সর্বশেষ আপডেট : ৭ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

‘স্বাস্থ্যবতীদেরই সেক্সি মনে হয়’

43স্পোর্টস ডেস্ক ::

সানিয়া মির্জা ও মার্টিনা হিঙ্গিস নারীদের টেনিসে দ্বৈত র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ খেলোয়াড়। গত বছর উইম্বলডন ও ইউএস ওপেনের দ্বৈতে শিরোপা জয়ের পর এ বছর অস্ট্রেলিয়ান ওপেনেও জিতেছেন শিরোপা। টানা ৪১ ম্যাচ জেতার অনন্য নজির গড়েছেন তারা। দোহায় তাদের সে জয়রথ থামে। আর সর্বশেষ এই ইন্দো-সুইস জুটির রেকর্ডটা মোটেও সুখকর নয়। শেষ পাঁচ ম্যাচের তিনটিই হেরেছেন তারা। সর্বশেষ মিয়ামি মাস্টর্সেও হার দেখেন সানিয়া-হিঙ্গিস। সম্প্রতি ‘টাইমস অব ইন্ডিয়া’কে লম্বা এক সাক্ষাৎকার দিয়েছেন ভারতের টেনিস তারকা সানিয়া মির্জা। সেখান থেকে চুম্বক অংশ তুলে ধরা হলো-
ক্স সর্বশেষ ৫ ম্যাচের তিনটিতেই হারলেন। এমন হারে কি হতাশা কাজ করে না?
সানিয়া: টানা অনেক ম্যাচ হারলে একজন খেলোয়াড়ের মধ্যে হতাশা কাজ করতে পারে। কিন্তু আমরা তো এমন হারের মধ্যে নেই। দুই-তিনটা ম্যাচ হেরেছি। হ্যাঁ, আমরা যদি সামনে টানা আরও ১০ ম্যাচ হারি তাহলে অবশ্যই হতাশা কাজ করবে। কিন্তু আমরা ছন্দে ফেরার চেষ্টা করছি। সে (মার্টিনা হিঙ্গিস) বিশ্বের সেরা দ্বৈত খেলোয়াড়। আমিও অন্যতম সেরা দ্বৈত খেলোয়াড়। চেষ্টা করলে সুসময় ফিরতে সময় লাগবে না। আমরা যে টানা ৪১ ম্যাচ জিতেছিলাম তা এমনি হয়নি। সব ম্যাচ যে, আমরা ভালো খেলেছি তা নয়। তবে নিজেদের সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করেছি।
ক্স আপনার ব্যক্তিত্বটা কেমন। কোন শক্তিবলে আপনি আরও ওপরে উঠছেন?
সানিয়া: আমি খুবই কঠিন প্রকৃতির মানুষ। কোর্ট এবং কোর্টের বাইরে আমার কঠোরতা দেখেছেন। আমার ভালো আবেগ, খারাপ আবেগ, রাগ-ক্ষোভ ও সুখ সবই আছে। তবে এটা তো আর সবার সামনে দেখানো সম্ভব হয় না। নিজেকেই নিজে দেখাই। আমি একা একা থাকলে এই বিষয়গুলো নিজেকেই দেখাই। কখনও কখনও খুবই কাছের কাউকে বলি কিংবা দেখাই। আমার ক্যারিয়ারটা যখন দুঃসময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছিল তখন আমি বাড়ি ফিরে আয়নার সামনে দাঁড়াতাম। নিজেকে নিয়ে নিজেই কাটাছেঁড়া করতাম। নিজেকেই প্রশ্ন করতাম। আমি আমার দুর্বলতা ও সবলতা জানি। দুর্বলতাকে স্বীকার করতে কোনো দোষ মনে করি না। আমি হয়তো বিশ্বের সেরা দ্বৈত খেলোয়াড়ের একজন। কিন্তু আমার যে ভুল হবে না তা নয়। আমার পায়ের কোনো লিগামেন্ট ক্ষতিগ্রস্ত হলে সেটা ঠিক করার জন্য যা যা প্রয়োজন তাই করতে হবে। তবে প্রতিদিন সেটা করা সম্ভব হয় না। আপনি দীর্ঘদিন খেলতে থাকলে প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে খুব ফুরফুরে থাকবেন তা নয়। প্রতিদিন জিমে যেতে পারবেন না। আপনার মধ্যে ক্লান্তি কাজ করবেই। আর আমার বলতে দ্বিধা নেই- এটা আমার একটা দুর্বলতা। আজ যা করলাম কালও তা করতেই হবে- এটা আমার দিয়ে হয় না। সবার ভেতরে কিছু দুর্বলতা থাকে। তবে আপনি যখন কোর্টে খেলবেন তখন আপনার মধ্যে অন্য ধরনের ব্যক্তিত্ব কাজ করবে। আপনার দিকে সবাই চেয়ে থাকে। আপনার কাছ থেকে ভালো ফল আশা করে।
ক্স শরীরের দিকে তাকিয়ে মনে হয় না আপনি প্রতিদিন জিম করেন। ভারি ওজন…
সানিয়া: ফিটনেস ধরে রাখার জন্য প্রত্যেকের আলাদা পদ্ধতি আছে। আমার শারীরিক গঠনটা এমন যে, আমার ওজন কত তা দিয়ে কোনোকিছু বিচার করা যাবে না। আমি খুব বেশি ভারি নই। শরীরের গঠন কেমন হলো, কতটা হালকা-পাতলা হলাম, এটা নিয়ে আমার মাথাব্যথা নেই। আমার কাছে সবার আগে টেনিস। টেনিস খেলার জন্য যেমন ফিট থাকা দরকার তেমন থাকলেই হলো। যদি টেনিস ভালো না খেলি আর শরীরটাকে হালকা-পাতলা করে ফেলি তাহলে মনে হয় না কেউ আমার সঙ্গে ছবি তুলতে আসবে। টেনিসের কারণেই সবাই আমার সঙ্গে ছবি তুলতে চায়। ফিটনেস বলতে নিজের শক্তিটাকে যথাযথ ব্যবহার করা- মনে হয়। আর হালকা-পাতলা হওয়াকে আমার কাছে কোনোকিছুর মাপকাঠি মনে হয় না। আর সেক্সির কথা বলছেন। আমার মনে হয়, শক্তিটাই সেক্সি। হালকা-পাতলা শরীর আমার কাছে আকর্ষণীয় মনে হয় না। স্বাস্থ্য, শক্তি ও মাসল থাকলে বরং সেই মেয়েকে বেশি আকর্ষণীয় মনে হয়।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: