সর্বশেষ আপডেট : ৫ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২১ খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET
Fapperman.com DoEscorts

সুরের মূর্ছনায় মালয়েশিয়ার সেগী ক্যাম্পাসে বর্ষবরণ

প্রবাস ডেস্ক:: সুরের মূর্ছনায় মালয়েশিয়ার সেগী কলেজ ক্যাম্পাসে বাংলা নতুন বছর ১৪২৫ বরণ করেছে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা। ‘বিশ্বায়নের বাস্তবতায় শিকড়ের সন্ধান’ প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে বর্ষবরণের অনুষ্ঠান শুরু করেছে মালয়েশিয়ার কুটা দামান সারা সেগী কলেজের হসপিটালিটি অ্যান্ড ট্যুরিজম ম্যানেজমেন্টের বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা।

শুক্রবার বিকেলে ক্যাম্পাস শুরু হয় বর্ষবরণের আয়োজন দিয়ে। বাহারি রংয়ের পোশাকে শিক্ষার্থীরা সুর-ছন্দ আর তাল-লয়ে নতুন বছরকে বরণ করে নেয়। বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের এ আয়োজনে এবারের প্রতিপাদ্য ‘আনন্দ, আত্মপরিচয়ের সন্ধান ও মানবতা।

বর্ষবরণের এ আয়োজনে প্রবাসে দেশীয় সংস্কৃতি বিশ্বের দরবারে মানবতা, দেশপ্রেম ও উদ্দীপনামূলক কালজয়ী গান গেয়ে আবারও দেশের সম্মান কুড়াল কোমলমতি শিক্ষার্থীরা।

অনুষ্ঠানে গান, কবিতা আর বাদ্যযন্ত্রের মূর্ছনায় আগত বিভিন্ন দেশের শিক্ষার্থীরা বিমোহিত হয়ে যান। অনেকে শিল্পীদের সঙ্গে সুর মিলিয়ে অনুষ্ঠানস্থল মুখরিত করে তোলেন। তবে অনুষ্ঠানে এসো হে বৈশাখ এসো এসো। বাউল শাহ আব্দুল করিমের কালজয়ী গান আগে কি সুন্দর দিন কাটাইতাম… ইত্যাদি। আয়োজন করা হয় বৈশাখী খাবারের।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম কাউন্সেলর মো. সায়েদুল ইসলাম। এছাড়া সেগী কলেজের অপারেশন প্রধান ইদা চিনি, ডিপার্টমেন্ট অব হসপিটালিটি অ্যান্ড ট্যুরিজম বোনি লোপেজ, সাংবাদিক আহমাদুল কবির ও শাখাওয়াত হক জোসেফ, স্টুডেন্ট অর্গানাইজেশনের সভাপতি মো. শরিফুল হক।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মো. সায়েদুল ইসলাম বলে, জরা আর দুঃখ ভুলে যা কিছু পুরনো আর জীর্ণ- তাকে বাদ দিয়ে বাঙালি গাইছে নতুনের গান। প্রার্থনা একটাই- জাতি যেন পরাভূত করতে পারে সকল অশুভ শক্তি। চৈত্রের রুদ্র দিনের পরিসমাপ্তি শেষে বাংলার ঘরে ঘরে এবং প্রবাসে নতুন বছরকে আবাহন জানাতে আমরা সবাই মিলিত হয়েছি।

jagonews24

বাংলা নতুন বছর সবার মাঝে বয়ে আনুক সুখ সমৃদ্ধি। মালয়েশিয়ায় অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন সাফল্যের বিষয় উল্লেখ করে তাদেরকে ‘ব্র্যান্ডিং বাংলাদেশ’ গড়ার আহ্বান জানিয়েছেন দূতাবাসের শ্রম কাউন্সেলর সায়েদুল ইসলাম। তিনি বলেন, লেখা পড়ার পাশাপাশি বিশ্ব দরবারে আমাদের সাংস্কৃতি, কৃষ্টি-কালচার তুলে ধরার এ আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠান উপস্থাপনার দায়িত্বে ছিলেন মামুন, জারিন আঞ্জুম। নাচ-গান প্রাণবন্ত করে তুলেন লায়লা, মিরা, তন্দ্রা, আজমি, আদ্রি, জারিন, রায়হান, সাইফ, মাহিন, মামুন, রিয়াজ। অনুষ্ঠানের প্রকল্প উপদেষ্টার দায়িত্বে ছিলেন ক্লারিস কংগুট, প্রকল্প পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন- ব্রিস্টি খাতুন সাবা, সৈয়দ কুমারুল হোসেন, আবরার, জারিন আঞ্জুম, মিনহাজ প্রিও।

আকিব, অমি, জদান, তাহসিন, রায়হান, তাহা, নয়ন। অনুষ্ঠান শেষে আমন্ত্রিত অতিথি ও শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরস্কার প্রদান করেন আয়োজক শিক্ষার্থীরা।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: