সর্বশেষ আপডেট : ৯ মিনিট ১৮ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সিলেট বিভাগের ৬১ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন যারা…

daily sylhet 0-73 UbDWস্টাফ রিপোর্টার::
সিলেট বিভাগের ৬১টি ইউনিয়নের মধ্যে আওয়ামী লীগ ২৩টিতে , বিএনপি ১৫টিতে , আওয়ামী লীগ ও বিএনপির বিদ্রোহীরা ১৪টিতে, জাতীয় পার্টি ১টিতে, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ১টিতে ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ৭ টিতে বিজয়ী হয়েছেন।

সিলেট জেলার দুই উপজেলার ১৫ ইউনিয়নের ছয়টিতে আওয়ামী লীগ, তিনটিতে বিএনপি ও পাঁচটিতে স্বতন্ত্র এবং একটিতে বিএনপির বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

প্রার্থীদের সূত্রে এ তথ্য পাওয়া গেলেও রাত ১০টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত উপজেলা প্রশাসনের কন্ট্রোল রুম থেকে ফলাফল ঘোষণা করা হয়নি।

সিলেট বিভাগের ৭ উপজেলার ৬১টি ইউনিয়নের ফলাফল নিম্নে তুলে ধরা হলো-
জৈন্তাপুর:

তৃতীয় ধাপে সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার ৬টি ইউনিয়ন ৫৬টি ভোট কেন্দ্রে নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে৷ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ ২টি, বিএনপি ২টি ও সতন্ত্র ২টি ইউনিয়নে নির্বাচিত হয়েছে৷

১নং নিজপাট ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের প্রার্থী মঞ্জুর এলাহী সম্রাট নৌকা প্রতীক নিয়ে ৫৮২৪ ভোট বিজয়ী হয়েছেন৷ তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ইন্তাজ অালী ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে ৩৯৮১ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছে।

২নং জৈন্তাপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের মোঃ এখলাছুর রহমান নৌকা প্রতীক নিয়ে ৫০৫৭ ভোটে বিজয়ী হয়েছেন৷ তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ধানেরশীষ প্রতীক নিয়ে ৪০৫০ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছে।

৩নং চারিকাটা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী শাহ অালম চৌধুরী তোফায়েল অানারস প্রতীক নিয়ে ৩৮৫৩ বিজয়ী হয়েছেন৷ তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী সুলতান করিম ঘোড়া প্রতীক নিয়ে ৩০৯৫ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছে।

৪নং দরবস্ত ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে বিএনপির প্রার্থী বাহারুল অালম বাহার ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে ৮১৫৬ বিজয়ী হয়েছেন৷ তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী কামাল অাহমদ নৌকা প্রতীক নিয়ে ৬৮৮৪ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছে।

৫নং ফতেহপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে বিএনপির প্রার্থী মোঃ অাব্দুর রশিদ ধানেরশীষ প্রতীক নিয়ে ৫৩৮৩ বিজয়ী হয়েছেন৷ তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মোঃ রফিক অাহমদ নৌকা প্রতীক নিয়ে ৩০০৯ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছে।

৬নং চিকনাগুল ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী অামিনুর রশিদ অানারস প্রতীক নিয়ে ৪২৮৬ বিজয়ী হয়েছেন৷ তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির প্রার্থী ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে এবিএম জাকারিয়া ৩৪০০ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছে৷
কানাইঘাট::

কানাইঘাট উপজেলার এ ইউনিয়নগুলোর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ীদের মধ্যে ৬ টিতে আওয়ামী লীগ ও ৩ টিতে বিএনপি প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। দুটিতে বিএনপির বিদ্রোহী ও একটিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন।

কানাইঘাটের বিজয়ীরা হলেন লক্ষ্মীপ্রসাদ পূর্ব ইউনিয়ন ডা. ফয়েজ উদ্দিন (স্বতন্ত্র), লক্ষ্মীপ্রসাদ পশ্চিম ইউনিয়নে জেমস ফার্গুসন নানকা (আওয়ামী লীগ), দীঘিরপাড় পূর্ব ইউনিয়নে আলী হোসেন কাজল (আওয়ামী লীগ), সাতবাক ইউনিয়নে মোস্তাক আহমদ পলাশ (আওয়ামী লীগ), বড় চতুল ইউনিয়নে মাওলানা আবুল হোসেন (স্বতন্ত্র), কানাইঘাট সদর ইউনিয়নে মামনুর রশীদ (বিএনপি), দক্ষিণ বানীগ্রামে মাসুদ আহমদ (আওয়ামী লীগ), ঝিঙ্গাবাড়ি ইউনিয়নে আব্বাস উদ্দিন (বিএনপি বিদ্রোহী)ও রাজাগঞ্জ ইউনিয়নে ফখরুল ইসলাম (স্বতন্ত্র)।
বানিয়াচং::

জেলার বানিয়াচং সদর উত্তর-পূর্ব ইউনিয়নে গিয়াস উদ্দিন (বিএনপি), উত্তর-পশ্চিম ইউনিয়নে ওয়ারিশ উদ্দিন খান (বিএনপি), সদর দক্ষিণ-পূর্ব ইউনিয়নে মাওলানা হাবিবুর রহমান (জামায়াত), সুবিদপুর ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আবুল কাশেম চৌধুরী (আ’লীগ), মক্রমপুর ইউনিয়নে মো. আহাদ মিয়া (আ’লীগ), পৈলারকান্দি ইউনিয়নে ফজলুর রহমান খান (আ’লীগ), মুরাদপুর ইউনিয়নে মো. মধু মিয়া (বিএনপি), কাগাপাশা ইউনিয়নে এরশাদ আলী (আ’লীগ), খাগাউড়া ইউনিয়নে শাহ শওকত আরেফীন সেলিম (আ’লীগ), মন্দরী ইউনিয়নে শেখ সামছুল হক (আ’লীগ), বড়ইউড়ি ইউনিয়নে হাবিবুর রহমান (আ’লীগ), দৌলতপুর ইউনিয়নে লুৎফুর রহমান (আ’লীগ) ও পুকড়া ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন (আ’লীগ বিদ্রোহী) বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

 

কুলাউড়া::

কুলাউড়া উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের নির্বাচন ২৩ এপ্রিল শনিবার শান্তিপূর্ণ ভাবে সম্পন্ন হয়েছে। আওয়ামীলীগ ২ জন, বিএনপি ২ জন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ৩ জন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

বরমচাল ইউনিয়নে মোঃ আব্দুল আহবাব চৌধুরী (নৌকা) ৩৮৬১ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী আব্দুল মুক্তাদির মুক্তার (ধানের শীষ) পেয়েছেন ২৪৭৫ ভোট।

ভূকশিমইল ইউনিয়নে আজিজুর রহমান (ধানের শীষ) ৪৮৩০ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী রফিকুল ইসলাম রেনু (নৌকা) পেয়েছেন ৪৩৭৭ভোট।

জয়চন্ডি ইউনিয়নে কমর উদ্দিন আহমদ কমরু (আনারস) ৭৩৩৯ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী মোঃ আব্দুর রব মাহবুব (নৌকা) পেয়েছেন ৬৩৫৫ ভোট।

ব্রাহ্মনবাজার ইউনিয়নে মমদুদ হেসেন (নৌকা) ৪৭৪০ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী মুহিবুর রহমান (মোটর সাইকেল) পেয়েছেন ৩১৭৮ ভোট।

কাদিপুর ইউনিয়নে হাবিবুর রহমান ছালাম (ধানের শীষ) ৪৯৭৯ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী আলমগীর আলম সাহান (আনারস) পেয়েছেন ৩০৪৮ ভোট।

কুলাউড়া সদর ইউনিয়নে নার্গিস আক্তার বুবলী (আনারস) ২১৮৯ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী লুৎফুর রহমান চৌধুরী (নৌকা) পেয়েছেন ১৯৯৩ ভোট।

রাউৎগাঁও ইউনিয়নে আব্দুল জলিল জামাল (আনারস) ৪১০২ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী আব্দুল মুহিত সোহেল (ধানের শীষ) পেয়েছেন ৩২৩৭ ভোট। কোথায় কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। আগামী ৭মে অবশিষ্ট ৬টি ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।
সুনামগঞ্জ::

সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার ৯ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৫টিতে বিএনপির চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীরা বিপুল ভোটের ব্যাবধানে বিজয়ী হয়েছেন। ২টিতে নির্বাচিত হয়েছেন ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের প্রার্থীরা। অপর ২টিতে জাতীয় পার্টি ও জমিয়তুল উলামায়ে ইসলামের প্রার্থী জয়লাভ করেছেন।

রঙ্গারচর ইউনিয়নে নির্বাচিত হয়েছেন জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য আব্দুল হাই। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামীলীগের প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ। জাহাঙ্গীর নগর ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা মকসুদ আলী নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আব্দুল কাদের।

সুরমা ইউনিয়নে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামীলীগের নবাগত প্রার্থী আব্দুস সাত্তার ডিলার। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি একই দলের বিদ্রোহী প্রার্থী আমির হোসেন রেজা। কুরবান নগর ইউনিয়নে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আবুল বরকত নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামীলীগের প্রার্থী কোহিনূর আলম।

মোল্লাপাড়া ইউনিয়নে নির্বাচিত হয়েছেন বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী নুরুল হক। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামীলীগের প্রার্থী আব্দুস ছোবহান। লক্ষণশ্রী ইউনিয়নে নির্বাচিত হয়েছেন বিএনপির প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল অদুদ। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামীলীগের প্রার্থী হাজী ইয়াকুব বখত বহলুল। গৌরারং ইউনিয়নে নির্বাচিত হয়েছেন বিএনপির প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান ফুল মিয়া। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি জমিয়তের প্রার্থী মাওলানা আব্দুল ওয়াহাব। মোহনপুর ইউনিয়নে নির্বাচিত হয়েছেন জাতীয় পার্টির প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল হক। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামীলীগের প্রার্থী হাজী মাইন উল হক। কাঠইর ইউনিয়নে নির্বাচিত হয়েছেন জমিয়তুল উলামায়ে ইসলামের প্রার্থী মুফতি শামছুল ইসলাম। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি জাতীয় পার্টির প্রার্থী ফারুক আহমদ মেনর।

মনোনয়ন বাণিজ্যের আওতায় যেসব এলাকায় ধনকুবের প্রভাবশালীদেরকে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের প্রার্থী করা হয়েছিলো তাদের সকলকেই প্রত্যাখ্যান করেছেন সাধারন ভোটাররা। দু’একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ব্যাতিরেকে শনিবার সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় মোটামোটি শান্তিপূর্ণ নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে।

বিকেল সাড়ে ৩টায় ৩ শতাধিক জালভোট দিতে গিয়ে সুরমা ইউনিয়নের ইব্রাহিমপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে ৫জনকে আটক করে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। পরে তাদের প্রত্যেককে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

দোয়ারাবাজার:

উপজেলার সুরমা ইউপিতে আওয়ামী লীগের খন্দকার মামুনুর রশিদ, দোহালিয়া ইউপিতে আওয়ামী লীগের আনোয়ার মিয়া আনু, লক্ষীপুর ইউপিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী আমিরুল ইসলাম, নরসিংপুর ইউপিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী একেএম আইয়ুবুর রহমানী, বাংলাবাজার ইউপিতে আওয়াম লীগের বিদ্রোহী জসিম উদ্দিন রানা, মান্নারগাঁও ইউপিতে বিএনপির আবু হেনা আজিজ, দোয়ারাবাজার সদর ইউপিতে বিএনপির আব্দুল বারী, বোগলাবাজার ইউপিতে বিএনপির আরিফুল ইসলাম জুয়েল, পান্ডারগাঁও ইউপিতে বিএনপির বিদ্রোহী ফারুক আহমদ জয়ী হয়েছেন।

 
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ:

উপজেলার জয়কলস ইউপিতে আওয়ামী লীগের মো. মাসুদ মিয়া, দরগাপাশা ইউপিতে আওয়ামী লীগের মনির উদ্দিন, শিমুলবাঁক ইউপিতে আওয়ামী লীগের মিজানুর রহমান জিতু, পশ্চিম পাগলা ইউপিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী নুরুল হক, পশ্চিম বীরগাঁওয়ে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী শফিকুল ইসলাম, পাথারিয়া ইউপিতে বিএনপির আমিনুর রশীদ, পুর্ব পাগলা ইউপিতে বিএনপির বিদ্রোহী আক্তার হোসেন এবং পূর্ব বীরগাঁও ইউপিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী নুর কালাম জয়ী হয়েছেন।

 

উল্লেখ্য, তৃতীয় ধাপে সিলেট বিভাগের ৭ উপজেলার ৬১টি ইউনিয়নে নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে আজ শনিবার। সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত নিরবিচ্ছিন্নভাবে ভোটগ্রহণ শেষ হয়।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: