সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ২ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বিশ্বনাথে লড়াই হবে ত্রিমুখী : ৫৬ কেন্দ্র ঝুকিপূর্ণ

UP-election20160426153645বিশ্বনাথ প্রতিনিধি:
রাত পোহালেই সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার ৬টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সব ঠিক থাকলে নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থীদের মধ্যে চারটিতে লড়াই হবে ত্রিমূখী এবং দু’টিতে চতুর্থমূখী। একাধিক ইউনিয়নে আ.লীগ-বিদ্রোহী প্রার্থী থাকায় অনেকা জয়ী হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে বিএনপির। তবে স্বতন্ত্র দ্ইু-একজন প্রার্থী চমক দেখাতে পারেন এমটাই মনে করছেন এলাকাবাসী। ভোটরদের মন জয় করতে শেষ মূহুর্তের প্রচারণায় ব্যস্ত প্রার্থী-সমর্থকরা। বিজয় মালা ছিনিয়ে নিতে চেষ্টার কমতি ছিলনা প্রার্থীদের।

বৃহস্পতিবার রাত ১২টা থেকে শেষ হয়েছে প্রচার-প্রচারণা। পবিত্র এই আমানত প্রদান করতে প্রার্থীদের যোগ্যতা ও ব্যক্তিত্ব নিয়ে হিসেব কষছেন সচেতন ভোটাররা। নির্বাচন শান্তিপুর্ণ ও নির্বিঘœ করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ছয় স্তরের নিরাপত্তা বলয় তৈরির করা হয়েছে। ভোট গ্রহণের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। তবুও সাধারণ মানুষদের মনে শংকা দেখা দিয়েছে সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে। যদিও নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা ছিল শান্তিপূর্ণ। নির্বাচনকে সামনে রেখে সুবিধাভোগীরা নানা কৌশলে কতিপয় প্রার্থীদের কাছ থেকে টাকা আদায় করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। অভিযোগ রয়েছে ইতোমধ্যে বিভিন্ন ইউনিয়নে একাধিক প্রার্থী নির্বাচনী ব্যয় সীমা লংঘন করেছেন। শেষ মুহুর্তে পরাজয় ঠেকাতে টাকা বিলিয়ে ভোট আদায়ের অপচেষ্ঠা করছেন। প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৬টি ইউনিয়নের ৬৫টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ৫৬টি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। এর মধ্যে ২৮টি কেন্দ্রকে অধিক ঝুঁকিপুর্ণ হিসেবে তালিকায় প্রকাশ করা হয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলার ৬ইউনিয়নে আ.লীগ-বিএনপি, জাতীয় পার্টি, আ.লীগ-বিএনপি’র বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্রসহ ২৭জন চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করেছেন।
১নং লামাকাজি ইউনিয়নে আ.লীগ-বিএনপি, জাতীয় পার্টি ও জামায়াত সমর্থিতসহ চারজন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। কবির হোসেন ধলা মিয়া (ধানের শীষ), ডা: শানুর হোসাইন (নৌকা), এ.কে.এম দুলাল (লাঙ্গল)’র মধ্যে ত্রি-মুখী লড়াইয়ের আবাস পাওয়া গেছে। লামাকাজীতে ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রের তালিকায় রয়েছে-সিরাজপুর জুনিয়র মাদ্রাসা, মুন্সিরগাঁও, ভুরকি, হাজরাই আতাপুর, আকিলপুর, মির্জারগাঁও, দিঘলী, লামাকাজি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও পঞ্চগ্রাম রেজি: প্রাথমিক বিদ্যালয়।

২নং খাজাঞ্চী ইউনিয়নে আ’লীগ-বিএনপি, জাতীয় পার্টি আ’লীগের বিদ্রোহী ও জামায়াত সমর্থিত পাঁচজন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। নিজাম উদ্দিন সিদ্দিকী (চশমা), শংকর চন্দ্র ধর (নৌকা) ও গিয়াস উদ্দিন (ধানের শীষ)’র মধ্যে মূল প্রতিদ্বন্ধিতার আবাস পাওয়া গেছে। খাজাঞ্চীতে ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রের তালিকায় রয়েছে-কান্দিগ্রাম, বাওনপুর, ছৈইফাগঞ্জ, চারিগ্রাম, চন্দ্রগ্রাম, জয়নগর, ফুলচন্ডি, বন্ধুয়া, তালিবপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, এলাহাবাদ ইসলামিয়া আলীম মাদ্রাসা, আলহাজ্ব লজ্জাতুন নেছা উচ্চ বিদ্যালয় ও নোয়াগাঁও কমিউনিটি প্রাথমিক বিদ্যালয়। ৩নং অলংকারী ইউনিয়নে আ’লীগ-বিএনপি, জাতীয় পার্টি ও বিএনপি’র বিদ্রোহীসহ চারজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী নাজমুল ইসলাম রুহেল (চশমা), রফিক মিয়া (নৌকা) ও এম.এ হক (ধানের শীষ)’র মধ্যে ত্রি-মূখী লড়াইয়ের আবাস পাওয়া গেছে।

অলংকারি ইউনিয়নে ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রের তালিকায় রয়েছে-বড়খুরমা, অলংকারী, রামধানা, শিমুলতলা, রামপুর, ছোট খুরমা, হাজী আব্দুল হামিদ, ঘুরন, টেংরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও হাজী ইয়াছিন উল্লা উচ্চ বিদ্যালয়। ৪নং রামপাশা ইউনিয়নে আ’লীগ ও বিএনপি উভয় দলের বিদ্রোহীসহ চারজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আজিজুর রহমান (আনারস), বিএনপি বিদ্রোহী বশির আহমেদ (চশমা), আলমগীর হোসেন (নৌকা), জয়নাল আবেদীন (ধানের শীষ)’র মধ্যে চতুর্থমূখী লড়াইয়ের আবাস পাওয়া গেছে।

রামপাশা ইউনিয়নে ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রের তালিকায় রয়েছে-আমতৈল (পূর্ব), আমতৈল (পশ্চিম), গড়গাঁও, পুরানগাঁও, একলিমিয়িা, নওধার, দোহাল, রামপাশা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও আল-আজম উচ্চ বিদ্যালয়।

৫নং দৌলতপুর ইউনিয়নে আ’লীগ-বিএনপি, জাতীয় পার্টি আ’লীগের বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্রসহ পাঁচজন প্রাথী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আছাব উদ্দিন (আনারস), আমির আলী (নৌকা), আরব খাঁন (ধানের শীষ)’র মধ্যে ত্রি-মূখী লড়াইয়ের সম্ভাবনা রয়েছে। দৌলতপুর ইউনিয়নে ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রের তালিকায় রয়েছে- সিংরাউলি, সিঙ্গেরকাছ-১, মৌলভীগাঁও, হাবড়া, ধনপুর, দুর্যাকাপন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, সিঙ্গেরকাছ পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয় ও দশপাইকা দাখিল মাদ্রাসা।
৬নং বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়নে আ’লীগ-বিএনপি, আ’লীগ বিদ্রোহী, স্বতন্ত্রসহ চারজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। আ’লীগ বিদ্রোহী ছয়ফুল হক (আনারস), জালাল উদ্দিন (ধানের শীষ), আব্দুল জলিল জালাল (নৌকা), আব্দুল মতিন (চশমা)’র মধ্যে চতুর্থমুখী লড়াইয়ের আবাস পাওয়া গেলেও বৃহস্পতিবার রাত পর্যন্ত আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ছয়ফুল হক ও ধানের শীষের জালাল এগিয়ে রয়েছেন বলে জানা গেছে।

বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়নে ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রের তালিকায় রয়েছে-শাহজিরগাঁও, ভোগশাইল, জানাইয়া, জনমঙ্গল, ধর্মদা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, রামসুন্দর উচ্চ বিদ্যালয়, সরুয়ালা দক্ষিণ বিশ্বনাথ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, হাজী মফিজ আলী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়।

উপজেলা নির্বাচন অফিসার আজিজার রহমান বসুনীয়া বলেন- শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণের জন্য আমাদের পক্ষ থেকে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।
থানার ওসি আবদুল হাই বলেন, উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে নির্বাচনে ছয় স্তরের নিরাপত্তা বলয় তৈরি করা হয়েছে। কেউ কোনো বিশৃংঙ্খলা করার চেষ্টা করলে তার বিরুদ্ধে তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: