সর্বশেষ আপডেট : ৯ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

শিক্ষক কর্তৃক ছাত্রী উত্ত্যক্তের জেরে ছাতকে অধ্যক্ষ লাঞ্চিত : অভিযুক্ত শিক্ষক গ্রেফতার

ছাতক সংবাদদাতিা:: ছাতকে মাদরাসা ছাত্রীর হাতে অধ্যক্ষ লাঞ্চিত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। শিক্ষক কর্তৃক উত্ত্যক্ত হওয়ার ঘটনার বিচার না পাওয়ায় প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষকে লাঞ্চিত করে ওই মাদরাসা ছাত্রী। শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় উপজেলার গোবিন্দগঞ্জ-সৈয়দেরগাঁও ইউনিয়নের গোবিন্দনগর ফজলিয়া ফাজিল মাদরাসায় অধ্যক্ষ লাঞ্চিত হওয়ার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর শিক্ষার্থীদের মধ্যে তীব্র উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। এসময় মাদরাসার উত্তেজিত ছাত্ররা অধ্যক্ষ লাঞ্চিত করার প্রতিবাদে মাদরাসা প্রাঙ্গনে বিক্ষোভ করে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়েরের পর পুলিশ ওই শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সিলেটের জালালাবাদ থানার আলীনগর গ্রামের একরামুল হকের কন্যা সাহেলা বেগম গোবিন্দনগর ফজলিয়া ফাজিল মাদরাসা ছাত্রী। সে এবারে আলিম পরীক্ষার্থী ছিল। গত ১ মার্চ থেকে আলিম পরীক্ষা শুরু হলেও সাহেলা বেগম পরীক্ষা দেয়নি।

সাহেলার বাবার অভিযোগ, মাদরাসার ইংরেজি শিক্ষক রাজিবুর রহমান বিভিন্ন সময়ে প্রাইভেট পড়ানোর সময় তাকে উত্ত্যক্ত করার পাশাপাশি নানা কু-প্রস্তাব দিয়েছেন। এ বিষয়ে মাদরাসা অধ্যক্ষের কাছে বিচার প্রার্থী হলেও বিচার না করায় শনিবার মাদরাসার পাঠদান চলাকালে প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুস সালাম আল মাদানীকে লাঞ্চিত করে মাদরাসা ছাত্রী সাহেলা বেগম। এ খবর চারদিক ছড়িয়ে পড়লে মাদরাসায় শিক্ষার্থীদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে পরিচালনা কমিটির সদস্যরা দ্রুত প্রতিষ্টানে উপস্থিত হয়ে থানায় খবর দেন।

এদিকে, এ ঘটনার পর থানা পুলিশ দুপুরে মাদরাসা অধ্যক্ষ, অভিযুক্ত শিক্ষক ও ছাত্রী সাহেলা বেগমকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে নিয়ে আসেন। এখানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবেদা আফসারীর উপস্থিতে মাদরাসা ছাত্রীসহ স্থানীয় সাংবাদিকদের উপস্থিতে সকলের বক্তব্য শুনেন। এক পর্যায়ে অধ্যক্ষকে লাঞ্চিত করার ঘটনায় মাদরাসা ছাত্রী সাহেলা বেগম অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুস সালাম আল মাদানীর কাছে জনসম্মুখে ক্ষমা প্রার্থনা করে। এছাড়াও এৎসময় সাহেলাকে উত্ত্যক্ত করার বিষয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ দিতে বলা হয়।
ছাত্রী সাহেলা বেগমের অভিযোগ, ২০১৮ সালের অক্টোবর মাসে শিক্ষক রাজিবুর রহমানের বাসায় প্রাইভেট পড়তে যায় সে। এ সময় নানা ভাবে তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্চিত করার চেষ্টা করেছেন ওই শিক্ষক। সে ৬ দিন প্রাইভেট পড়ে ওই শিক্ষকের কাছে পড়া বন্ধ করে দেয়।

অভিযুক্ত প্রতিষ্টানের ইংরেজী শিক্ষক রাজিবুর রহমান বলেন, আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ সঠিক নয়, এই বিষয় পুরোটাই ষড়যন্ত্র। আমাকে ফাসানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। প্রতিষ্টান প্রধান অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুস সালাম আল মাদানী বলেন, ছাত্রী সাহেলার অভিযোগের বিষয়ে মাদরাসার শিক্ষকমন্ডলী ও পরিচালনা কমিটির সদস্যদের অবহিত করা হয়েছে। এ নিয়ে একবার মাদরাসা শিক্ষকদের নিয়ে বৈঠকও হয়েছে। এরপরে এই ঘটনাটি অনাকাংখিত ও দুঃখজনক।

থানার ওসি আতিকুর রহমান ঘটনার বিষয়ে বলেন, মাদরাসা ছাত্রীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে মাদরাসা ছাত্রী সাহেলা বাদী হয়ে একটি মামলা হয়েছে, বিষয়টির তদন্ত চলছে। অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেফতার করা হয়েছে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: