সর্বশেষ আপডেট : ৪ ঘন্টা আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

‘মন ভোলানো টিয়া’

full_604231015_1461413426ডেইলি সিলেট ডেস্ক: টিয়া (Parrot) Psittaciformes বর্গের অতি পরিচিত পাখি। এদের মাথা বড় ও ঠোঁট বাঁকানো হুকের মতো। এদের লেজ লম্বা। এরা মানুষের স্বর অনুকরণ করতে পারে এবং এদের মধ্যে প্যারাকিট, লাভবার্ড ও বাজারিগার ও সেসঙ্গে অপেক্ষাকৃত বড় আকারের ম্যাকাউ, আমাজান টিয়া, কাকাতুয়া ইত্যাদি পাখি রয়েছে। এদের জিহ্বা বেলুনাকার ও মাংসল। ফল ও বীজ খাওয়ার জন্য টিয়া ও এর স্বগোত্রীয়দের ঠোঁট মজবুত। বৃক্ষের শাখার ভিতর দিয়ে চলাচলের জন্য এরা কৌশলে এটিকে ব্যবহার করে। এদের পায়ের প্রথম ও চতুর্থ আঙুল পেছনমুখী। এসব আঙুলের সাহায্যে এরা হাতের অনুরূপ খাদ্যবস্তুকে ধরে নিয়ে মুখে পুরতে পারে, যা অন্য কোনো প্রজাতির পাখির মাঝে দেখা যায় না। অনেক ধরনের টিয়া দেখতে পাওয়া যায়। যেমন- বাসন্তী লটকন টিয়া, ফুলমাথা টিয়া, লালমাথা টিয়া, চন্দনা টিয়া, মেটেমাথা টিয়া, সবুজ টিয়া ইত্যাদি।

অধিকাংশ প্রজাতির টিয়া গাছে গর্ত খুঁড়ে বাসা বানায়। ছোট আকারের পাখির ১৬-১৯ এবং বড় আকারের পাখি প্রায় ৩০ দিন ডিমে তা’ দিয়ে বাচ্চা ফোটায়। তা’ দেয়ার পর ডিম ফুটে যে বাচ্চা বের হয় তা অন্ধ থাকে। বাসায় বাচ্চারা দুই থেকে তিন মাস পিতামাতার যত্নে কাটায় এবং এসময় বাচ্চাদের ওগরানো খাবার খাওয়ানো হয়। দীর্ঘদিন পিতামাতার যত্নে থাকার সঙ্গে এদের মগজের আকার বড় হওয়ার বিষয়টি সম্পর্কিত হতে পারে।

অনেক টিয়া ৫০ বছরেরও বেশি বাঁচে। আফ্রিকার ‘গ্রে’ টিয়া কথা বলায় সবচেয়ে চৌকষ, আমাজনের টিয়াও কথা বলে ভালো, যদিও এদের স্বর খুবই কর্কশ। টিয়ারা প্রাচীনকাল থেকেই পরিচিত। খাঁচায় পোষমানা পাখি হিসেবে এরা সবসময়ই জনপ্রিয়। কারণ এরা মানুষকে বিনোদন দেয়। বেশ বুদ্ধিমান এবং ঠোঁট ও পায়ের সাহায্যে নানা ধরনের খেলা দেখায়। মাঝে মাঝে ফল ও শস্য ক্ষেতে ঝাঁক বেঁধে আসে। ফলে শস্য ও ফল উৎপাদনের ক্ষেত্রে মারাত্মক হুমকির সৃষ্টি হয়। অন্যদিকে, এরা বহু আগাছার বীজ ধ্বংস করে। খাঁচায় পোষার জন্য টিয়া রপ্তানি একটি লাভজনক বাণিজ্য।

উষ্ণমণ্ডলীয় ও অর্ধ-উষ্ণমণ্ডলীয় অঞ্চলে প্রায় ৩৫০টি প্রজাতির অধিকাংশ টিয়া বাস করে, কিছু টিয়া আছে ভারত ও মধ্য আফ্রিকায়। বাংলাদেশে ছয় প্রজাতি টিয়ার মধ্যে চন্দনা অতি বিপন্ন।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: