সর্বশেষ আপডেট : ৭ ঘন্টা আগে
শনিবার, ৪ এপ্রিল ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

অফিস পরিষ্কার ও বাসন মাজতেন নরেন্দ্র মোদি!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: নরেন্দ্র মোদি। ভারতের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী তিনি। তবে এই পর্যায়ে আসতে তাকে অনেক বাধা-বিপত্তি পেরোতে হয়েছে। চাচার ক্যান্টিনে কাজ করেছেন। ভারতের হিন্দুত্ববাদী ধর্মীয় সংগঠন রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের (আরএসএস) এর প্রচারক হওয়ার পর এর অফিস পরিষ্কার করার কাজও করেছেন। সহকর্মীদের জন্য চা ও খাবার প্রস্তুত করেছেন। এমনকি, বাসনও মেজেছেন। ‘হিউম্যানস অফ বম্বে’ নামের এক ফেসবুক পেজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এমনটাই জানিয়েছেন নরেন্দ্র মোদি নিজেই।

ওই পেজে প্রকাশিত সাক্ষাৎকারে নরেন্দ্র মোদি বলেন, কাকার ক্যান্টিনে মাঝে মাঝে তিনি সাহায্য করতেন। এরপরই তিনি আরএসএস-এর পূর্ণ সময়ের প্রচারকের কাজে নিযুক্ত হন। সেই কাজ করতে করতেই তিনি বিভিন্ন মানুষের সঙ্গে কথা বলার ও আরও নানা ধরনের কাজ করার সুযোগ পান। তাঁরা সবাই মিলে আরএসএস-এ অফিস পরিষ্কার করতেন। চা ও খাবার বানাতেন। বাসন মাজতেন।

মোদি জানান, হিমালয়ে গিয়ে তার আগে যে শিক্ষা তিনি পেয়েছিলেন শত ব্যস্ততার মধ্যেই সেই শিক্ষাকে তিনি ভুলতে চাননি। তিনি জানান, ‘‘খুব বেশি মানুষ এটা জানেন না। দিওয়ালির সময়ে পাঁচ দিনের জন্য আমি বাইরে চলে যেতাম। কোনো জঙ্গলে যেতাম, যেখানে পরিষ্কার পানি রয়েছে এবং কোনো মানুষ নেই।’

সেই নির্জনতায় কাটানোর দিনগুলোতে তিনি কোনও সংবাদপত্র পড়তেন না কিংবা রেডিও শুনতেন না বলে জানান মোদি। বলেন, এই অবসর যাপন তাঁকে জীবন ও জীবনের বিচিত্র অভিজ্ঞতার সঙ্গে বুঝতে সাহায্য করত। তিনি বলেন, কেই যখন জানতে চাইত তিনি কোথায় যাচ্ছেন তিনি উত্তর দিতেন, ‘‘আমি আমার সঙ্গে দেখা করতে যাচ্ছি।’’

সকলকেই নিজেদের ব্যস্ত সময়ের ফাঁকে নিজের জন্য খানিক সময় বের করার কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। মোদি জানান, এতে জীবনের প্রতি তাঁদের দৃষ্টিভঙ্গি বদলে যাবে।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: