সর্বশেষ আপডেট : ১৩ ঘন্টা আগে
বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

ওয়ার্নারকে দর্শকদের ‘হলুদ কার্ড’

স্পোর্টস ডেস্ক:: এজবাস্টন টেস্ট দিয়ে বৃহস্পতিবার (১ আগস্ট) মাঠে গড়িয়েছে ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার ৭১তম অ্যাশেজ সিরিজ। বিতর্ক দিয়ে শুরু হলো এবারের অ্যাশেজের দ্বৈরথ। প্রথমে করমর্দন অনুষ্ঠান বাতিল। তার পরে অজি ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নারের উদ্দেশ্যে সিরিশ-কার্ড দেখানো। যা নিয়ে মাঠের ভেতরের মতো মাঠের বাইরেও জমে উঠেছে প্রাচীনতম দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী লড়াই।

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে বল বিকৃতি কাণ্ডের জেরে এক বছর নির্বাসনে থাকার পরে অ্যাশেজ দিয়েই টেস্টে প্রত্যাবর্তন ঘটছে অস্ট্রেলিয়ার তিনি ক্রিকেটারের। স্টিভ স্মিথ, ডেভিড ওয়ার্নার এবং ক্যামেরন ব্যানক্রফ্টের। এই ক্রিকেটারদের যে দর্শক বিদ্রুপের মুখে পড়তে হবে, এই আশঙ্কাটা প্রথম থেকেই ছিল। বৃহস্পতিবার যখন অস্ট্রেলিয়ার প্রথম এগারোর তালিকা পড়ে শোনানো হচ্ছে, স্মিথের নাম শোনা মাত্রই বিদ্রুপ করতে থাকেন এজবাস্টনের দর্শকরা।

ব্যাপারটা অন্য মাত্রা পেয়ে যায় ওয়ার্নার আউট হওয়ার সময়। বাঁ-হাতি ওপেনার যখন স্টুয়ার্ট ব্রডের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে ফিরে যাচ্ছেন, গ্যালারির একটা অংশের দর্শক উঠে দাঁড়িয়ে ‘হলুদ কার্ড’-এর আকারে কেটে আনা সিরিশ কাগজ দেখাতে থাকেন তাঁর উদ্দেশে। যে ভিডিয়ো আবার টুইট করেছে ইংল্যান্ড ক্রিকেট।

এ তো গেল দর্শকদের প্রতিক্রিয়া। অ্যাশেজের প্রথম বল পড়ার আগেই দু’দলের অন্য এক ‘ম্যাচ’ হয়ে গিয়েছে। যে ম্যাচের কেন্দ্রে ছিল ‘করমর্দন অনুষ্ঠান।’

ব্রিটিশ প্রচারমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক টিম পেন চেয়েছিলেন ম্যাচের আগে দু’দলের ক্রিকেটারেরা যেন করমর্দন করেন। এর আগে ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়ার ওয়ান ডে সিরিজে ম্যাচের আগে করমর্দন করেছিলেন দু’দলের ক্রিকেটারেরা। অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটারদের ভাবমূর্তি বদল করতে এই পদক্ষেপ করেছেন পেন। কিন্তু জানা যাচ্ছে, গত কাল ম্যাচ রেফারি রঞ্জন মদুগলের সঙ্গে বৈঠকের সময় ব্যাপারটা প্রথম জানতে পারেন ইংল্যান্ড অধিনায়ক জো রুট এবং কোচ ট্রেভর বেলিস। ইংল্যান্ড অধিনায়ক এবং কোচের থেকে সরকারি ভাবে কোনও অনুমোদন না নিয়েই ‘করমর্দন সূচি’ রাখা হয়েছিল। যা দেখে একেবারেই খুশি হননি রুটরা।

ফলে দেখার ছিল, বৃহস্পতিবার জাতীয় সঙ্গীত গাওয়ার পরে দু’দলের ক্রিকেটারেরা নিজেদের মধ্যে করমর্দন করেন কি না। দেখা গিয়েছে, ইংল্যান্ডের জাতীয় সঙ্গীত শেষ হওয়ার পরেই অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটারেরা ড্রেসিংরুমের দিকে হাঁটা মারেন। ইংল্যান্ড ক্রিকেটারেরা প্রস্তুতি নিতে শুরু করেন ফিল্ডিংয়ে নামার জন্য। দু’দলের ক্রিকেটারদের মধ্যে যদি কোনও করমর্দন হয়েও থাকে, সেটা ঘটেছে সবার চোখের আড়ালে! বল বিকৃতি কাণ্ডের পরে অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক পেন চেয়েছিলেন, দলের ক্রিকেটারদের ভাবমূর্তি বদলে ফেলতে। যে কারণে প্রতিটা টেস্ট সিরিজের আগে এই করমর্দন প্রথা চালু করতে চেয়েছেন তিনি। ইংল্যান্ডের সংবাদপত্রের খবর অনুযায়ী, রুট নাকি এ ব্যাপারে মোটেও আগ্রহ দেখাননি। ইংল্যান্ড অধিনায়ক মনে করেন, এটা স্রেফ একটা জনসংযোগের চেষ্টা ছাড়া আর কিছু নয়।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: