সর্বশেষ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ইলিয়াস আলীকে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান পদে রাখা হতে পারে

2016_04_27_12_06_34_tFvBibKkgX6TFBeGVgaJK5uvzo6WFJ_originalনিউজ ডেস্ক : শিগগিরই ঘোষণা হবে বিএনপির নীতি-নির্ধারণী ও পরামর্শক ফোরাম হিসেবে বিবেচিত ‘ভাইস চেয়ারম্যান’ পদের নেতাদের নাম। পুরাতন ও নতুনদের সমন্বয়ে পূরণ করা হবে এ পদ। বিদায়ী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যানদের মধ্য থেকে বেশ কয়েকজনকে তাদের রাজনৈতিক উজ্জ্বল ক্যারিয়ার, জনপ্রিয়তা ও ত্যাগের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে একইপদে রাখা হতে পারে। তবে এদের দুই-একজন যেতে পারেন স্থায়ী কমিটিতেও।

এবার বিএনপির গঠনতন্ত্র সংশোধন করে ১৭ জনের পরিবর্তে ভাইস চেয়ারম্যানের সংখ্যা করা হয়েছে ৩৫। চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদ থেকে কয়েকজনকে ভাইস চেয়ারম্যান পদে নিয়ে আসারও চিন্তাভাবনা চলছে। এছাড়া বিদায়ী কমিটির যুগ্ম-মহাসচিব ও সাংগঠনিক সম্পাদক থেকে শুরু করে সম্পাদক পর্যায়ের একঝাঁক নেতার জায়গা হতে পারে ভাইস চেয়ারম্যান পদে। সাংগঠনিকভাবে দক্ষ নেতাদের এ পদের প্রথম সারিতে রাখা হবে। সংশিষ্ট সূত্রে এমন তথ্য জানা গেছে।

এদিকে বিএনপির সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য সংখ্যা ১৯ থেকে বাড়িয়ে ২১ কিংবা ২৩ করার আলোচনা রয়েছে। গত ১৯ মার্চ অনুষ্ঠিত ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলের পরে মহাসচিব ও সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিবসহ তিন দফায় ইতোমধ্যে বিএনপিতে ৪০ জনকে মনোনয়ন দিয়েছেন চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। সর্বশেষ গত ১৮ এপ্রিল ২০ জন সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও একজন (কুমিল্লা বিভাগ) সাংগঠনিক সম্পাদকের নাম ঘোষণা করা হয়।

বিএনপি সূত্র মতে, খালেদা জিয়া এখন ভাইস চেয়ারম্যান, উপদেষ্টা পরিষদ ও সম্পাদকমণ্ডলী নিয়ে কাজ করছেন। ধাপে ধাপে এসব কমিটি ঘোষণা করা হবে। আর সর্বশেষ ঘোষণা করা হতে পারে জাতীয় স্থায়ী কমিটি। কমিটি নিয়ে চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া অত্যন্ত গোপনীয়তা অবলম্বন করছেন। এ ব্যাপারে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে ফোনে সলাপরামর্শও করছেন তিনি।

বিএনপির বিদায়ী কমিটির ১৭ জন ভাইস চেয়ারম্যানের মধ্যে সবচেয়ে প্রবীণ হচ্ছেন বিচারপতি টি এইচ খান। তাকে ওই পদেই রাখা হচ্ছে। বিএনপি ছেড়েছেন শমসের মবিন চৌধুরী ও ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা। মারা গেছেন সৈয়দা রাজিয়া ফয়েজ। এ শূন্যপদগুলো পূরণ করা হবে।

এছাড়া বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যানদের মধ্যে এম মোর্শেদ খান, শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, বেগম রাবেয়া চৌধুরী, এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) আলতাফ হোসেন চৌধুরী, অ্যাডভোকেট হারুন আল রশিদ, আব্দুল্লাহ আল নোমান, চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, বেগম সেলিমা রহমান, মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বীরবিক্রম, সাদেক হোসেন খোকা, কাজী শাহ মোফাজ্জল হোসেন কায়কোবাদ ও আব্দুস সালাম পিন্টুকে (বর্তমানে জেলে রয়েছেন) পুনরায় একইপদে রাখার সম্ভাবনা রয়েছে।

তবে এদের মধ্য থেকে স্থায়ী কমিটিতে যাওয়ার ব্যাপারে শাহ মোয়াজ্জেম, আব্দুল্লাহ আল নোমান, সেলিমা রহমান, মেজর (অব.) হাফিজ ও সাদেক হোসেন খোকার নাম আলোচিত হচ্ছে জোরেসোরে।

বিএনপি প্রধানের ৩৮ সদস্যবিশিষ্ট উপদেষ্টা পরিষদ থেকে ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর বীরবিক্রম, ড. ওসমান ফারুক, অধ্যাপক আব্দুল মান্নান (গাজীপুরের নির্বাচিত মেয়র), আব্দুল আউয়াল মিন্টু, অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, অ্যাডভোকেট এ জে মোহাম্মদ আলী, অ্যাডভোকেট আহমেদ আযম খান, শামসুজ্জামান দুদু, শওকত মাহমুদ, এম এ কাইয়ূম, অধ্যাপক ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, মীর মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, আব্দুল মান্নান (ঢাকা জেলা বিএনপির সভাপতি) ও জয়নাল আবেদীন দলের ভাইস চেয়ারম্যান হতে পারেন।

অবশ্য ওসমান ফারুক, খন্দকার মাহবুব হোসেন ও শামসুজ্জামান দুদু স্থায়ী কমিটিতেও জায়গা পেতে পারেন।

বিদায়ী কমিটির যুগ্ম-মহাসচিবদের মধ্য থেকে আমান উল্লাহ আমান, মিজানুর রহমান মিনু, বরকত উল্লাহ বুলু ও মো. শাহজাহানকে ভাইস চেয়ারম্যান করা হতে পারে। তবে আমানকে নিয়ে যাওয়া হতে পারে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদেও।

এছাড়া অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে ভারতে বিচারাধীন সদ্য সাবেক আরেক যুগ্ম-মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদকে স্থায়ী কমিটিতে মনোনয়ন দিতে পারেন খালেদা জিয়া। দলের জন্য অপরিসীম ত্যাগ, অবর্ণনীয়-অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতির শিকার এবং ঝুঁকি নিয়ে সংগঠনের দায়িত্ব পালনের পুরস্কারস্বরূপ তাকে ওইপদে পদায়ন করা হতে পারে। অন্যথায় তাকে ভাইস চেয়ারম্যান করা হবে।

সরকারবিরোধী আন্দোলন চলাকালে গত বছরের ১০ মার্চ রাজধানীর উত্তরার একটি বাসা থেকে গোয়েন্দা পুলিশ সালাহ উদ্দিনকে তুলে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ করে তার পরিবার। এক পর্যায়ে ওই বছরের মে মাসে ভারতের মেঘালয় রাজ্যের শিলংয়ে তার সন্ধান পাওয়া যায়।

এদিকে বিদায়ী সাংগঠনিক সম্পাদকদের মধ্যে গোলাম আকবর খোন্দকার ভাইস চেয়ারম্যান হতে পারেন। এছাড়া সম্প্রতি ঝিনাইদহ জেলা বিএনপির পুনরায় সভাপতি হওয়া মশিউর রহমানকে চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা করা হতে পারে। সিলেট বিভাগীয় সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ‘নিখোঁজ’ ইলিয়াস আলীকেও ভাইস চেয়ারম্যান পদে রাখা হতে পারে।

নতুনদের মধ্য থেকে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান পদে আরো আলোচনায় রয়েছেন- বিদায়ী কমিটির প্রচার সম্পাদক জয়নুল আবদিন ফারুক; আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক সম্পাদক গিয়াসউদ্দিন কাদের চৌধুরী, ড. আসাদুজ্জামান রিপন, আ ন ম এহসানুল হক মিলন; স্থানীয় সরকার বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল হাই, বিএনপি নেত্রী খালেদা রব্বানী, মহিলা দলের সভানেত্রী নূরে আরা সাফা, গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া, ধর্মবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদার, পল্লী উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক মনিরুল হক চৌধুরী, উপজাতি বিষয়ক সম্পাদক মা ম্যা চিং, সহ-আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট নিতাই রায় চৌধুরী ও অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খোন্দকার এবং নির্বাহী সদস্য শাহ মো. আবু জাফর।

ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে বিদায়ী কমিটির অর্থনৈতিক বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সালামের নামও শোনা যাচ্ছে। তবে তাকে ঢাকা মহানগর বিএনপির শীর্ষ পদে পদায়ন করা হতে পারে। মহানগরকে দুই ভাগ করা হলে তিনি দক্ষিণের সভাপতির পদ পেতে পারেন। কর্মীবান্ধব আব্দুস সালাম ঢাকা মহানগরের বিগত কমিটির সদস্য সচিব ছিলেন।

জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘কাউন্সিলের পর মহাসচিব, সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিবসহ ইতোমধ্যে ৪০ জন কর্মকর্তার নাম ঘোষণা করা হয়েছে। আশা করছি, এরই ধারাবাহিকতায় দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া অচিরেই ভাইস চেয়ারম্যানসহ বাকি কমিটি ঘোষণা করবেন।’

তিনি আরো বলেন, ‘নতুন ও পুরাতন মিলিয়ে কমিটি (ভাইস চেয়ারম্যান) হবে, ইতোমধ্যে ঘোষিত পদগুলোতেও তার প্রতিফলন ঘটেছে।’

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: