সর্বশেষ আপডেট : ৭ মিনিট ৪৫ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

শাবনূরের নতুন মিশন

11441_sabnurবিনোদন ডেস্ক::
ঢাকাই ছবির একসময়ের হার্টথ্রব শাবনূর অনেকদিন ধরেই বসবাস করছেন অস্ট্রেলিয়ায়। কিন্তু মন পড়ে থাকে তার দেশে। তাইতো সুযোগ পেলেই ছুটে আসেন নিজের মাতৃভূমিতে। দিনকয়েক আগে আবার দেশে এসেছেন তিনি। আর এসেই ভাবছেন নতুন মিশনের কথা। কি সেই মিশন জানতে চাইলে মুচকি হেসে বললেন, অপেক্ষা করুন। চমক রয়েছে। সময় হলেই জানাবো। কাজপাগল এ অভিনেত্রী প্রবাসে কাজের বাইরে দেশের কথা আর দেশের চলচ্চিত্রের সার্বিক অবস্থা নিয়েই ভাবেন সবসময়।

সেই ভাবনার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, এখন মানুষের জীবনযাত্রা কঠিন হয়ে গেছে। মানুষ কাজের বাইরে কোনো কিছু নিয়ে চিন্তা করছে না। আর বিনোদন নিয়ে ভাববে কি। বেশিরভাগ বিনোদনই তো যার যার ঘরে টিভির রিমোটে বন্দি হয়ে গেছে। আগে সিনেমাপ্রেমীরা হলে গিয়ে সিনেমা দেখতো। এখন শুনি সে অবস্থা নেই। আর থাকবে কি করে! চলচ্চিত্রের সময়টাই তো ভালো যাচ্ছে না।

চলচ্চিত্রের কাহিনী লেখকসহ অনেক মেধাবী মানুষ গালে হাত দিয়ে বসে আছেন। তারা ভালো সময়ের অপেক্ষায় রয়েছেন। এবার দেশে আসার উদ্দেশ্য কি জানতে চাইলে শাবনূর বলেন, নির্দিষ্ট কোনো উদ্দেশ্য নিয়ে আসিনি। আমি অস্ট্রেলিয়া থাকলেও মন আমার সারাক্ষণ দেশেই পড়ে থাকে। কারণ, দেশই তো আমার সব। এ দেশ, দেশের মানুষের কারণেই আমি আজকের শাবনূর। অতএব, এ দেশে ফিরতে কোনো উদ্দেশ্য লাগে না। মাটির টানেই বারবার ফিরে আসি দেশমাতৃকার কোলে। এবার কি নতুন কোনো ছবির কাজ করবেন জানতে চাইলে শাবনূর বলেন, শিগগিরই মোস্তাফিজুর রহমান মানিকের একটি চলচ্চিত্রের কাজ করবো।

তবে গরমটা একটু কমলে। চলচ্চিত্রে অভিনয়ের ক্ষেত্রে বরাবরই বেশকিছু বিষয়ে নজর দেন এ অভিনেত্রী। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ভালো গল্প না হলে আমি সেই চলচ্চিত্রে নেই। কারণ, একটি চলচ্চিত্রের মূল প্রাণ গল্প। আমি সেরকম একটি গল্পের অপেক্ষায় রয়েছি। মানুষ যেন গল্পটির চিত্রায়ণ দেখে কাঁদেন, হাসেন। মানুষের জীবনের কথা চলচ্চিত্রের গল্পে দেখাতে হয়। কারণ, সেটাই একজন পরিচালকের মূল শক্তি। এ প্রজন্মের অনেক অভিনেতা-অভিনেত্রীকে নিয়ে নির্মাতারা নিত্যনতুন আঙ্গিকের চলচ্চিত্র নির্মাণ করলেও তেমন আলোচনায় আসছেন না তারা।

এর কারণ হিসেবে শাবনূর মনে করেন, চলচ্চিত্র কোনো না কোনো কারণে ভালো হচ্ছে না। আর তাই ভালো কিছু মুখ চলচ্চিত্রে এলেও তারা টিকে থাকছেন না। ভালো কাজের জন্য ইচ্ছে বা অপেক্ষাটাও জরুরি। এছাড়া চলচ্চিত্রের প্রতি ভালোবাসাও থাকতে হবে তাদের। এদিকে তার দেশে না থাকার কারণে আটকে থাকা বদিউল আলম খোকন পরিচালিত ‘পাগল মানুষ’ চলচ্চিত্রের কাজ গত দফায় দেশে এসে শেষ করেছেন শাবনূর। তবে কবে নাগাদ ছবিটি মুক্তি দেয়া হবে সেটা পরিচালকের ওপর নির্ভর করছে বলে জানিয়েছেন তিনি। দীর্ঘদিনের ফিল্ম ক্যারিয়ারে অভিনয় এখন করছেনই না। তাহলে কি শাবনূর নিজে কোনো চলচ্চিত্র প্রযোজনা ও পরিচালনার বিষয়ে ভাবছেন?

জানতে চাইলে বলেন, আমার ছেলে আইজান নিহান এখনও অনেক ছোট। কখন কি করে ফেলে তার ঠিক নেই। আমি চাই ও আরেকটু বড় হোক। তারপর এ পরিকল্পনা অবশ্যই রয়েছে। কারণ, এ দেশের চলচ্চিত্র আমাকে অনেক কিছু দিয়েছে। আর আমার নিজেরও অনেক কিছু করার ইচ্ছে রয়েছে। পরিচালনা বা প্রযোজনা করার ইচ্ছে অবশ্যই আছে। তবে সেটা এখনই না। বর্তমানে ছেলে আইজানের দেখাশোনাটাই আমার জন্য বেশি জরুরি। তবে ঐ যে বললাম, অপেক্ষায় থাকুন। মিশন একটা আছে সামনেই। বলা যায় বড় একটা চমকই হবে সেটা।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: