সর্বশেষ আপডেট : ১৭ ঘন্টা আগে
রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

প্রাথমিক সহকারী শিক্ষকদের ১৩ তম গ্রেড উন্নীত করা হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক:: দেশের সরকারি প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন নিয়ে সংসদে কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার রাতে সংসদের অধিবেশনের সমাপনী বক্তব্যে তিনি এ বিষয়ে কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিক্ষকদের বেতন যেভাবে আমরা বাড়িয়েছে তা আর কেউ বাড়ায়নি। আমরা আমাদের শ্রমিক থেকে শুরু করে অফিসার শিক্ষক সকলে বেতন বৃদ্ধি করেছি।

তিনি বলেন, প্রায় ৬৫ হাজার প্রাথমিক হেড মাস্টারকে ১১তম গ্রেড দেওয়া হয়েছে। ৩ লাখ ৮২ হাজার সহকারী শিক্ষককে ১৩ তম গ্রেড উন্নীত করা হয়েছে। আর বেতনের পরিমাণ কিন্তু এখন অনেক বেশি। শিক্ষকদের ট্রেনিং দেওয়া হয়েছে। ট্রেনিং দিলে বেতন বাড়ছে।

এমপিওভুক্ত নিয়ে তিনি বলেন, আমাদের যারা শিক্ষক তারা অনেকদিন এমপিওভুক্ত হয়নি। এখন করে দিয়েছি। আড়াই হাজারেরও বেশি প্রতিষ্ঠান এমপিও পেয়েছে। বাকি অনেক স্কুলগুলোকে মানসম্মত শিক্ষার ব্যাপারে সচেতন করা হচ্ছে। ওরা যখন যোগ্যতা অর্জন করতে পারবে তাদেরও এমপিওভুক্ত হবে।

এদিকে প্রাথমিকের সহকারী ও প্রধান শিক্ষকদের গ্রেড উন্নীতের মাধ্যমে বেতন বৃদ্ধির প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে আইনগত মতামত নিয়ে বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন।

প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষকদের বেতন স্কেলের ১৩তম ও প্রধান শিক্ষকদের ১১তম গ্রেডে বেতন নির্ধারণের প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। শিক্ষকরা বলেছেন, তারা এই সিদ্ধান্ত মানেন না। ইতোমধ্যে প্রধান শিক্ষকরা ১০তম গ্রেড করার বিষয়ে আদালতের রায় পেয়েছে। আপনারা কী আদালতের রায় অমান্য করে এটা করতে চাচ্ছেন- এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন বলেন, ‘না, তা করতে চাচ্ছি না আমরা।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের মন্ত্রণালয় থেকে একটা প্রস্তাব দেয়া ছিল, অর্থ মন্ত্রণালয়, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে যেতে হয়। তাদের (শিক্ষক) সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমরা এটা করেছি, তারা যে ধারণাটা দিয়েছেন, এই রকম ১৩তম গ্রেডে দেয়া হোক। ওনারা দিয়েছেন, পরবর্তী সময়ে আমরা এটা রিভিউ করেছি। আমরা সেই জায়গায় পৌঁছার জন্য চেষ্টা করতেছি। আমাদের একটা নিয়োগবিধি হবে, ১৯৮৫ সাল থেকে প্রধান শিক্ষকদের কোনো নিয়োগবিধি নেই।’

এ পর্যায়ে সচিব বলেন, ‘মানা না মানা হচ্ছে পরের বিষয়। এখন প্রধান শিক্ষকদের দুটি স্কেল বলবৎ আছে- ১১ ও ১২ তম গ্রেড। প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকরা ১১তম ও প্রশিক্ষণ ছাড়া প্রধান শিক্ষকরা ১২তম গ্রেডে বেতন পেয়ে থাকেন। ওইটাকে এক করা হয়েছে। প্রশিক্ষণ ও প্রশিক্ষণ বিহীন- এটা আর থাকবে না।’

তিনি বলেন, ‘সহকারী শিক্ষকদেরও দুটো স্কেল ১৪ ও ১৫তম। প্রশিক্ষণ ও প্রশিক্ষণবিহীন-এটাকেও এক করে ১৩তম গ্রেড করা হয়েছে।’

আকরাম-আল-হোসেন বলেন, ‘ওই জায়গাটায় একটা বড় ধরনের বৈষম্য ছিল, কারণ প্রশিক্ষণের ম্যান্ডেটটা সরকারের, যখন কেউ নিয়োগ পায় প্রশিক্ষণ দেয়ার দায়িত্ব হচ্ছে সরকারের। আমি প্রশিক্ষণ দিতে পারছি না সেজন্য শিক্ষক কেন সাফার করবে?’




এ বিভাগের অন্যান্য খবর



নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: