সর্বশেষ আপডেট : ৩৫ মিনিট ৪ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

শ্রীমঙ্গলে স্কুল ছাত্র ফাইয়াজ হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে শিক্ষার্থীদের মিছিলে পুলিশের লাঠি চার্জ

6b6880d3-7086-4bde-bb7e-b91af988f7c0মৌলভীবাজার সংবাদদাতা:: মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে স্কুল ছাত্র ফাইয়াজ হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে সহপাঠী ও শিক্ষার্থীদের মিছিলে বাধা দিয়েছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরের গদারবাজার এলাকায় পুলিশের বাধার মুখে পড়ে শিক্ষার্থীরা । এসময় পুলিশ শিক্ষার্থীদের উপর লাঠিচার্জ করে তাদের কাছ থেকে দুটি ব্যানার কেড়ে নেয়।

এমনকি পুলিশের নিদের্শের সাথ সাথে স্থান ত্যাগ না করলে তাদেরকে আটকেরও হুমকি দেওয়া হয়। পুলিশের এ আচরণে সাধারণ ছাত্রদের মধ্যে কিছুসময়ের জন্য উত্তেজিত হয়ে পড়ে।

জানা যায়, মঙ্গলবার রাতে শহরের সুরভিপাড়া এলাকার ব্যবসায়ী শামীম আহমদ এর পুত্র ও শহরের সুনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দি বাডস্ রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল এন্ড কলেজের ছাত্র মো. ফাইয়াজ আহমদ আপন চাচার ছুরির আঘাতে নির্মম ভাবে খুন হয়। ওই রাতেই ফাইয়াজের খুনীর সাথে জড়িত জাকারিয়াকে পুলিশ আটক করেন।

সাধারণ ছাত্রছাত্রীদেও অভিযোগ,ঘাতক জাকারিয়ার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরে প্রেসক্লাবের সামন থেকে শতাধিক ছাত্রছাত্রীরা শহরে বিক্ষোভ মিছিল করে। খবর পেয়ে শ্রীমঙ্গল থানার ওসি মো. মাহবুবুর রহমান অন্যান্য অফিসারদের নিয়ে শহরের গদার বাজার এলাকায় তাদের মিছিলে বাধা দেন। সাধারণ ছাত্ররা তাদের শান্তিপুর্ন মিছিলে বাধা দিচ্ছেন কেন পুলিশের কাছে জানতে চাইলে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তাদের সাথে অশ্লিল ভাষায় কথাবলেন এবং এক মিনিটের সাথে স্থান ত্যাগ করার নির্দেশ দেন, অন্যাথায় পিঠের চামড়া তুলে নেওয়ার হুমকি দেন। তখন স্টাফিক সার্জন আবু দাউদসহ সঙ্গীয় পুলিশ সদস্যরা তাদের ব্যবহৃত ব্যানার জোরজবরদস্ত মুলক ভাবে ব্যানার কেড়ে নিয়ে যান। ফাইয়াজের সহপাঠি দি বাডস্ রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল এন্ড কলেজের ছাত্র তানজির হোসেন নিরব অভিযোগ করেন তার বন্ধুর হত্যাকারীর শান্তি দাবীতে মিছিলে অংশ নিয়েছিল। মিছিল থেকে স্টাফিক সার্জন্ট তাদেও ব্যানার কেড়ে নেয় এবং ওসি সাহেব বলেন এক মিনিট দাঁড়ালে তাদের আটক করার হুমকি দেন। তার আওে সহপাঠি শাওন পুলিশের সাথে কথা বললে ওসি সাহেব তার সহকারী পুলিশকে শাওনের ছবি তুলে রাখার নির্দেশ দেন। মিনহাজুল ইসলাম অভি পওে শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাব প্রাঙ্গণে এক সংক্ষিপ্ত বক্তব্য প্রতিবাদ সমাবেশ করে বলেন , তাদেও সহপাঠি ফাইয়াজ আহমদ এর হত্যাকারীর শান্তির দাবীতে তার স্কুল থেকে প্রেসক্লাব হয়ে শহরে একটি শান্তিপূর্ণ মিছিল বের করেন। মিছিলটি গদার বাজার এলাকায় ফেরার পথে শ্রীমঙ্গল থানার ওসি মো, মাহবুবুর রহমান পুলিশ নিয়ে তাদের মিছিলে বাধা দেন এবং তাদের সাথে অশ্লিল ভাষায় কথাবলেন এবং এক মিনিটের সাথে স্থান ত্যাগ করার নির্দেশ দেন, অন্যাথায় পিঠের চামরা তুলে নেওয়ার হুমকি দেন। একপর্যায়ে স্টাফিক সার্জন আবু দাউদসহ সঙ্গীয় পুলিশ সদস্যরা তাদের ব্যবহৃত ব্যানার জোরজবরদস্ত মুলক ভাবে ব্যানার কেড়ে নিয়ে যান।

এর আগে স্কুলের পক্ষ থেকে ফাইয়াজ আহমদ এর হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে শোক র‌্যালী স্কুল থেকে বের করে প্রেসক্লাব পর্যন্ত শেষ হয়। এতে স্কুলের শিক্ষকসহ ছাত্রছাত্রীরা উপস্থিত ছিলেন। এসময় বক্তব্য রাখেন স্কুলের অধ্যক্ষ মো, জাফর আহমদ, শিক্ষক জয়ন্ত ভট্টচার্য, কুমুদ রঞ্জন দেব, সুরজিৎ দেব বর্মা ও জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ। এছাড়াও শহরের অন্যান্য স্কুলও ফাইয়াজ আহমদের জন্য শোক প্রকাশ করা হয় এবং হত্যাকারীর শাস্তিরদাবী জানানো হয়।

ব্যানার কেড়ে নেয়া প্রসঙ্গে স্টাফিক সার্জন আবু দাউদ বলেন, যেহেতু স্কুল ছাত্র ফাইয়াজ আহমদ এর হত্যাকান্ডে জড়িত জাকারিয়াকে আটক করা হয়েছে, সেখানে কিছু লোক ব্যক্তি স্বার্থে ফায়দা হাসিলের জন্য এ মিছিল বের করে। এতে তারা বাধা দিয়ে ব্যানার কেড়ে নিয়েছেন।
শ্রীমঙ্গল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান জানান, হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত জাকারিয়াকে আটক করা হয়েছে এবং তাকে রিমান্ডে আনা হবে। ওই অবস্থায় স্কুলের ছাত্র শিক্ষকরা অরাজকতা সৃষ্টি করবে, রাস্তার গাড়ী বন্ধ করে দিবে এবং দোকানে হাত দিবে ;শহরের আইন শৃঙ্খলার অবণতি ঘটাবে তা তো করতে দেওয়া যাবে না। তাই আইন তার নিজেস্ব গতি চলবে। আর যেসব শিক্ষক এমিছিলে অংশ নিয়েছে তাদের তালিকা তৈরী করে উপরে পাঠানো হচ্ছে বলেও তিনি জানান।

দি বাডস রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল এন্ড কলেজের সিনিয়র শিক্ষক ও উপজেলা মুক্তি যোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের কমান্ডার কুমুদ রঞ্জন দেব পুলিশের এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, হত্যাকারীদের ফাঁসি চাই বলে স্লোগান দেওয়াটাই হলো ছাত্রদের অপরাধ। ছাত্র-শিক্ষকরা অরাজকতার অভিযোগ মিথ্যা। দোকানপাঠে হামলা চালানোর বিষয়টি তো ঢাহা মিথ্যা। সাধারণ ছাত্রছাত্রীরা শান্তিপূর্ণ মিছিলে পুলিশ আগবাড়িয়ে বাধা দিয়েছে। পুলিশ ছাত্রদের হুমকী ধামকি ও কয়েকজন ছাত্রকে লাঠিচার্জ করেছে। পুলিশ ভয় দেখিয়ে ছাত্রদের ছবি তুলে অতিরঞ্জিত করেছে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: