সর্বশেষ আপডেট : ৬ মিনিট ২১ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ২১ জুলাই, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৬ শ্রাবণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

দেশের একমাত্র গে ম্যাগাজিন ‘রূপবান’ কাহিনী

0bb3921a4ce19508e6c1787aaefb5297-571f8059312f1নিউজ ডেস্ক:
রূপবান বাংলাদেশের প্রথম গে ম্যাগাজিনবাংলাদেশে সমকামিতা শাস্তিযোগ্য অপরাধ বলে বিবেচিত হলেও ২০১৪ সালে গে কমিউনিটির উদ্যোগে তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের জীবনধারাকে সামনে আনতে প্রকাশিত হয় ‘রূপবান’। নারী সমকামী, পুরুষ সমকামী, রূপান্তরকামী আর উভকামীদের প্রেম ও ভালোবাসার অধিকার সামনে আনার কথা বলে প্রকাশ করা হয় দেশের প্রথম এবং একমাত্র এই তৃতীয় লিঙ্গের প্রতিনিধিত্বকারী পত্রিকা। সোমবার (২৫ এপ্রিল) এই রূপবান পত্রিকারই সম্পাদক জুলহাজ মান্নানকে ঢাকার নিজ বাসায় কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।
রূপবান-এর প্রথম সংখ্যা এবং উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের বার্তা

উইকিপিডিয়ার তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশের গে কমিউনিটির লোকজনের উদ্যোগে ৫৬ পৃষ্ঠার রূপবান প্রথম প্রকাশিত হয় ২০১৪ সালের জানুয়ারিতে। তখন এর সম্পাদক ছিলেন রাসেল আহমেদ। সোমবার হত্যাকাণ্ডের শিকার জুলহাজ মান্নান তখন ছিলেন পত্রিকাটির সম্পাদনা পরিষদের একজন সদস্য। রূপবান প্রকাশের কথা জানাতে গিয়ে সেই সময় বার্তা সংস্থা এএপপির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের নারী সমকামী, পুরুষ সমকামী, রূপান্তরকামী আর উভকামীদের অধিকার প্রতিষ্ঠার এক পদক্ষেপ হিসেবে পত্রিকাটির প্রকাশ শুরু হয়েছে। সেই সময়ের সম্পাদক রাসেল আহমেদ বলেছিলেন, ‘আমরা আশা করি এটা সমকামী সম্প্রদায়ের ব্যাপারে সচেতনতা বৃদ্ধি করবে। রূপবান ম্যাগাজিনের সম্পাদকের প্রত্যাশা, সমকামীদের জীবনযাপন পদ্ধতি ও বিভিন্ন দিক নিয়ে ম্যাগাজিনটিতে যেসব প্রতিবেদন প্রকাশিত হবে, তা মানুষের মধ্যে সহনশীল দৃষ্টিভঙ্গি তৈরিতে সক্ষম হবে।’ গে নেতারা এও বলেছিলেন, এ ম্যাগাজিনটি প্রকাশের অন্যতম কারণ প্রেম ও প্রেমের অধিকারকে সামনে নিয়ে আসা।
ম্যাগাজিনের নাম ‌’রূপবান’ রাখার কারণ ব্যাখা করে গে নেতারা জানিয়েছিলেন, নামটি নেয়া হয়েছে বাংলার একটি রূপকথার গল্প থেকে যেখানে রূপবান নামের একটি সুন্দরী মেয়েকে একটি বাচ্চা ছেলের সাথে বিয়ে দেওয়া হয়েছিলো।

রূপবানরূপবানের যাত্রা শুরুর অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়া অতিথিদের মধ্যে ব্রিটিশ হাই কমিশনার রবার্ট গিভসন এবং ব্যারিস্টার সারা হোসেনও ছিলেন। অনুষ্ঠানে নারী উপস্থিতি কম ছিল। আর সেটি সারা হোসেনসহ বেশ কয়েকজন অতিথির নজরে আসে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দেওয়া বক্তব্যে কম নারীর উপস্থিতিকে ইঙ্গিত করে সারা হোসেন বলেছিলেন, যৌনতা ও যৌন পরিচিতিমূলক অনুষ্ঠানে ঐতিহাসিকভাবেই নারীরা কম উপস্থিত থাকেন।

দ্বিতীয় সংখ্যা এবং সমকাম ইস্যুতে হত্যাকাণ্ডের শিকার জুলহাজের মতামত

২০১৫ সালের জানুয়ারিতে প্রকাশিত হয় রূপবান-এর দ্বিতীয় সংখ্যা। সেই মাসেই রূপবানের প্রথম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে বিবিসি বাংলাকে একটি সাক্ষাৎকার দিয়েছিলেন জুলহাজ মান্নান।

সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছিলেন, ‘রূপবান সমকাম নয় বরং সমপ্রেমে বিশ্বাসী মানুষের ভালবাসার অধিকারের বিষয়টি তুল ধরতে চায়। সমপ্রেমে বিশ্বাস করে এমন মানুষদের জীবনধারা, ভালোলাগা ও দু:খ কষ্টের বিষয়টি তুলে ধরে রূপবান।’

বাংলাদেশে সমকামীরা অদৃশ্য জীবনযাপন করে উল্লেখ করে জুলহাজ মান্নান বিবিসিকে বলেছিলেন, ‘আমরা জানাতে চাই যে এই সমাজেই আমরা আছি এবং আমরা আপনাদের পরিবারেই সদস্য’।
আরও পড়ুন: জুলহাজের মরদেহ হস্তান্তর

রূপবানের সম্পাদক জুলহাজ
ভয়-ভীতি-হুমকির মুখে দ্বিতীয় সংখ্যার পর আর বের হয়নি ‘রূপবান’

মাত্র দুটি সংখ্যা প্রকাশ করেই বাংলাদেশে বিতর্কের ঝড় তুলেছিল ‘রূপবান’। গে কমিউনিটির বিরুদ্ধে উত্তেজনা ও বিদ্বেষ ছড়ানোর আশঙ্কায় রাস্তায় সংবাদপত্র বিক্রির দোকানে ঠাঁই পেত না ত্রৈমাসিক এ ম্যাগাজিনটি। যারা রূপবান পড়তে চাইতেন তাদেরকে ফোন করে ম্যাগাজিনটি চেয়ে নিতে হতো। স্বেচ্ছাসেবীদের লেখা নিয়ে বাংলায় প্রকাশ হচ্ছিল এ ম্যাগাজিনটি।

এমন প্রেক্ষাপটে জুলহাজ মান্নান বিবিসি বাংলাকে বলেছিলেন, ‘এদেশের রক্ষণশীল সমাজে সমপ্রেম নিয়ে পত্রিকা বের করতে গ্রহণযোগ্যতার বিষয়ে তাদের বেশ কৌশলী হতে হয়। এটা একটা বাড়তি চাপ।’

উল্লেখ্য, ওই দুটি সংখ্যাই বের হয়েছিল রূপবানের। জুলহাজের ঘনিষ্ঠরা বিবিসি বাংলাকে জানিয়েছেন, প্রথম সংখ্যাটি ভালভাবে বের করা গেলেও দ্বিতীয় সংখ্যা বের করতে গিয়েই সমস্যায় পড়েন তারা। যে প্রিন্টিং প্রেসে ছাপা হচ্ছিল রূপবান, তারা আর ছাপতে রাজী হচ্ছিল না। এক পর্যায়ে রূপবান ছাপা বন্ধ করে দেয় তারা, পরে আর কোনও প্রেসই ছাপতে রাজী হয়নি পত্রিকাটি। ফলে দ্বিতীয় সংখ্যাতেও রূপবান বেরিয়েছিল মোটে অল্প কয়েকটি কপি। সূত্র: উইকিপিডিয়া, এএফপি, বিবিসি বাংলা

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: