হবে রায়।

রায়কে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার থেকেই আদালত প্রাঙ্গণে নিরাপত্তা জোরদারের প্রস্তুতি শুরু করেছে পুলিশ।

উপ-কমিশনার জাফর হোসেন বলেন, এজলাসে প্রবেশাধিকার থাকবে সংরক্ষিত। এজলাসের আয়তন ছোট বলে সেখানে প্রবেশাধিকার নিয়ন্ত্রণ করা হবে। মামলায় সংশ্লিষ্ট আইনজীবী ছাড়া কেউ যাতে এজলাস কক্ষে না ঢোকেন, সে ব্যাপারে আমাদের তৎপরতা থাকবে।

তবে আদালত প্রতিবেদক বা কোর্ট রিপোর্টাররা সাংবাদিক হিসেবে যাতে এজলাসে ঢুকতে পারেন, সেই সুযোগ থাকবে বলে জানান পুলিশ কর্মকর্তারা।

এই মামলার অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে, নব্য জেএমবির জঙ্গিদের উদ্দেশ্য ছিল বাংলাদেশকে ‘অস্থিতিশীল করা’ এবং বাংলাদেশকে একটি ‘জঙ্গি রাষ্ট্র’ বানানো।

অভিযোগপত্রে বলা হয়, বিদেশি নাগরিকদের হত্যা করে নৃশংসতার প্রকাশ ঘটনানোর পাশাপাশি জঙ্গিরা এর মাধ্যমে দেশি-বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করতে চেয়েছিল।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: