সর্বশেষ আপডেট : ২৯ মিনিট ৪৪ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

তনুর দ্বিতীয় ময়নাতদন্ত নিয়ে মুখ খুলতে ভয়

tonu-deadনিউজ ডেস্ক:
কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ ছাত্রী ও নাট্যকর্মী সোহাগী জাহান তনুর দ্বিতীয় ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন নিয়ে মুখ খুলতে ভয় পাচ্ছেন কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের কর্মকর্তারা। সাক্ষাতকারে কথা বলতে অনহীয়া প্রকাশ করতে দেখা যায় তনু দ্বিতীয় ময়নাতদন্তের তিন সদস্য কমিটির সবার।
সোহাগী জাহান তনু হত্যার প্রথম ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনে ধর্ষণ ও হত্যার সঠিক রিপোর্ট দিতে না পারায় দেশের সর্বস্তরের জনগনের মাঝে সমালোচনার ঝড় উঠে। এতে করে দ্বিতীয় প্রতিবেদনটির ব্যাপারে মুখ খুলতে ভয় পাচ্ছেন ফরেনসিক বিভাগে প্রধানসহ তিন সদস্যের গঠিত বোর্ডের সবাই।

এদিকে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ ছাত্রী ও নাট্যকর্মী সোহাগী জাহান তনুর হত্যাকারীদের শনাক্তে সিআইডি‘র দিকে তাকিয়ে আছে তার পরিবার। তনুর মৃত্যুর ৫০দিনেও হত্যাকারী শনাক্ত হয়নি। এদিকে ২য় ময়নাতদন্তের রিপোর্ট ৩৯দিনেও পাওয়া যায়নি। মামলাটি আড়ালে ফেলে দেয়ার জন্য ময়নাতদন্তের রিপোর্ট দিতে দেরি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিশিষ্টজনরা।

সূত্রমতে,শনিবারও দিনভর সিআইডি কুমিল্লা কার্যালয়ে ঘোরাঘুরি করেছেন তনুর বাবা ইয়ার হোসেন ও মা আনোয়ারা বেগম। তারা মেয়ে হত্যা মামলার অগ্রগতি জানতে এসেছিলেন। তারা অফিসে এসে কোনো আশার বাণী নিয়ে বাসায় ফিরতে পারেননি। তনুর বাবা ইয়ার হোসেন বলেছেন,মেয়েকে হারিয়েছি। মেয়ে হত্যার বিচার দেখে যেতে পারলে মনে শান্তি পেতাম। সিআইডি অফিসে গিয়েছি মামলার খবর নিতে। সেখানে জানানো হয়েছে,তারা কাজ করছেন। আরো সময় লাগবে।
আমি আল্লাহর নিকট বিচার দিয়ে রেখেছি,আল্লাহ বিচার করবেন।সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) কুমিল্লার জয়েন্ট সেক্রেটারি মাইমুনা আক্তার রুবী বলেন,ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন দিতে দেরি করা হচ্ছে,যেনো তনু হত্যা অন্য একটি ঘটনার নিচে চাপা পড়ে যায়। তনু হত্যার বিচারে মানুষ আন্দোলন করেছে,তনু হত্যার বিচার না হলে বাংলাদেশের মানুষের নৈতিক পরাজয় হবে।

সচেতন নাগরিক কমিটি(সনাক)কুমিল্লার সভাপতি আলী আকবর মাসুম বলেন,প্রথম থেকেই তনু হত্যা মামলা নিয়ে দায়িত্বশীল সংস্থা গুলো আন্তরিক নন। তা না হলে দুইবার ময়নাতদন্ত করতে হয় না। ২য় ময়না তদন্তের প্রতিবেদনে এতো দিন সময় লাগতো না। সাগর-রুনির মামলার মতো এটিও অনিশ্চয়তার পথে হাঁটছে।
দ্বিতীয় ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন দিতে দেরি কেন এমন প্রশ্নের জবাবে ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. কামদা প্রসাদ সাহা (কেপি সাহা) বলেন- ডিএনএ রিপোর্ট ও প্রকৃয়াগত কারণে তনুর দ্বিতীয় ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনটি দিতে দেরি হচ্ছে। দেশের সব মহলে প্রথম প্রতিবেদনটির ফল নিয়ে সমালোচনা উঠাতে উপরের হুকুম ছাড়া আমি কিছু বলতে পারবো না।

কবে নাগাদ প্রতিবেদনটি হতে পারে এমন প্রশ্নে তিনি আরো বলেন- ডিএনএ রিপোর্ট হাতে পেলে দ্বিতীয় ময়নাতদন্তের তিন সদস্যের বোর্ড আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হবে।

এছাড়া কবে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হবে তাহা নিশ্চিত বলতে পারছি না।
সিআইডি‘র কুমিল্লা ও নোয়াখালী অঞ্চলের বিশেষ পুলিশ সুপার ড.নাজমুল করিম খান বলেন,ময়নাতদন্তের বিষয়ে তদন্ত সহায়ক দলের প্রধান ভালো বলতে পারবেন। মামলার অগ্রগতির বিষয়ে তিনি বলেন,আমরা থেমে নেই। আমরা কাজ করে যাচ্ছি, আশা করছি ইতিবাচক ফলাফল জানাতে পারবো।
২১ মার্চ দুপুরে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রথম ময়নাতদন্তে তনুকে ধর্ষণের আলামত ও হত্যার সুনির্দিষ্ট কারণ পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছিলেন চিকিৎসকরা। এতে আবার নয়দিন পর দ্বিতীয় ময়নাতদন্তের জন্য ৩০ মার্চ তনুর লাশ কবর থেকে তোলা হয়। ওই ময়নাতদন্তের জন্য নতুন করে তিন সদস্যের বোর্ড গঠন করা হয়। এতে ছিলেন ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. কামদা প্রসাদ সাহা (কেপি সাহা), ময়নাতদন্তকারী ডাক্তার করুণা রাণী কর্মকার, লেকচেরার ওমর ফারুক।

উল্লেখ্য, গত ২০ মার্চ রাত সাড়ে ১০টায় কুমিল্লা ময়নামতি সেনানিবাসে বাসার পাশে কালবাটের ধারে তনুর মরদেহ উদ্ধার করে তার বাবা ইয়ার হোসেন। ২১ মার্চ তনুর বাবা বাদী হয়ে কুমিল্লা কোতোয়ালি মডেল থানায় অজ্ঞাত কয়েকজন ব্যক্তির নামে একটি মামলা দায়ের করেন। ওই দিন দুপুরে তনুর মরাদেহ কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রথম ময়নাতদন্ত হয়। তনুর বাবার করা মামলা পুলিশ, ডিবি হাত পরিবর্তন হয়ে সিআইডির হাতে আসে। এমনকি এই মামলা তদন্তের ব্যাপারে থেমে ছিলেন না র‌্যাব-১১ ও পিবিআই। এই মামলা ৫০দিন ধরে তদন্ত করলেও সিআইডিসহ প্রশাসনের কোন বিভাগ কোন ক্লু উদ্ধার করতে পারেনি।বিডি২৪লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: