সর্বশেষ আপডেট : ১ মিনিট ১ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

হাওররক্ষা বাঁধ নিয়ে জামালগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ও ইউএনওর বিরোধ

Jamalgonj-mapবিশেষ প্রতিনিধি::
জামালগঞ্জে হাওর রক্ষা বাঁধ নিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান ও ইউএনওর মত বিরোধ চলছে। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শামসুল আলম তালুকদার ঝুনু মিয়া ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা টিটন খীসার মধ্যে হাওরের পানি নিস্কাসন নিয়ে মত বিরোধ দেখা দিয়েছে।

সম্প্রতি উপজেলা চেয়ারম্যানের হাওর বিরোধী মনোভাব নিয়ে কর্মকান্ডে আরো বেশি দ্বন্দ্ব ফুটে উঠেছে। হালির হাওরের রাতলার স্লুইস গেইটের নিমজ্জিত জমি গুলো পানি নিস্কানের কাজে আপত্তি ও কাজের বিরোধিতা করে আসছেন।

এদিকে সুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন রাতলার স্লুইস গেইটে গিয়ে ৪টি পানির পাম্প মেশিন দেখে সন্তোষ প্রকাশ করে আরো ২টি মেশিন বসানোর জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নির্দেশ প্রদান করেন।

গতকাল শুক্রবার দুপুরে লেবারদের বিল ও কদিন ধরে হাওরের বিভিন্ন বাধে বস্তা, বাঁশ, কাট দাড়ির বিল নিয়ে গেলেও তিনি স্বাক্ষর না করে পাম্প মেশিন গুলো বন্ধ করে দেবার জন্য বলেন। এই ঘটনা জানাজানি হলে উপজেলার কৃষদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ ও উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। এই ঘটনার পর থেকে রাতলার স্লুইস গেইটের পাম্প মেশিনগুলো বন্ধ রয়েছে। যার কারণে হালির হাওরের একটি অংশ তলিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। উপজেলা পরিষদ থেকে বিল না পাওয়ায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাও ইউপি সদস্যদের ডেকে অপরাগতা প্রকাশ করে মেশিনগুলো বন্ধ করার নির্দেশ দেন। চর্তুদিকে হাওরের বেড়িবাঁধ নিয়ে কৃষকরা যেমন দুশ্চিন্তায় আছেন তার চেয়ে বেশি রাতের শিলাবৃষ্টি আর ধান কাটার শ্রমিক নিয়ে। উপজেলার হাওর পাড়ের কৃষকরা তিন রকমের যুদ্ধ করছেন। একদিকে বাধ,শিলা বৃষ্টি ও অতি বৃষ্টি এর চেয়ে বড় সমস্যা শ্রমিক সংকট।

গত কদিনের টানা বর্ষন ও হালির হাওরের রাতলার স্লুইস গেইট দিয়ে পানি প্রবেশ করে হাওরের একটি অংশ নিমজ্জিত ছিলো। হালির হাওর পাড়ের গ্রামবাসী সহ, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ ও উপজেলার গনমাধ্যম কর্মিদের দাবির মুখে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাতলার স্লুইস গেইটে পানি নিস্কাসনের জন্য ৬টি পাম্প মেশিন লাগান। ৪টি মেশিন দিনে রাতে টানা ৮ দিন ধরে সেচের পর কৃষকদের অনেক জমিই কাটার পরিবেশ হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জামালগঞ্জ সদরের প্যানেল চেয়ারম্যান সহ ৩ জন ইউপি সদস্যকে যৌথ দায়িত্ব দিয়েছেন তদারকির জন্য। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, অফিসার ইনচার্জ সহ সাংবাদিকরা নিয়মিত পাম্প মেশিন গুলোর তদারকি করে আসছেন। হালির হাওর পাড়ের মমিনপুরের কৃষক আব্দুল আউয়াল জানান, মেশিন লাগানোর পর আমাদের ধান কাটতে সুবিধা হয়েছিলো, এখন বন্ধ হলে পানির জন্য আমরা আর জমিতে নামতে পারবো না।

সদরকান্দি, কালীপুর ও লম্বাবাকের একাধিক কৃষকও পানির পাম্প চালু রাখার জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের কাছে জোরালো দাবি জানিয়েছেন। ইউপি সদস্য মনির হোসেন ও আলী আক্কাছ মুরাদ জানান,রাতলার স্লুইস গেইট দিয়ে পানি প্রবেশ করে ও অতিবৃষ্টির কারনে জমিতে জলাবদ্ধতা দেখা দিলে স্থানীয় কৃষকদের দাবির পেক্ষিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমাদেরকে পাম্প মেশিন দিয়ে পানি নিস্কাসনের দায়িত্ব দেন। আমরা ৮ দিন দিনে রাতে নিস্কাসন করে যাচ্ছি, কিন্তু আমাদের কাজের বিল দিতে উপজেলা চেয়ারম্যান অস্কৃতি জানায়।

সদরের প্যানেল চেয়ারম্যান কামরুল ইসলাম জানান, উপজেলা চেয়ারম্যান ঝুনু মিয়া একদিনও বান্ধে গেছেনা,আমরা দিন রাত কষ্ট কইরা ইউএনও স্যারের অর্ডারে ভালা কাম করতাছি,তাইনের তা সহ্য অইতাছেনা,আমরার কামের বিরোধিতা ও আমরার বিল আটকাইয়া রাখছে। অখন আমরা মেশিনগুলো বন্ধ কইরা দিমু।
সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ইউসুফ আল আজাদ বলেন, আমি উপজেলা চেয়ারম্যানকে ফোনে রাতলার স্লুইস গেইটের পানি নিস্কাসনের ফাইলে বিলে স্বাক্ষর দিতে, না হলে রাষ্টদ্রোহীতার মামলা ও কৃষকদের তোপের মুখে পড়তে হবে।

উপজেলা চেয়ারম্যান শামসুল আলম ঝুনু বলেন, আমি ইউএনকে বলেছি,পাম্প মেশিন লাগানোতে কৃষকদের কি লাভ হয়েছে, দিনে পানি সেচে আর রাতে বৃষ্টিতে আবার হাওর ভরে যায়। কত খরছ হয়েছে আমি তদন্ত করে দিতে বলেছি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা টিটন খীসা বলেন, রাতলার স্লুইস গেইটের ভিতরে পানি প্রবেশ করায় স্থানীয় কৃষকদের দাবির পেক্ষিতে আমি সদর ইউনিয়নের মাধ্যমে পানি নিস্কাসনের জন্য ৬টি পাম্প মেশিন লাগিয়ে নিস্কাসন করায় অধিকাংশ কৃষকের ধান কাটতে পারছে। পানি নিস্কাসন ও বাশ বস্তা দাড়ি সহ ব্যয় বাবদ বিলে উপজেলা চেয়ারম্যান স্বাক্ষর দিচ্ছেন না। এখন বাধ্য হয়ে পাম্প মেশিনগুলো বন্ধ রাখতে হচ্ছে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: