সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ২৭ জুন, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ আষাঢ় ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

নবীগঞ্জের আউশকান্দিতে মাটির কলসী ভরা স্বর্ণ নিয়ে তোলপাড়

bb6043b7-7992-40cd-a4f8-7fce540ca1c7বুলবুল আহমদ::নবীগঞ্জের প্রাণকেন্দ্র হিসাবে খ্যাত ঢাকা- সিলেট মহা সড়ক সংলগ্ন আউশকান্দি- হীরাগঞ্জ বাজারে মাটির নিচে কলসী ভরা ৫শ ভরি স্বর্নালংকার নিয়ে তোলপাড় চলছে। স্বর্ন উদ্ধারে পুলিশ গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে আউশকান্দি মধ্য বাজার জে কে জুয়েলার্সে অভিযান চালিয়ে স্বর্ণ চুরির সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে পিন্টু বণিক (৪৫) কে গ্রেফতার করে কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর থানায় পুলিশ। এ সময় প্রায় ৫০ ভরি ওজনের স্বর্নালংকার গোপনে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে উপস্থিত জনতা ও পুলিশের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে পুলিশ স্বর্ণের প্যাকেট ফেরত দিয়ে জনতার কাছে মা প্রার্থনা করে। এ ঘটনায় পুলিশের লোকচুরি খেলা নিয়ে উপস্থিত জনতার মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিলে স্বর্ণ  রেখে পুলিশ আসামী নিয়ে চম্পট দেয়। এ নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানাযায়, কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর শহরের তৎকালীন সময়ের স্বর্ণ ব্যবসায়ী মৃত লাল মোহন বণীক মুক্তিযোদ্ধ চলাকালিন সময়ে রাজাকার ও পাকবাহিনীর ভয়ে তার বাড়ীতে মাটির নিচে একটি পিতলের কলসিতে স্বর্ণ ভরে লুকিয়ে রেখেছিলেন। এ দেশ স্বাধীনতার লাভ করার পর ওই স্বর্নের মালিক মারা যান। ওই সময়ে তার সন্তানেরা এ সম্পর্কে কোন কিছু জানতেন না।
সম্প্রতি স্বর্ণ ব্যবসায়ী মৃত লাল মোহন বণিক এর নাতি পিন্টু বণিকের ভিটায় মাটি খনন করে শ্রমিকেরা। হঠাৎ আকষ্মিক ভাবে লুকিয়ে রাখা ওই স্বর্নের কলসির সন্ধান পায় শ্রমিকেরা। কিন্তু তারা দিনের বেলায় কাজ বন্ধ করে রাতের কোন এক সময়ে ওই কলসী মাটির নিচ থেকে উটিয়ে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে কলসী ভর্তি ওই স্বর্ণ কাজের শ্রমিকেরা পিন্টু বণীক কে নিয়ে ভাগবাটোয়ারা করে নিয়ে যায়। এ ঘটনা জানাজানি হলে মৃত লাল মোহন বণীক এর পুত্র মদন মোহন বণীক বাদী হয়ে তার ভাতিজা পিন্টু বণীকসহ আরো ৪ জনের নাম উল্লেখ করে কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে বাছিতপুর থানার এস আই সজিব কুমার দত্ত নবীগঞ্জ থানা পুলিশের সহায়তায় আউশকান্দি হীরাগঞ্জ মধ্য বাজার জে কে জুয়েলার্সে অভিযান চালিয়ে কর্মচারী পিন্টু বণিককে আটক করে ওই জুয়েলার্সে রতি আনুমানিক ৫০ ভরি স্বর্ণলংকার কোন ধরনের চিজার লিষ্ট ছাড়াই পেকেটস্থ করে রহস্যজনক ভাবে স্বর্নের পেকেট নিয়ে যেতে চাইলে উপস্থিত সাংবাদিক ও জনতা উত্তেজিত হয়ে প্রতিবাদ মূখর হয়ে উটলে এ সময় এস আই সজিব কুমার দত্ত স্বর্নের পেকেটটি জে.কে জুয়েলার্সের মালিক বাদল বণিকের জিম্মায় ফেরৎ দিয়ে উপস্থিত জনতার কাছে মা প্রার্থনা করে পরিস্থিতি শান্ত হয়।
এ ব্যাপারে বাজিতপুর থানার এস আই সজিব কুমার দত্তের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ৫শ ভরি স্বর্ণ চুরির ঘটনায় মামলা হলে এই মামলার আসামীকে গ্রেফতার করতে সেখানে অভিযান চালানো হয়। এ ব্যাপারে বাজিতপুর থানার ওসির সাথে বারবার যোগাযোগ করা হলে সাংবাদিক পরিচয় পেলেই মোবাইল সংযোগটি বিচ্ছিন্ন করে দেন।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: