সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বড়লেখায় ২ মাস ধরে জলমগ্ন রাস্তা : ৫ হাজার মানুষের চরম দুর্ভোগ

Barlekha-Water-b-ondho-768x576বড়লেখা প্রতিনিধি::
মৌলভীবাজারের বড়লেখায় একটি পরিবার কর্তৃক পানি নিষ্কাশনের ড্রেন ও কালভার্টের মুখ বন্ধ করে দেয়ায় ২ মাস ধরে জনসাধারণের চলাচলের একটি সরকারি রাস্তা বৃষ্টির পানিতে নিমজ্জিত রয়েছে। এতে এলাকার শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন স্তরের অন্তত ৫ হাজার মানুষ চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। রাস্তার জলাবদ্ধতা নিরসনে এলাকাবাসী গত ০৪ মে ইউএনও বরাবরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার দাসেরবাজার-লঘাটি এলজিইডি রাস্তাটি দাসেরবাজার ইউনিয়নের মহারাণী, টুকা, গুলুয়া, মালিপাড়া ও লঘাটি গ্রামের প্রায় ৫ হাজার মানুষের চলাচলের একমাত্র মাধ্যম। এ রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন অন্তত দেড় হাজার শিক্ষার্থী মসজিদ, মাদ্রাসা, স্কুল ও কলেজে যাতায়াত করে।

এছাড়া পার্শ্ববর্তী ফকিরবাজার, হাকালুকি ও বিয়ানীবাজার এলাকার লোকজনও এ রাস্তা দিয়ে চলাচল করেন। উক্ত রাস্তার পানি নিষ্কাশনের জন্য লঘাটি গ্রামের দৌলা মিয়ার বাড়ি সংলগ্ন একটি ড্রেন ও কালভার্ট ছিলো। প্রায় তিন মাস আগে দৌলা মিয়ার পরিবারের লোকজন ড্রেন ও কালভার্টটির মুখ বন্ধ করে দেয়ায় গত ২ মাস ধরে রাস্তাটির প্রায় ২০০ ফুট এলাকা বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে যায়।

এতে এলাকার লোকজন চরম দুর্ভোগে পতিত হন। স্থানীয়ভাবে কয়েক দফা পানি নিষ্কাশনের পথ খোলে দেয়ার চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হলে ভুক্তভোগীরা ইউএনও বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেন।

সরেজমিনে গেলে ইউপি চেয়ারম্যান মাহতাব উদ্দিন, প্রাক্তন ইউপি সদস্য আজিজুর রহমান, বর্তমান ইউপি সদস্য মনির উদ্দিন, আতিকুর রহমান, সোয়েব আহমদ চৌধুরী, নুরুল হক রুনু, রিপন আহমদ, পাপ্পু আহমদ, জাবেল আহমদ প্রমুখ জানান, এক পরিবারের স্বেচ্ছাচারিতায় হাজার হাজার মানুষকে গত ২ মাস ধরে পানিবন্দী থাকতে হচ্ছে। শিক্ষার্থীরা মসজিদ, মাদ্রাসা ও স্কুল-কলেজে যাতায়াত বন্ধ করে দিয়েছে।

এলাকার বাসিন্দা স্বাস্থ্য সহকারী ফাতেমা খানম জানান, এক মাস অন্তর গ্রামের আয়াজ আলীর বাড়িতে ১৮ মাস বয়স পর্যন্ত শিশু ও ১৫-৪৯ বছর পর্যন্ত মহিলাদের টিকাদান কর্মসুচি অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু গ্রামের একমাত্র রাস্তাটি পানিতে ডুবে থাকায় গত ০৭ মে টিকাদানের নির্ধারিত দিনে শিশু ও মহিলাদের উপস্থিতি অনেক কম হয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) এসএম আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, জনগণের দুর্ভোগ সৃষ্টির অধিকার কারও নেই। বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য উপজেলা প্রকৌশলীকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: