সর্বশেষ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

চট্টগ্রামে অস্ত্রসহ ছাত্রলীগ নেতা গ্রেপ্তার

13135_b4নিউজ ডেস্ক::
চট্টগ্রামে ব্যালট পেপার ছিনতাই করতে গিয়ে অস্ত্রসহ ধরা পড়েছে মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি। গতকাল সকালে হাটহাজারীর মির্জাপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন চলাকালে একটি কেন্দ্রে ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে ওই নেতা। এ সময় বিজিবির সদস্যরা তাকে হাতেনাতে আটক করে।

এ ব্যাপারে চট্টগ্রামের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, তাকে আটক করা হয়েছে। একটি পিস্তল ও ১৫টি গুলিও পাওয়া গেছে তার কোমরে। এর আগে সেখানে রনি ও তার সহযোগীরা গণ্ডগোল করার চেষ্টা করে।

হাটহাজারী থানা পুলিশ জানায়, আটকের পরপরই রনিকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে অস্ত্র আইনে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানান থানার ওসি ইসমাঈল। রনিকে আটকের খবরে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা হাটহাজারী থানায় এসে তাকে ছাড়িয়ে নেয়ার চেষ্টা করেন। এ নিয়ে কয়েক দফা পুলিশের সঙ্গে তাদের বাকবিতণ্ডা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হাটহাজারীর মির্জাপুর উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রে গতকাল সকাল সাড়ে ১১টায় হঠাৎ ১৫/২০ জন সঙ্গী নিয়ে হাজির হয় রনি। এরপর একে একে ব্যালট বাক্স নিয়ন্ত্রণে নেয়ার চেষ্টা করলে সেখানে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের সদস্যরা হাজির হন।

তারা প্রথমে ধাওয়া দিলে ভোট দিতে আসা অনেক লোকজনও চলে যায়। এই সুযোগে রনি কেন্দ্রের ভেতরে ঢুকতে চাইলে তাকে ধরে ফেলে তারা। তারপর শরীর তল্লাশি করে পিস্তল ও গুলি পাওয়া যায়। এই কেন্দ্রে ভোটার ২ হাজার ৬৭৭ জন। বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত ভোট পড়ে অন্তত ৯০০।
ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ভোটার শরীফুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘ লাইনে তাকিয়ে দেখি হঠাৎ সবাই ছুটোছুটি করছে। এরপর পেছন ফিরে তাকাতেই তিন নম্বর বুথে ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে কয়েক যুবক। সেখান থেকে একজনকে পিস্তলসহ আটক করা হয়।

স্থানীয়রা জানান, মির্জাপুর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছেন নুরুল আবছার যিনি রনির মামা। আটকের সময় রনির কাছ থেকে ২৬ হাজার টাকাও উদ্ধার করা হয়েছে। সঙ্গে একটি ভোটের সিলও পেয়েছে পুলিশ।

ওদিকে ভোট শুরুর আগেই ভোটাররা গিয়ে দেখেন তাদের ভোট দেয়া হয়ে গেছে। কেবল তাই নয়, একাধিক কেন্দ্রে গুলি ফুটিয়ে ও মারধর করে সাধারণ ভোটারদের চলে যেতে বাধ্য করা হয়। এরপর দরজা লাগিয়ে ভেতরে চলে জাল ভোটের মহোৎসব।

কোনো কোনো জায়গায় এক ঘণ্টার মধ্যেই শেষ হয়ে যায় ৫০ শতাংশ ভোট। আবার অনেক জায়গায় প্রশাসনের সহযোগিতায় ভেতরে দেখা গেছে ইচ্ছামতো সিল মারতে। ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী ও বিদ্রোহীদের মধ্যে মারামারির কারণে অনেক জায়গায় ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়। কেন্দ্রে কেন্দ্রে পিস্তল ও বন্দুক নিয়ে মহড়া দিতে দেখা গেছে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কর্মীদের।

দুপুর সাড়ে ১২টায় হাটহাজারীর ৭নং ওয়ার্ডের পশ্চিম এনায়েতপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায় সেখানে জাল ভোট দিচ্ছে স্থানীয় এক মেম্বার প্রার্থীর লোকজন। প্রিজাইডিং অফিসার আলী সিদ্দিকী বলেন, আমার এখান থেকে কে বা কারা ৫০০ ব্যালট নিয়ে গেছে। তাদের হাতে পিস্তল ছিল। এভাবে ভোট চলে না।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সরকারদলীয় প্রার্থী আলমগীর জামানের চাচাতো ভাই ওসমানের নেতৃত্বে সেখানে ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের নেতৃত্ব দেয়া হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ গুলি ছুড়লেও যাওয়ার আগে তারা পুলিশকে ভয় দেখাতে আকাশে গুলি ছোড়ে।

একই রকম চিত্র দেখা গেছে হাটহাজারীর ২নং ওয়ার্ডের সোনাই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রেও। সেখানে সকাল সাড়ে ৮টায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ প্রার্থীর লোকজনেরা কেন্দ্র দখল করে। এরপর জয়বাংলা স্লোগান দিয়ে জাল ভোট দেয়। পরে ব্যালট পেপার ছিনতাই করার চেষ্টা করলে ভোটগ্রহণ বন্ধ হয়ে যায়।
এই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার মো. হুমায়ুন কবির বলেন, দুই মেম্বারের লোকজন ব্যালট নিয়ে মারামারিতে জড়িয়ে পড়েছে। ভোটগ্রহণ আপাতত বন্ধ রয়েছে। তবে আশা করছি আবার চালু হবে। এই কথার এক ঘণ্টার মধ্যে সেখানে কোনো ভোটারকে দেখা যায়নি। পরে জানা যায়, প্রশাসনের কিছু কর্মকর্তার সহযোগিতায় ভেতরে ৬০ ভাগ ভোট এক ঘণ্টার মধ্যে দেয়া হয়েছে।

পার্শ্ববর্তী হেদাই চৌধুরী ফোরকানিয়া মাদরাসা কেন্দ্রে সরকার প্রার্থী ও বিএনপি সমর্থিত এক প্রার্থীর লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষের কারণে বন্ধ রাখা হয় ভোট। এই কেন্দ্রে সকাল ৯টা থেকে ১২টার মধ্যে প্রচুর জাল ভোট পড়ে। এই ইউনিয়নের বিএনপি প্রার্থী জসিমউদ্দিন জিকু বলেন, নৌকার লোকরা এখানে জাল ভোট দিচ্ছে। আমার লোকজন বাধা দিতে গিয়ে মারধরের শিকার হয়েছে। প্রশাসনকে জানানোর পরও তারা কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: