সর্বশেষ আপডেট : ৩ ঘন্টা আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

আ.লীগের ‘হাইব্রিড নেতাদের’ ওলামা লীগের ‘ওপেন চ্যালেঞ্জ’

141077_1নিউজ ডেস্ক::
আওয়ামী লীগের ‘হাইব্রিড নেতাদের’ ওপেন চ্যালেঞ্জ জানিয়ে আওয়ামী ওলামা লীগের এক নেতা বলেছেন, ওলামা লীগের বিরুদ্ধে কেউ যদি দশ টাকা চাঁদাবাজি কিংবা কোনো মন্ত্রীর নিকট কোনো তদবিরের প্রমাণ দিতে পারে, তাহলে তিনি রাজনীতি ছেড়ে দেবেন।

বৃহস্পতিবার আওয়ামী ওলামা লীগের কার্যনির্বাহী সভাপতি হাফেজ মাওলানা আব্দুস সাত্তার এক বিবৃতিতে একথা বলেন।

পহেলা বৈশাখ ও হিন্দু-বৌদ্ধ-খিস্ট্রান ঐক্যপরিষদসহ সম্প্রতি নানা ইস্যুতে বক্তব্য দিয়ে আলোচনায় এসেছে ওলামা লীগ। তবে তাদের বক্তব্যের সমালোচনা করেছেন আওয়ামী লীগ নেতা মাহবুব উল আলম হানিফ ও হাছান মাহমুদ।

দৃশ্যত আওয়ামী লীগ নেতাদের বক্তব্যে সমালোচনা করে বিবৃতিতে মাওলানা আব্দুস সাত্তার বলেন, কিছু হাইব্রিড নেতা ওলামা লীগের নামে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে চায়ের ষ্টল থেকে শুরু করে সকল মহলে ওলামা লীগকে সমালোচনার পাত্র করছেন। এতে আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে। হাইব্রিড মার্কা নেতারা ওলামা লীগকে চাঁদাবাজ আর তদবিরবাজ বলে আখ্যায়িত করেছে। আমি নির্বাহী সভাপতি হিসেবে আওয়ামী লীগের নিকট ওপেন চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলাম, কেউ যদি দশ টাকার চাঁদাবাজি বা কোনো মন্ত্রীর নিকট তদবিরের বিষয়টি জানাতে পারেন, তাহলে আমি রাজনীতি থেকে ইস্তফা দেব।

বিবৃতিতে তিনি আরো বলেন, আমরা এইসব হাইব্রীড নেতাদের রক্তচক্ষুকে তোয়াক্কা করি না। আমরা রাসূল (সাঃ) এর আদর্শ লালন করি। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্ব মানি এবং তার নির্দেশেই আমরা রাজনীতি করি।

বিবৃতিতে পহেলা বৈশাখের প্রসঙ্গ তুলে তিনি বলেন, পহেলা বৈশাখকে আমরা নাযায়েজ বা হারাম বলি নাই। আমরা বলেছি, পহেলা বৈশাখের নামে অপসংস্কৃতি, বেহায়াপনা, নির্লজ্জতা, বিশেষ করে গত কয়েক বছর ধরে পহেলা বৈশাখে কিছু উশৃঙ্খল যুবক আমাদের মা বোনদের ইজ্জত আব্রুর উপর হামলা করে, বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছে। সেই বিষয়টি আমরা বারবার উল্লেখ করেছি।

তিনি আরো বলেন, ভারত আমাদের প্রতিবেশী। তারা আমাদের বন্ধু। তবে আমাদের প্রভু নয়। বাংলাদেশে আমরা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টানসহ সামাজিকভাবে সহাবস্থানে সুন্দরভাবে বসবাস করে আসছি। আমাদের বক্তব্যে আমরা উল্লেখ করেছিলাম ‘হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ’ আমাদের মন্ত্রী এমপিদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে।

তিনি বলেন, নারীনীতি নিয়ে জামায়াত-হেফাজতীদের বিরুদ্ধাচারণের বিরুদ্ধে ওলামা লীগের পক্ষ থেকে আমরা সংবাদ সম্মেলন করে জামায়াতি-হেফাজতিদেরকে কোরআন সুন্নাহ ভিত্তিক দলিল দিয়েছি।

শিক্ষানীতি বিষয়ে তিনি বলেন, শিক্ষানীতি আইনের বিরোধিতা করার মূল কারণ হলো সেখানে মুসলমানদের সকল কিছুকে বাদ দিয়ে হিন্দুত্বপনা রাম-সাম-গদ্য-পদ্য অনর্ভুক্ত করা হয়েছে। এর বিরোধিতা করে আমরা মুসলিম হিসেবে আমাদের ঈমানি দায়িত্ব পালন করেছি। আর জামায়াতি-হেফাজতি, জঙ্গি ও ছাত্র শিবিরের মাস্তান বাহিনী সরকারের বিরুদ্ধে যেন কোনো ইস্যু তৈরি করতে না পারে সেটাই ছিল আমাদের মূল লক্ষ্য।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, অতীতকে যারা ভুলে যায় তারা অকৃতজ্ঞ। আমাদের দুই লক্ষ বত্রিশ হাজার কর্মী রয়েছে। সর্বমহলে আমাদের নিয়ে সমালোচনা হচ্ছে। আওয়ামী লীগের কিছু হাইব্রিড নেতা আমাদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি আর তদবিরের অভিযোগ দিচ্ছে। আমরা আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে সকল গ্রুপের নেতাকর্মী এক ফ্ল্যাটফর্মে এসে এই হাইব্রিড নেতাদের সব সমালোচনার জবাব দেওয়ার জন্য প্রস্তুত হচ্ছি।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: