সর্বশেষ আপডেট : ৮ মিনিট ৪৯ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ছাতকে জসিম উদ্দিন হত্যাকান্ড: মামলা দায়ের, আসামিদের বসতঘর ভাঙচুর ও লুটপাট

9984b5c5-7b7c-4fd7-a16b-d3d246633a30ছাতক প্রতিনিধিঃ
ছাতকে মির্জাপুর গ্রামের জসিম উদ্দিন হত্যাকান্ডের ঘটনায় ২৬ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে নিহতের পিতা ওয়ারিছ আলী বাদী হয়ে ছাতক থানায় এ মামলা(নং-২৭) দায়ের করা হয়। ঘটনার পর থেকে মির্জাপুর গ্রামের ওয়ারিছ আলীর প্রতিপক্ষরা স্বপরিবারে গ্রাম ছেড়ে পালিয়েছে।

হত্যাকান্ডের ঘটনায় আক্রোশবসত বাদী পক্ষের লোকজন আসামিদের বসতবাড়িতে চালিয়েছে লুটপাট ও ভাঙচুরের মহা তাণ্ডব।

শুক্রবার মির্জাপুর গ্রাম সরজমিনে ঘুরে এসব চিত্র ফুটে উঠে। হত্যাকান্ডের পর থেকে মির্জাপুর গ্রামের নিহতের মামা ইউপি সদস্য লিয়াকত আলীর বাড়ির সামনে বসানো হয়েছে পুলিশ প্রহরা। পুলিশ আতংকে আসামীদের বসতবাড়ি বর্তমানে জন শুন্য অবস্থায় রয়েছে। এর মধ্যে মুক্তিযোদ্ধা মৃত তোতা মিয়ার ঘরসহ ১০-১৫টি কাচা-পাকা ঘর এবং দু’টি দোকানকোটা ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়েছে। ঘরের চালা ও বসতভিটা ছাড়া এসব ঘরে আর কিছুই অবশিষ্ট নেই। এমনকি ঘরের দরজা-জানালা খুলে নেয়া হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি জানান, জসিম উদ্দিনের মৃত্যুর সংবাদ পৌছামাত্র প্রতিপক্ষরা গ্রাম ছেড়ে পালিয়েছে।

লাশ বাড়িতে আনার পর আসামীদের বাড়িতে চলে ভাংচুর ও লুটপাটের উৎসব। গোলার ধান, গোয়ালের গবাদি পশু, ঘবের আসবাবপত্র, টিভি, ফ্রিজ, বৈদ্যতিক ফ্যানসহ দৈনন্দিন জিনিপত্র থালাবাসন লুট করে নেয়া হয়। আসামী রমজান আলী, ইদন আলী, আব্দুল মতিন, ইদ্রিছ আলী, মদরিছ আলী, নিজাম উদ্দিন, ছুরত আলী, তাজুদ আলী, শুকুর আলী ও ইন্তাজ আলীর ঘরে থাকা শহস্রাধিক মন ধান, শতাধিক গবাদি পশু, আলু, মিষ্টি কুমড়াসহ প্রায় ২৫-৩০লক্ষ টাকার মালামাল লুট করে নেয়া হয়। তাদের মারমুখী আচরনে কেউ মুখ খুলতেও রাজি হয় না।

আসামিদের স্বজনদের মধ্যে যারা গ্রামে আছেন তারা আতংকের মধ্যে রয়েছেন বলে জানান। আক্ষেপ করে সত্তর উর্ধ্ব এক বৃদ্ধ বলেন, গ্রামের মধ্যে দুধরনের আহাজারি চলছে। কেউ কাঁদছে স্বজন হারিয়ে আর কেউ কাঁদছে সহায়-সম্বল হারিয়ে। তারা জানান, রাতের আধারে দলবেধে লোকজন এসে হমকি-ধামকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। এদিকে মামলার পর থেকে আহত আসামীরাও পালিয়ে বেড়াচ্ছে। এর মধ্যে আলী হোসেন, ছুরত আলী, অন্তঃস্বত্তা আয়েশা বেগমের অবস্থা আশংকাজনক বলে জানা গেছে।

শুক্রবার দুপুরে মির্জাপুর পরিদর্শন করেছেন ওসি আশেক সুজা মামুন। গত বুধবার খড় ছড়ানো নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনায় জসিম উদ্দিন নিহত ও উভয় পক্ষের অন্তত ২০ব্যক্তি আহত হয়। এসময় ঘটনাস্থ থেকে আরজ আলীর পুত্র ফজর আলী, আনিস আলীর পুত্র ইজ্জত আলী ও মৃত তমিজ আলীর পুত্র ইদন আলীকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: