সর্বশেষ আপডেট : ৮ মিনিট ৭ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ১০ অগাস্ট ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

শ্রীমঙ্গলে সেড আয়োজিত ডেসেমিনেশন সেমিনার

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি:: “সরকারের বিভিন্ন বিভাগের সমন্বিত প্রচেষ্টা ছাড়া চা বাগানে মাতৃমৃত্যু হ্রাস করা সম্ভব না। সরকারের কিছু সীমাবদ্ধতা আছে। এসব সীমাবদ্ধতাকে অতিক্রম করা সম্ভব বিভিন্ন বিভাগের মধ্যে সমন্বয় করে। এজন্য জেলা পর্যায়ে সরকারি প্রতিষ্ঠানকে একসাথে বসে কাজ করতে হবে। বৃহস্পতিবার দুপুরে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের ব্র্যাক লানিং সেন্টারে সোসাইটি ফর এনভায়রনমেন্ট অ্যান্ড হিউম্যান ডেভেলপমেন্ট (সেড) আয়োজিত ডেসেমিনেশন সেমিনারে এসব কথা বলেন সেমিনারের প্রধান অতিথি মৌলভীবাজার জেলার পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের উপপরিচালক মো: আব্দুর রাজ্জাক।

সিআইপিআরবি’র পরিচালক একেএম ফজলুর রহমান এর সভাপতিত্বে সেমিনারের শুরুতেই সেড-এর পরিচালক ফিলিপ গাইন চা বাগান এবং অন্যান্যদের ব্যবহারের জন্য যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য অধিকার বিষয়ক প্রকাশনা ও প্রামাণ্যচিত্র স¤পর্কে আলোচনা করেন। তিনি বলেন, “চা বাগানের মানুষ নানা বৈষম্যের শিকার। বৈষ্যমের শিকার মানুষকে সেবা দিয়েও সুফল পাওয়া যায় না। চা বাগানে মজুরি বৈষম্য দূর করার পাশাপাশি স্বাস্থ্য অধিকারের বিষয়ে সরকার, বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়ন এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে কাজ করতে হবে। গবেষণার মাধ্যমে তাদের সমস্যা খুঁজে বের করে তার সমাধানের পথ খুঁজে বের করতে হবে।

অনুষ্ঠানে অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন ডাক্তার বিনেন্দু ভৌমিক, ইউএনএফপিএ এর যৌন ও প্রজনন বিভাগের প্রোগ্রাম স্পেশালিস্ট মো: সামসুজ্জামান, উপজেলা স্বাস্থ্য প:প: কর্মকর্তা মো: সাখাওয়াত হোসেন বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ স¤পাদক এবং কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রাম ভজন কৈরী, শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এম ইদ্রিস আলী।

সেড ছয়মাসব্যাপী গবেষনা শেষে যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য অধিকার বিষয়ক ম্যানুয়াল, ফ্লাইয়ার এবং পোস্টার প্রকাশ করে এবং প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণ করে। এসব প্রকাশনা ও প্রামাণ্যচিত্র চা বাগানের মা ও মানুষ, স্বাস্থ্যকর্মী, সাংবাদিক, সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এবং যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য নিয়ে আগ্রহীদের ব্যবহারের জন্য। এসব সামগ্রী তৈরিতে সেড-কে সহায়তা করেছে জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিল (ইউএনএফপিএ) এবং সেন্টার ফর ইনজুরি প্রিভেনশন অ্যান্ড রিসার্চ, বাংলাদেশ (সিআইপিআরবি)।
প্রধান অতিথি মো: আব্দুর রাজ্জাক আরো বলেন, “চা বাগানের মায়েদের সুস্বাস্থ্যের জন্য বেসরকারি পর্যায়ের যেসব প্রকল্প আছে সেগুলোকে সরকারি প্রকল্পের সাথে সমন্বয় করতে হবে। বাগান পর্যায়ে সিআইপিআরবি’র যেসব বাগান সেবিকা আছে তাদেরকে একটি নির্দিষ্ট কর্মকান্ডের মধ্যে এনে সেবা কাজ পরিচালনা করতে হবে। তাহলেই বাগান পর্যায়ে সেবা মায়েদের স্বাস্থ্যসেবা দেওয়ার পথ সহজ হবে।”
অনুষ্ঠানের সভাপতি সিআইপিআরবি’র পরিচালক একেএম ফজলুর রহমান বলেন, “সেড, সিআইপিআরবি এবং জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিল, বাগান মায়েদের সুরক্ষার জন্য একসাথে কাজ করছে। এই তিন প্রতিষ্ঠান মূলত কাজ করছে সরকারের সাথে। তাদের এই উদ্যোগকে সফল করার জন্য সবাইকে একসাথে কাজ করতে হবে।”
চা বাগানে গর্ভবতী মায়েরা যে ঘরে থাকেন তা স্বাস্থ্যসম্মত নয়। একই ঘরের মধ্যে গবাদি পশু ও চা শ্রমিকেরা বাস করেন। বাগানের ডিসপেনসারিতে সামান্য কিছু ওষুধ ছাড়া বাকী ওষুধ পাওয়া যায় না। এসব সমস্যা সমাধান করতে না পারলে বাগানের মায়েদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা দেওয়া সম্ভব হবে না।

বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ স¤পাদক এবং কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রাম ভজন কৈরী বলেন, “বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়ন অনেক আগেই সরকারি স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রে চা শ্রমিকদের জন্য বিশেষ কর্নার করার প্রস্তাব করা হলেও তা এখনো বাস্তবায়ন করা হয়নি।” তিনি চা শ্রমিকদের মজুরি বঞ্চনা দূর করে সরকারি হাসপাতালগুলোতে বিশেষ সুবিধা প্রদান করার দাবী করেন।
সেমিনারে আরো বক্তব্য রাখেন জনস্বাস্থ্য বিষয়ে বিশেষজ্ঞ, সরকারি কর্মকর্তা, বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের প্রতিনিধি, সাংবাদিক এবং সচেতনতা সামগ্রী তৈরিতে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণকারী। অনুষ্ঠানে মুক্ত আলোচনায় বেশ সাংবাদিক ও চা শ্রমিক প্রতিনিধিদের মধ্যে বেশ কয়েকজন আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: