সর্বশেষ আপডেট : ৯ মিনিট ২৯ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সুনামগঞ্জের ৩ উপজেলায় জামানত হারালেন ৬৬জন চেয়ারম্যান প্রার্থী

daily sylhet 0-82 copyসুনামগঞ্জ প্রতিনিধি::
সুনামগঞ্জের ২৬টি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী ১৪৪জন প্রার্থীর মধ্যে ৬৬জন প্রার্থী তাঁদের জামানত হারিয়েছেন। জেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে সুনামগঞ্জ সদর, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ এবং দোয়ারাবাজার উপজেলার ২৬টি ইউপিতে গত শনিবার ভোট হয়। এই তিন উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ১৪৪জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

নির্বাচনী বিধি অনুযায়ী, একটি ইউপিতে গ্রহণকৃত মোট ভোটের আট শতাংশের কম ভোট যদি কোনো প্রার্থী পান তিনি মনোনয়নের সঙ্গে জমা দেওয়া জামানতের টাকা ফেরৎ পাবেন না।

ভোটের ফলাফল থেকে জানা গেছে, ভোটের হিসাব অনুযায়ী সুনামগঞ্জের এই তিন উপজেলার মধ্যে সদর উপজেলার জাহাঙ্গীরনগর ইউপি ছাড়া অন্য ২৫টি ইউপিতে ৬৬জন প্রার্থী তাঁদের জামানত হারিয়েছেন। জামানত হারানো প্রার্থীদের মধ্যে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টি ছাড়া অন্যরা স্বতন্ত্র প্রার্থী ছিলেন। স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্যে আওয়ামী লীগ-বিএনপির বিদ্রোহীরা আছেন।

দোয়ারাবাজার উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৬০জন প্রার্থীর মধ্যে ৩০জন জামানত হারিয়েছেন। এর মধ্যে নরসিংপুর ইউপিতে ১০জনের মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আবদুর রশিদ তালুকদার হয়েছেন পঞ্চম, তিনি পেয়েছেন এক হাজার ১৬ভোট। বোগলাবাজার ইউপিতে পাঁচজনের মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মিলন খান হয়েছেন তৃতীয়, তিনি পেয়েছেন ৮৪৮ ভোট। লক্ষীপুর ইউপিতে সাতজনের মধ্যে বিএনপির প্রার্থী আতাউর রহমান হয়েছেন পঞ্চম, তিনি পেয়েছেন এক হাজার ১২ ভোট। দোহালিয়া ইউপিতে ১০জনের মধ্যে পঞ্চম স্থানে আছেন বিএনপির প্রার্থী ফখর উদ্দিন, তিনি পেয়েছেন এক হাজার ২৫৩ ভোট। এই উপজেলায় জামানত হারানো জাতীয় পার্টিল প্রার্থীরা হলেন, সুরমা ইউপিতে ইকবাল হোসেন, দোহারিয়া ইউপিতে লিপিয়া বেগম, বোগলাবাজার ইউপিতে গিয়াস উদ্দিন, লক্ষীপুর ইউপিতে জালাল আহমদ, নরসিংপুর ইউপিতে আবুল কালাম।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় ৪০জন প্রার্থীর মধ্যে জামানত হারিয়েছেন ১৬জন। এর মধ্যে পূর্ব পাগলা ইউপিতে সাতজনের মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ফয়জুল করিম হয়েছেন পঞ্চম, তিনি পেয়েছেন ৯৩২ ভোট। পশ্চিম পাগলা ইউপিতে তিনজনের মধ্যে বিএনপির প্রার্থী আজিজুর রহমান হয়েছেন তৃতীয়, তিনি পেয়েছেন মাত্র ৩৬ ভোট। পূর্ব বীরগাঁও ইউপিতে ছয়জনের মধ্যে পঞ্চম স্থানে আছেন বিএনপির প্রার্থী তোফায়েল আহমদ, তিনি পেয়েছেন ২৪৭ ভোট। জয়কলস ইউপিতে চারজনের মধ্যে চতুর্থ হয়েছেন বিএনপির প্রার্থী সামসুন্নুর, তিনি পেয়েছেন ৮৪৭ ভোট। এই উপজেলায় জামানত হারানো জাতীয় পার্টির প্রার্থী হলেন দরগাপাশা ইউপিতে হারুন মিয়া।

সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৪৪জন প্রার্থীর মধ্যে জামানত হারিয়েছেন ২০জন। এর মধ্যে মোল্লাপাড়া ইউপিতে ছয়জনের মধ্যে বিএনপির প্রার্থী আজমল হোসেন হয়েছেন তৃতীয়, তিনি পেয়েছেন ৭২৬ভোট। কাঠইর ইউপিতে ১০জনের মধ্যে নবম হয়েছেন বিএনপির প্রার্থী কামরুল ইসলাম, তিনি পেয়েছেন ৩১৭ ভোট। এই উপজেলায় জাতীয় পার্টির জামানত হারানো প্রার্থীরা হলেন সুরমা ইউপিতে আব্দুস সাত্তার, মোল্লাপাড়া ইউপিতে ফয়জুর রহমান, রঙ্গারচর ইউপিতে ফয়জুল রহমান ও লক্ষণশ্রী ইউপিতে আব্দুল মান্নান।

জেলা নির্বাচন কর্মকতা মোহাম্মদ সাদেকুল ইসলাম বলেন, একজন প্রার্থীকে গ্রহণকৃত মোট ভোটের আটভাগের এক ভাগ ভোট পেতে হবে। এর কম পেলে তিনি জমা দেওয়া জামানতের টাকা ফেরৎ পাবেন না-এই নিয়ম।’

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: