সর্বশেষ আপডেট : ৭ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

গায়েবিভাবে অন্তঃসত্ত্বা অবিবাহিত কিশোরীর সন্তান প্রসব!

নিউজ ডেস্ক:: কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় ১২ বছরের অবিবাহিত এক কিশোরীর কন্যা সন্তান প্রসব করেছেন। ওই কিশোরী গায়বিভাবে অন্তঃসত্ত্বা হয়েছেন বলে দাবি করছে তার পরিবার।

গত ৬ নভেম্বর কিশোরীটি নিজ বাড়িতে ওই কন্যা সন্তানের জন্ম দিলেও রোববার ঘটনাটি প্রকাশ পায়। এরপরই ওই এলাকায় স্থানীয়দের মধ্যে নানা গুঞ্জনের সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে সোমবার সকালে সরেজমিনে ঘুরে এলাকাবাসীসহ স্থানীয় বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, ওই কিশোরীর বাবা হাবিবুর রহমান (৫৫) একজন ভণ্ড ফকির বলেই এলাকায় পরিচিত। তিনি একাধিক বিয়েও করেছেন। মেয়ের অন্তঃসত্ত্বার বিষয়টি নিয়ে হাবিবুর রহমান এলাকাবাসীর কাছে বেশ কিছুদিন ধরেই প্রচার করছিলেন যে তার মেয়ের পেটে বড় টিউমার হয়েছে। কিন্তু কিশোরীটি কন্যা সন্তান প্রসবের পর তিনি এলাকায় প্রচার শুরু করেন যে, তার মেয়ে গায়বিভাবে অন্তঃসত্ত্বা হয় এবং পরে সন্তান প্রসব করে। তবে, ভূমিষ্ঠ সন্তান ছেলে হলে তিনি একটি মাজার তৈরি করতেন বলেও প্রচার করেছিলেন এলাকাবাসীর কাছে।

এ ব্যাপারে কিশোরীটির চাচা পুলেরঘাট আঞ্চলিক শাখার সোনালী ব্যাংকের কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম জানান, ভাতিজির সন্তান প্রসবের পর মেয়েটির বাবা হাবিবুর রহমানের কাছে এর কারণ জানতে চান তিনি। এ সময় প্রতিউত্তরে হাবিবুর রহমান তাকে জানান, ‘গায়বিভাবে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে তার মেয়ের বাচ্চা হয়েছে, বাচ্চাটি আল্লাহ দান করেছেন।’ এ সময় ছেলে হলে তিনি তার নামে একটি মাজারও তৈরি করতেন বলে জানিয়েছিলেন।

স্থানীয় মেম্বার আবুল কাশেম জানান, বিষয়টি প্রথমে আমার জানা ছিল না। কিন্তু এখন তো সারা গ্রাম জেনেছে। তবে, তার বাবার কথা শুনার পর গ্রামবাসীরা সবাই অবাক। কীভাবে একটি মেয়ে গায়বিভাবে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে সন্তান জন্ম দেয়?

এগারসিন্দুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. মতিউর রহমান সরকার জানান, আগে এলাকাবাসীর কাছে শুনেছি মেয়েটি পেটে টিউমার হয়ে অসুস্থ রয়েছে। আর এখন শুনছি গায়েবিভাবে সন্তান হয়েছে। বিষয়টি এলাকার মানুষকে ভাবিয়ে তুলছে।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে পাকুন্দিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মফিজুর রহমান দৈনিক অধিকারকে জানান, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাকে নিয়ে বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে বিষয়টি জানাজানি হলে মেয়টির বাবা হাবিবুর রহমান এলাকা ছেড়ে গা ঢাকা দিয়েছেন। পাশাপাশি ওই কিশোরী বিষয়টিতে মুখ খুলছেন না। এ নিয়ে ওই এলাকায় স্থানীয়দের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর



নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: