সর্বশেষ আপডেট : ৯ ঘন্টা আগে
শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ছাত্রীর পেটে বাচ্চা দেয়ার প্রস্তাব বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকের

নিউজ ডেস্ক:: গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক ও সহকারী প্রক্টর হুমায়ুন কবিরের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে।

এগ্রিকালচার বিভাগের নেপালী শিক্ষার্থী সুমি শিং ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ এনে রেজিস্ট্রার বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

এর আগে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি খোন্দকার নাসিরউদ্দিনসহ আরো আরো দুই শিক্ষকের বিরুদ্ধে একই অভিযোগ উঠেছিল। বিশ্ববিদ্যালয়ে একের পর এক শিক্ষকদের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির ওঠায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিতর ও বাইরে ব্যাপক সমালোচনার ঝড় বইছে। তবে বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেছেন উপাচার্য।

বিশ্ববিদ্যালয় ও অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক হুমায়ুন কবির ওই শিক্ষার্থীদের কৃষি বিজ্ঞান বিভাগের ক্লাস নিতেন। ক্লাস শেষে তাকে প্রায়ই ব্যক্তিগতভাবে দেখা করতে বলতেন। তিনিও দেখা করতেন। দেখা করার পরে তিনি তার সাথে ফ্রি ভাবে কথা বলতে ও বন্ধুত্ব সুলভ আলোচনা করার জন্য অনুরোধ করতেন।

এসময় হুমায়ুন কবির ওই শিক্ষার্থীকে ফেসবুকে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠান ও একসেক্ট করার জন্য অনুরোধ করলে তার ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট একসেক্ট করেন।

এরপর থেকে প্রভাষক হুমায়ুন কবির ওই শিক্ষার্থীকে সেক্সুয়ালি ম্যাসেজ করতে থাকেন এবং ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে তাকে বিয়ে করার প্রস্তাব দেন। পরে ওই শিক্ষার্থীর পেটে বাচা দেওয়ারও প্রস্তাব দেন। তিনি তাকে ঘুরতে যাওয়ার জন্য বিভিন্ন সময় প্রস্তাব দিতে থাকেন।

এর এক পর্যায়ে ওই শিক্ষার্থী এসব কথা শিক্ষকদের কাছে বলে দেয়ার কথা বললে তাকে নানাভাবে হুমকি দেন। হুমাযুন কবীর তাকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কোনো প্রকার সার্টিফিকেট নিয়ে যেতে দিবে না এমন হুমকি দেন। যে কারনে সে নিরাপত্তাহীনতা ও দুশ্চিন্তায় ভুগছে যার দরুন তার পড়া লেখায় বিঘ্ন ঘটছে।

এ ব্যাপারে সহকারী প্রক্টর মোঃ হুমায়ুন কবির তার বিরুদ্ধে করা অভিযোগ ভিত্তিহীন ও বানোয়াট আখ্যায়িত করে বলেছেন, সম্প্রতি ভিসি প্রফেসর ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিনের পদত্যাগের আন্দোলনে আমি সহকারি প্রক্টর থেকে পদত্যাগ করে শিক্ষার্থীদের পক্ষে অবস্থান নেই। তখন একটি পক্ষ আমার নামে ফেক আইডি খুলে আমার নামে বিভিন্ন মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছে। তখন এ বিষয়ে আমি থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করি। এটাও তার একটি অংশ বলে তিনি উল্লেখ করে।

রেজিস্ট্রার প্রফেসর ড. মোঃ নুরউদ্দিন আহমেদ বলেছেন, তিনি অভিযোগ পেয়েছেন এবং এ বিষয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করে দ্রুত পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন বলে জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহজাহান বলেছেন, বিষয়টি সম্পর্কে তিনি অবগত নন। তবে, অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, এর আগেও বিভিন্ন সময়ে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর ড. খোন্দকার নাসির উদ্দিন, হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক বরিউল ইসলাম ও সিইসি বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ আক্কাস আলীর বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠে।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর



নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: