সর্বশেষ আপডেট : ৫ মিনিট ২৬ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জেএমবির সেই সালামকে আ.লীগ থেকে অব্যাহতি

141597_1নিউজ ডেস্ক:
রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার গোয়ালকান্দি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে দলের চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) সদস্য আব্দুস সালামকে দেয়া মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নিয়েছে আওয়ামী লীগ। একইসঙ্গে দলের প্রাথমিক সদস্যপদ থেকেও তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত একটি চিঠি মঙ্গলবার রাতে ওই ইউপি নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তা বাগমারা উপজেলা রিসোর্স সেন্টারের প্রশিক্ষক তৌহিদুল ইসলামের কাছে পাঠানো হয়।

দৈনিক জাতীয় পত্রিকায় এ সংক্রান্ত মঙ্গলবার একটি সচিত্র সংবাদ প্রকাশিত হয়। এতে দেশজুড়ে শুরু হয় তোলপাড়।

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনারও নজরে আসে বিষয়টি। সন্ধ্যার পর পরই তিনি এক ফ্যাক্স বার্তায় আব্দুস সালামের মনোনয়ন প্রত্যাহার ও আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্যপদ থেকে অব্যাহতির বিষয়টি নির্বাচন কমিশনকে জানিয়ে দেন।

গোয়ালকান্দি ও শ্রীপুর ইউপি নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তা তৌহিদুল ইসলাম এ বিষয়ে বলেন, ‘বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা স্বাক্ষরিত একটি ফ্যাক্স বার্তা পেয়েছি। এতে বলা হয়েছে, রাষ্ট্রবিরোধী ও সন্ত্রাসী কার্যকলাপে জড়িত থাকায় আব্দুস সালামকে আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্যপদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। একইসঙ্গে তার দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে।’

রিটার্নিং কর্মকর্তা তৌহিদুল আরো বলেন, ‘তার (সালাম) মনোনয়ন বাতিলের চিঠি পাওয়ার পর বিষয়টি নির্বাচন কমিশনকে জানানো হয়েছে। নির্বাচন কমিশন আইনের আলোকে মতামত দেবে।’

তালিকাভুক্ত শীর্ষ জেএমবি সদস্যকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেয়ার বিষয়ে মঙ্গলবার সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ও বিভিন্ন টেলিভিশনের টক শোতে ব্যাপক সমালোচনা হয়।

বুধবার দুপুরে আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ বলেন, ‘আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আব্দুস সালামের দলীয় মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে। আগামী ৭ মে নির্বাচন হওয়ায় ওই ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের কোনো দলীয় প্রার্থী থাকছে না। আব্দুস সালামের দলীয় মনোনয়ন বাতিলের সিদ্ধান্ত ইতোমধ্যেই নির্বাচন কমিশনকে জানানো হয়েছে।’

রাজশাহী জেলা পুলিশ সুপার ও অতিরিক্ত ডিআইজি নিশারুল আরিফ বলেন, ‘আব্দুস সালাম পুলিশের তালিকাভুক্ত একজন শীর্ষ জেএমবি সদস্য। তার কর্মকাণ্ডের বিষয়ে পুলিশ খোঁজ-খবর নিচ্ছে।’

এদিকে, জেএমবি সদস্য সালামের মনোনয়নের বিরুদ্ধে শুরু থেকেই আন্দোলন করে আসছিলেন তাহেরপুর পৌরসভার মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ। মনোনয়ন বাতিলের খবরে তিনি বলেন, ‘এটা তৃণমূল আওয়ামী লীগের বিজয়। নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জেএমবির পরাজয় হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আব্দুস সালাম কোনোভাবেই মনোনয়ন পাওয়া যোগ্য ছিলেন না। তথ্য গোপন করে স্থানীয় সাংসদ ও জেলা আওয়ামী লীগের কতিপয় নেতা তার মনোনয়ন এনে দেন।’

বাগমারা আসনের সাংসদ এনামুল হক বলেন, ‘মনোনয়ন দেয়ার মালিক প্রধানমন্ত্রী। সেখানে স্বাক্ষর করেছে উপজেলা, ইউনিয়ন ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি-সেক্রেটারি। এরপর প্রধানমন্ত্রী তাকে মনোনয়ন দিয়েছে। আব্দুস সালাম জেএমবির কোনো সদস্য না। এটা মিথ্যা বিভ্রান্তিকর। খালি নিউজ করলেই হবে না। ২০০৮ সালে আব্দুস সালাম নৌকার ভোট করেছে। আলমগীর কখনো নৌকার ভোট করেনি। জেএমবির এক নম্বর ক্যাম্প ছিল আলমগীরের বাড়িতে। এজন্য তার ভাইকেও সর্বহারারা খুন করেছে। এগুলো এতদিন আমরা বলিনি। এখন আমরা বলব।’

এ প্রসঙ্গে বাগমারা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান বলেন, ‘সাংসদ এনামুল হক আওয়ামী লীগের একটি সাদা ফরম্যাটে আমাদের স্বাক্ষর নিয়েছিলেন। পরে সেখানে আমাদের অগোচরে প্রার্থীর নাম বসায়। আমরা কখনোই জানতাম না সেখানে জেএমবি সদস্য আব্দুস সালামের নাম রয়েছে।’

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: