সর্বশেষ আপডেট : ৩ মিনিট ৫১ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

২৬ বছর পর ৯৬ ফুটবলপ্রেমীর নিহতের দায় স্বীকার

338B1F8A00000578-3558745-The_Hillsborough_disaster_claimed_the_lives_of_96_Liverpool_fans-a-30_1461663283717নিউজ ডেস্ক: বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনের অন্যতম বড় ট্রাজেডি হিলসব্রোর ঘটনার ২৬ বছর পর কর্তৃপক্ষের ভুলের কথা জানালো যুক্তরাজ্য সরকার।

মঙ্গলবার এক রায়ের মাধ্যমে তারা জানায়, সেদিন নিহত ৯৬ জন মৃত্যু আসলে নিছক দুর্ঘটনা নয়। এর দায় আসলে কর্তৃপক্ষের।

তদন্ত শেষে এমনটাই জানানো হয়। আদালত জানায়, ম্যাচ কমান্ডার সুপ্ট ডেভিড ডাকেনফিল্ড তার দায়িত্বে অবহেলা করেছিলেন এবং ভক্তদের কথা সঠিকভাবে চিন্তা করেনি। এছাড়া পুলিশদের ভুলের কথাও বলা হয়।

১৯৮৯ সালের ১৫ এপ্রিলের ওই ঘটনায় ৯৬ জন নিহত হওয়া ছাড়াও আহত হয় ৭৬৬ জন। সেদিন লিভারপুল ও নটিংহ্যাম ফরেস্টের এফএ কাপ সেমিফাইনালের নিরপেক্ষ ভেন্যু হিসাবে বেছে নেয়া হিলসব্রো স্টেডিয়ামে এতগুলো মানুষকে বলি দিতে হয়েছিল।

ইতিহাস বলছে, দু’দলের বিপুল সমর্থক এবং তাদের মধ্যে সংঘর্ষ এড়াতে স্টেডিয়ামকে ভাগ করে দেয়া হয়েছিল দুটো আলাদা অংশে। ম্যাচ শুরু হওয়ার আগেই লিভারপুল সমর্থকরা দল বেঁধে এগোতে শুরু করেন তাদের জন্য নির্ধারিত লেপলিংস লেন স্ট্যান্ডের দিকে। কিন্তু, এই স্ট্যান্ডে প্রবেশের একটি মাত্র পথ থাকায় ক্রমেই ভিড় বাড়তে থাকে। ভিড় সামাল দিতে হিমশিম খায় পুলিশ।

এদিকে প্রিয় দলের ম্যাচ দেখতে প্রচুর মানুষ তখনও বাইরে দাঁড়িয়ে। ভিড় আর সামাল দিতে না পেরে ম্যাচের ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে থাকা পুলিশ কর্মকর্তা তার এক সহকর্মীকে নির্দেশ দিলেন আর একটি প্রবেশ পথ খুলে দিতে। অন্য সময় গুলোতে বন্ধই থাকতো এটা।

তবে সমস্যা হলো, এই পথ দিয়ে স্টেডিয়ামের যে অংশে যাওয়া যেত, গ্যালারির ঐ অংশগুলো পূর্ণ হয়ে গিয়েছিল আগেই। কিন্তু, ঐ পথ দিয়ে যারা ভিতরে ঢুকছেন তাদের তো আর সেটা জানার কথা নয়!

পেছনের মানুষের চাপে ভিড়ের সামনের অংশ দ্রুূতই এগিয়ে গেলো আরো সামনে। আর মানুষের এই স্রোত পেছন থেকে ধাক্কা দিতে থাকলো লিভারপুলের সমর্থকে ভর্তি গ্যালারির ঐ অংশকে। ফলাফলটা হলো ভয়াবহ। নিরাপত্তা বেষ্টনী থাকায় পেছনের চাপে চিড়ে-চ্যাপ্টা হতে থাকলো সামনের মানুষগুলো। একপর্যায়ে অবস্থাটা এমন দাঁড়াল যে, জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কিছু মানুষ উঠে যেতে চাইলেন উপরের গ্যালারিতে। কিন্তু, সেটাও যে মানুষে পরিপূর্ণ!
ব্যর্থ হয়ে নিরাপত্তা বেষ্টনীর সাথে সেটিয়ে যেতে হলো তাদের। কিন্তু, পেছনে মানুষের ক্রমবর্ধমান চাপ থামার কোন লক্ষণ নেই। মানুষের এই প্রবল স্রোত সইতে না পেরে একপর্যায়ে ভেঙ্গেই গেল সামনের নিরাপত্তা বেষ্টনী। ম্যাচের তখন চলছে সাত মিনিট। পাহাড় থেকে লাফিয়ে পড়ার মতোই একের পর এক রেডস সমর্থক পড়তে শুরু করলেন নিচে। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হলো অনেকের।

অন্যদের জন্য অপেক্ষা করছিল আরো যন্ত্রণাদায়ক মৃত্যু। নিজ দলের সমর্থকদের পদদলিত হয়ে মারা গেলেন তারা। যারা বেঁচে গেলেন তাদেরও দীর্ঘদিন ভুগতে হলো অসহ্য যন্ত্রণায়। কয়েকদিন পরে জানা গেল, মোট ৯৬ জন লিভারপুল সমর্থককে প্রাণ হারাতে হয়েছে সেদিন। আর আহতের সংখ্যাটা ছিল ৭৬৬।

ক্রীড়াজগতের ইতিহাসে অন্যতম বেদনাদায়ক দিনটির ঘটনাগুলো ছিল এমনই। যেটি পরবর্তীকালে পরিচিতি পায় ‘হিলসব্রো ট্রাজেডি’ নামে। অবশেষে সেই ঘটনার ২৬ বছর পর দেয়া হলো রায়। বলা হলো ভুল ছিল কর্তৃপক্ষের।

সিদ্ধান্ত জানানোর পর নিহতের পরিবার আনন্দে মেতে উঠে। সবাই একে অপরকে জড়িয়ে ধরে।

140911_1বিচারক মণ্ডলী এদিন বেশিকিছু সিদ্ধান্তে পৌঁছায়
১. পুলিশের ভুলেই এমন ভয়াবহ পরিস্থিতির তৈরি হয়
২. কমান্ডিং অফিসারদের সিদ্ধান্তের ভুলে বেস্টনী ভেঙে পড়ে
৩. প্রবেশ ও বাহিরের রাস্তা নিয়ে পুলিশ কন্ট্রোল বক্সের ভুল ছিল
৪. স্টেডিয়াম নির্মাণের ভুলের কারণও এই ঘটনার জন্য দায়ী
৫. হিলসব্রো স্টেডিয়ামে নিরাপত্তা সমস্যা ছিল
৬. এতবড় ঘটনাকে গুরুত্বসহকারে ঘোষণা দেয়নি পুলিশ
৭. জরুরি ভিত্তিতে অ্যাম্বুলেন্সও আনা হয়নি

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: