সর্বশেষ আপডেট : ৪ ঘন্টা আগে
বুধবার, ১৮ জানুয়ারী, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৫ মাঘ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

কুলাউড়ায় এক ভোট কেন্দ্রে দুই ধরণের ফলাফল!

01.-daily-sylhet-UP-ect11নিজস্ব সংবাদদাতা:: গত ২৩ এপ্রিল অনুষ্ঠিত মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার কাদিপুর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের মহতোছিন আলী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের ফলাফলে গরমিল পাওয়া গেছে। চেয়ারম্যান ও মেম্বার প্রার্থীদের ফলাফল শীটে দুই ধরণের তথ্য পাওয়া যায়। চেয়ারম্যান প্রার্থীর ফলাফলের একীভূত বিবরণীতে মোট কাস্টিংকৃত ভোটের সংখ্যার চেয়ে মেম্বার প্রার্থীর ফলাফলের একীভূত বিবরণীতে ১শ ভোট বেশী উল্লেখ করেছেন প্রিসাইডিং অফিসার। এ কারণে বর্তমান মেম্বার শফিক মিয়া প্রিসাইডিং অফিসারের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ এনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদন করেছেন এবং শনিবার (৩০ এপ্রিল) দুপুর ১২টায় স্থানীয় এক হোটেলে প্রেস কনফারেন্স করে এ বিষয়ে প্রতিকার চেয়েছেন।

সাংবাদিক সম্মেলনে শফিক মিয়া অভিযোগ করেন, ৬নং ওয়ার্ডের মহতোছিন আলী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে মোট ভোটার ১ হাজার ৬৯১ টি । তন্মধ্যে চেয়ারম্যান প্রার্থীর ফলাফল বিবরণীতে প্রিসাইডিং অফিসার ও উপজেলা প্রাথমিক সহ-শিক্ষা অফিসার মাসুদুর রহমান উল্লেখ করেন, মোট ভোট কাস্ট হয়েছে ১ হাজার ২০৯টি। বাতিলকৃত ভোট ৪টি। কাস্টিং ভোট ৭১.৫০%। অপরদিকে সাধারণ আসনের সদস্য পদের ফলাফল বিবরণীতে প্রিসাইডিং অফিসার উল্লেখ করেন, মোট ভোট কাস্ট হয়েছে ১ হাজার ৩০৯টি। কাস্টিংকৃত ভোট ৭৭.৪১%। পার্থক্য ১শ ভোটের।

তাদের অভিযোগ, প্রিসাইডিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাচন অফিসার কারচুপি ও অনিয়ম করে তাকে পরাজিত করতে ফলাফল শীটে অনিয়মের আশ্রয় নিয়েছেন। কেননা অন্য কোনো নির্বাচনে এ ধরনের গরমিল চোখে পড়েনি। প্রিসাইডিং অফিসার আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীকে বিজয়ী করতে ১শ ভোট বাড়িয়ে দিয়েছেন, যার প্রমাণ চেয়ারম্যান প্রার্থীর ফলাফল বিবরণী। কাজেই মহতোছিন আলী উচ্চ বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রের ফলাফল বাতিল করে ভোট পুন:গণনার জন্য দাবি জানান তারা।
এ ব্যাপারে প্রিসাইডিং অফিসার উপজেলা সহ-প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মাসুদুর রহমান জানান, ভুলে মেম্বার ও চেয়ারম্যান প্রার্থীর ফলাফলে দুই ধরনের ভোট কাস্টিং এর হিসাব করা হয়েছে। আসলে মেম্বারদের মোট বাতিল হয়েছে ২২টি। আমি তাড়াহুড়ো করতে গিয়ে লিখেছি ১২২ ভোট। তাই ভোটের সংখ্যা এবং কাস্টিংকৃত পার্সেন্ট বেড়ে গেছে।

এ বিষয়ে নির্বাচন অফিসের কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম দুই ধরনের বক্তব্য দেন সাংবাদিকদের কাছে। প্রথমে তিনি বলেন, মেম্বার ও চেয়ারম্যান প্রার্থীর ভোটের গরমিল থাকতে পারে। পরে আবার কথা বদলিয়ে তিনি বলেন, প্রিসাইডিং অফিসার ভুল করে মেম্বার প্রার্থীদের ফলাফল বিবরণীতে ১শ ভোট বেশী লিখে ফেলেছেন। আমরা ২৩ তারিখ রাত্রেই কন্ট্রোল রুম থেকে ফলাফল প্রধান নির্বাচন কমিশনার অফিসে অনলাইনে প্রেরণ করেছি। এখানে প্রিসাইডিং অফিসার যেভাবে ফলাফল দেন আমরা সেভাবেই অনলাইনে ডাটা ঢাকায় প্রেরণ করি। প্রিসাইডিং অফিসার কর্তৃক ভুল তথ্য যাচাই করে ঢাকায় ফলাফল পাঠানো প্রয়োজন ছিলো কি-না এ প্রশ্নের সদুত্তর তিনি দিতে পারেননি।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: