সর্বশেষ আপডেট : ১২ মিনিট ২৯ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

নিজামী: আটক থেকে ফাঁসি

full_646362456_1462889827নিউজ ডেস্ক::
বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের জন্য ২০১০ সালের ২৫শে মার্চ ট্রাইব্যুনাল গঠন করা হয়। এই ট্রাইব্যুনাল গঠনের ফলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দ্বার উন্মুক্ত হয়।

প্রথমে জামায়াতের আমির মতিউর রহমান নিজামী, নায়েবে আমির দেলাওয়ার হোসেন সাঈদী, সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মুজাহিদকে বিচারের আওতায় নিয়ে আসা হয়। ২০১০ সালের ২৯ জুন ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের একটি মামলায় মতিউর রহমান নিজামীকে গ্রেপ্তার করার পর একই বছরের ২ অগাস্ট তাকে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

ট্রাইব্যুনালের মুখোমুখি : ২০১২ সালের ২৮ মে অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে জামায়াত আমিরের যুদ্ধাপরাধের বিচার শুরু হয়।

তদন্ত কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক খানসহ প্রসিকিউশনের পক্ষে মোট ২৬ জন এ মামলায় সাক্ষ্য দেন। নিজামীর পক্ষে সাফাই সাক্ষ্য দেন তার ছেলে মো. নাজিবুর রহমানসহ মোট চারজন।

বিচার শেষে ২০১৪ সালের ২৯ অক্টোবর ট্রাইব্যুনাল যে রায় দেয় তাতে প্রসিকিউশনের আনা ১৬ অভিযোগের মধ্যে আটটি সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়। এই আট অভিযোগের মধ্যে ২, ৪, ৬ ও ১৬ নম্বর ঘটনায় নিজামীর ফাঁসির রায় হয়।

ট্রাইব্যুনালে যে ৪ অভিযোগে মৃত্যুদণ্ড : ১৬ টি অভিযোগের মধ্যে ২, ৪, ৬ ও ১৬ নম্বর অভিযোগে নিজামীকে মৃত্যুদণ্ড দেন ট্রাইব্যুনাল। ১, ৩, ৭ ও ৮ নম্বর অভিযোগে তাকে যাব্বজীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। বাকি ৮ অভিযোগ থেকে জামায়াত প্রধানকে খালাস দেওয়া হয়।

অভিযোগ-২ এই অভিযোগে বলা হয়েছে, একাত্তরের ২২ আগস্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক একাডেমি হলে আল-মাদানি স্মরণসভায় স্বাধীনতাকামীদের নিশ্চিহ্ন করতে নেতা-কর্মীদের উদ্বুদ্ধ করেন নিজামী।

অভিযোগ-৪: একই বছরের ৯ ও ১০ সেপ্টেম্বর যশোর বিডি হলে ছাত্রসংঘের মিটিংয়ে জিহাদের সমর্থনে বক্তব্য দেন নিজামী। তিনি ওই মিটিংয়ে নিরীহ বাঙালি হত্যার নির্দেশ দেন।

অভিযোগ-৬ : নিজামীর নির্দেশে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় একই বছরের ৮ মে পাবনার সাঁথিয়া থানার করমজা গ্রামের লোক জড়ো করে নির্বিচারে অসংখ্য লোককে হত্যা করা হয়। ধর্ষণ করা হয় নারীদের।

অভিযোগ-১৬ : সারা দেশে ছাত্রসংঘ ও আলবদর বাহিনীর সদস্যরা পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সহযোগী হিসেবে হত্যা, ধর্ষণ, অগ্নিসংযোগসহ মানবতাবিরোধী যে অপরাধ করেছে তার দায় নিজামীর। কারণ ছাত্রসংঘের সভাপতি ও আলবদর বাহিনীর প্রধান হিসেবে ওই সব কর্মকাণ্ডের পরিকল্পনাকারী ও উসকানিদাতা ছিলেন তিনি।

আপিলে নিজামী: ট্রাইব্যুনালে মৃত্যুদণ্ডের রায়ের বিরুদ্ধে ২০১৪ সালের ২৩ নভেম্বর সর্বোচ্চ আদালতে আপিল করেন নিজামী। নিজামীর করা আপিলে ১৬৮টি যুক্তি তুলে ধরে সাজার আদেশ বাতিল করে খালাস চাওয়া হয়। সর্বোচ্চ শাস্তি হওয়ায় রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেনি রাষ্ট্রপক্ষ। এই আপিলের ওপর ২০১৫ সালের ৯ সেপ্টেম্বর শুনানি শুরু হয়ে চলে ৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত। দ্বাদশ দিনে শুনানি নিয়ে ৮ ডিসেম্বর আদালত রায়ের দিন ঠিক করে দেন।

২০১৬ সালের ৬ জানুয়ারি আপিল বিভাগেও ফাঁসির রায় বহাল থাকে। আপিলের রায়ে বলা হয় ‘আপিল আংশিক মঞ্জুর করা হল। আপিলকারী মতিউর রহমান নিজামীকে অভিযোগ নম্বর ১, ৩ ও ৪ থেকে খালাস দেওয়া হলো। আর অভিযোগ নম্বর ২, ৬, ৭, ৮ ও ১৬ এর ক্ষেত্রে দোষী সাব্যস্ত করে দণ্ড বহাল রাখা হল।’

নিজামীর রিভিউ খারিজ ও মৃত্যুদণ্ড কার্যকর: আপিলের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের পর গত ২৯ মার্চ ফাঁসির দণ্ড থেকে খালাস চেয়ে রিভিউ আবেদন দাখিল করেন নিজামী। ৭০ পৃষ্টার রিভিউ আবেদনে ফাঁসির দণ্ড থেকে খালাস চেয়ে ৪৬ টি যুক্তি দেখানো হয়।

গত ৫ মে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে চার বিচারপতির আপিল বেঞ্চ নিজামীর রিভিউ আবেদন খারিজ করে ফাঁসির দণ্ড বহাল রেখে আদেশ দেন।

গত ৯ মে নিজামীর রিভিউ আবেদন খারিজের ২২ পৃষ্টার পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করেন আপিল বিভাগ। ওই দিনই রায়ের কপি বিচারিক আদালত ট্রাইব্যুনাল হয়ে কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়। ৯ মে রাতেই নিজামীকে রিভিউ খারিজের রায়ের কপি পড়ে শোনানো হয়।

এরপর জেল কর্তৃপক্ষ নিজামীর কাছে জানতে চান তিনি রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা চাইবেন কী না? নিজামী ক্ষমা চাইতে অস্বীকৃতি জানালে ফাঁসি কার্যকরের উদ্যোগ নেয় কারা কর্তৃপক্ষ।

অবশেষে মঙ্গলবার রাতে মতিউর রহমান নিজামীর ফাঁসি কার্যকর করা হয়।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: