fbpx

সর্বশেষ আপডেট : ৩৭ মিনিট ১৬ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ২৮ মে ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

আফিফ-মোসাদ্দেকের ব্যাটে বাংলাদেশের জয়

স্পোর্টস ডেস্ক:: আফিফ হোসেন ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের দুরন্ত ব্যাটে ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রথম ম্যাচে অবিশ্বাস্য জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। তারুণ্যে ভর দিয়ে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৩ উইকেটে জিতলো টাইগাররা। জিম্বাবুয়ে-বাংলাদেশের ম্যাচ দিয়ে পর্দা উঠলো ত্রিদেশীয় সিরিজের। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে জিম্বাবুয়ে নির্ধারিত ১৮ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে তোলে ১৪৪ রান। জবাবে ১৭.৪ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে জয়ের বন্দরে পৌঁছে টাইগাররা।

১৪৫ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরুতে ভালোই শুরু করেছিল লিটন-সৌম্য। প্রথম ওভারেই তুলে ফেলেছিল ৮ রান। এরপর জিম্বাবুয়ের বোলিং তোপে দাঁড়াতে পারেনি বাংলাদেশ। দলীয় ২৬ রানে লিটনকে বোল্ড করে ফেরান চাতারা। ১৪ বলে ১৯ রান তুলেছেন তিনি। এরপর স্কোরকার্ডে কোন রান যোগ না হতেই ফিরতে ফিরলেন সৌম্য সরকার। জার্ভিসের বলে বিলাসী শটে মারতে গিয়ে মাজভিয়ার তালুবন্দী হন তিনি। ৭ বলে সৌম্যের সংগ্রহ ৪ রান।

স্কোরকার্ডে ১ রান যোগ হতেই খালি হাতে ফিরলেন ফর্মে থাকা মুশফিকুর রহিম। জার্ভিসের বলে টেইলরের ক্যাচ হয়ে ফিরেছেন তিনি। দলীয় ২৯ রানে দলকে বিপদে ফেলে ফিরলেন সাকিবও। ১ রান করেই চাতারার শিকার হয়ে ফিরেছেন সাকিব।

এরপর সাব্বির-মাহমুদউল্লাহ মিলে জুটি গড়ার চেষ্টা করলো। কিন্তু মাহমুদউল্লার(১৪) বিদায়ে সেই জুটিও ভেঙে গেল। রায়ান বার্লের লেগ স্পিনে এলবিডব্লিউ হয়ে ফিরে গেলেন এই অলরাউন্ডার। স্কোরকার্ডে মাত্র ৪ রান যোগ হতেই সেই মাজভিয়ার বলেই ফিরলো বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি স্পেশালিস্ট ব্যাটসম্যান সাব্বির রহমান। মাজভিয়ার বলে উড়িয়ে মারতে গায়ে বাউণ্ডারি লাইনে বার্লের তালুবন্দী হন সাব্বির(১৫)।

এরপর দুই তরুণের ব্যাটে ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। আফিফ হোসেনকে নিয়ে এগুতে থাকেন মোসাদ্দেক। দুজনই ব্যাটে ঝড় তুলেছিলেন। মাত্র দ্বিতীয় ম্যাচ খেলতে নামা আফিফ ২৪ বলে ফিফটি হাঁকান। ৪৭ বলে তারা তোলেন ৮২ রান। জয় থেকে অল্প দূরে থাকতে বিদায় নেন আফিফ। তার আগে করেন ক্যারিয়ার সেরা ৫২ রান। তার ২৬ বলের ইনিংসে ছিল ৮টি চার আর একটি ছক্কার মার। মোসাদ্দেক ২৪ বলে দুই ছক্কায় করেন অপরাজিত ৩০ রান। সাইফউদ্দিন ২ বলে ৬ রান করে অপরাজিত থাকেন।

শুরুতে ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে টস জিতে জিম্বাবুয়েকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় বাংলাদেশ। পূর্ব নির্ধারিত সময় অনুসারে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় খেলা শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বৃষ্টির কারণে মাঠ ভেজা থাকায় নির্ধারিত সময়ের সোয়া এক ঘণ্টা পর খেলা শুরু হয়। বিলম্বে খেলা শুরু হওয়ায় ম্যাচ হবে কার্টল ওভারে। ২০ ওভারের পরিবর্তে খেলা হয়েছে ১৮ ওভারের।

ম্যাচের শুরুতেই উদ্বোধনী বোলিংয়ে আসেন সাকিব আল হাসান। টেইলর ও মাসাকাদজা মিলে ১ ওভারেই তুলে নিয়েছেন ৭ রান। পরের ওভারে আসে তাইজুল। আন্তর্জাতিক টি–টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের প্রথম বলেই তুলে নিয়েছেন জিম্বাবুয়ের ওপেনার ব্রেন্ডন টেলরকে। এ ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক টি–টোয়েন্টি সংস্করণে অভিষেক ঘটেছে তাইজুলের।

এরপর মাসাকাদজার ব্যাটে রানের চাকা ঘুরতে থাকে জিম্বাবুয়ের। দলীয় ৪৮ রানে বল হাতে আসেন মোস্তাফিজ। নিজের চতুর্থ বলেই জিম্বাবুয়ের ৫১ রানে ফেরালেন ক্রেইগ এরভিনকে। দলীয় ৫৬ রানে মাসাকাদজার তাণ্ডব থামান সাইফউদ্দিন। সাজঘরে ফেরার আগে ২৬ বলে ৩৪ রান তুলেন তিনি।

নবম ওভারে আক্রমণে এসে প্রথম বলেই শন উইলিয়ামসকে (২) নিজের ক্যাচ বানিয়ে ফিরিয়ে দেন মোসাদ্দেক হোসেন। দলীয় ৬৩ রানের মাথায় রানআউট হয়ে ফেরেন টিমিসেন মারুমা (১)। সাকিবের করা ১৬তম ওভারে তিনটি ছক্কা আর তিনটি চার হাঁকান রায়ান বার্ল। ২৮ বলে ফিফটি পূর্ণ করেন তিনি। ৩২ বলে ৫টি চার আর ৪টি ছক্কায় ৫৭ রান করে অপরাজিত থাকেন তিনি। আর টিনোতেন্দা মুতুমবোদজি ২৬ বলে ২৭ রান করে অপরাজিত থাকেন। তাদের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে আসে ৫১ বলে ৮১ রান। ১৮ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৪৪ রান তোলে জিম্বাবুয়ে।

৪ ওভারে ৪৯ রান দিয়ে সাকিব কোনো উইকেট পাননি। নিজের শেষ ওভারেই দেন ৩০ রান। ৪ ওভারে ২৬ রান দিয়ে একটি উইকেট নেন সাইফউদ্দিন।অভিষিক্ত তাইজুল ৩ ওভারে ২৬ রান দিয়ে নেন একটি উইকেট। মোস্তাফিজ ৪ ওভারে ৩১ রান দিয়ে নেন একটি উইকেট। আর মোসাদ্দেক ৩ ওভারে ১০ রান খরচায় পান একটি উইকেট।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: