সর্বশেষ আপডেট : ১২ মিনিট ৪৯ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সাকার স্ত্রী-ছেলেসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু

Saka20160421170647নিউজ ডেস্ক::
মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ফাঁসি কার্যকর হওয়া বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর রায়ের খসড়া কপি ফাঁসের ঘটনায় তথ্যপ্রযুক্তি আইনে করা মামলায় তার স্ত্রী ফারহাত কাদের চৌধুরী ও ছেলে হুম্মাম কাদের চৌধুরীসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সাক্ষ্যগ্রহণের সময় মামলার আসামি মাহবুবুল হাসান ও নয়ন আলীকে আদালতে হাজির করা হয়। তবে অপর আসামি এবং আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের কর্মচারী ফারুক আহমেদকে জামিন দেন আদালত।

এ মামলায় জামিনে থাকা অন্য আসামিদের মধ্যে সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর স্ত্রী ফারহাত কাদের চৌধুরী, ছেলে হুমাম কাদের চৌধুরী, সাকার আইনজীবী ব্যারিস্টার এ কে এম ফখরুল ইসলাম আদালতে উপস্তিত ছিলেন। তবে ব্যারিস্টার ফখরুল ইসলামের জুনিয়র আইনজীবী মেহেদী হাসান মামলার শুরু থেকেই পলাতক।

বৃহস্পতিবার মামলার বাদী ডিবির পরিদর্শক ফজলুর রহমান সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনালে হাজির হয়ে তিনি তার জবানবন্দি পেশ কেরন। পরে মামলার কার্যক্রম মূলতবি করে পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী রোববার (২৪ এপ্রিল) দিন ঠিক করেন। সাকার আইনজীবী অ্যাডভোকেট হুজ্জাতুল ইসলাম আল ফেসানী এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বৃহস্পতিবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক কেএম শামসুল আলম এই আদেশ দেন। আদালতের শুনানিতে ছিলেন হুজ্জাতুল ইসলাম আল ফেসানী ও পারভেজ চৌধুরী। হুজ্জাত বলেন, এরআগে গত ২৮ মার্চ হরতালের কারণে আসামিদেরকে আদালতে হাজির করতে না পারায় রাষ্ট্রপক্ষ সাক্ষ্যগ্রহণ পেছানোর জন্য সময় আবেদন করে মামলার শুনানি মূলতবি করেন। ওই দিন সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য ২১ এপ্রিল দিন ধার্য করেছিলেন আদালত। আজ সাক্ষীর জবানবন্দি গ্রহণ শেষে জেরার কার্যক্রম শুরু হয়। পরে মামলা মূলতবি করা হয়।

মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় ২০১৩ সালের ১ অক্টোবর বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাউদ্দিন কাদেরকে মৃত্যুদণ্ড দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। তবে রায়ের আগেই সালাউদ্দিনের স্ত্রী, পরিবারের সদস্য ও আইনজীবীরা রায় ফাঁসের অভিযোগ তোলেন। রায় ঘোষণার দিন পরিবারের সদস্য ও আইনজীবীরা রায়ের খসড়া কপি সংবাদকর্মীদের দেখান।

রায় ঘোষণার পরদিন ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার এ কে এম নাসির উদ্দিন মাহমুদ বাদী হয়ে ২ অক্টোবর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে শাহবাগ থানায় মামলা করেন। ওই বছরের ৪ অক্টোবর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শক ফজলুর রহমান বাদী হয়ে শাহবাগ থানায় আরেকটি মামলা করেন।

২০১৪ সালের ২৮ আগস্ট ডিবির পরিদর্শক মো. শাহজাহান ব্যারিস্টার ফখরুল ইসলামসহ সাতজনের বিরুদ্ধে সিএমএম আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করেন।

মামলার অপর আসামিরা হলেন সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর ম্যানেজার একেএম মাহবুবুল হাসান, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের অফিস সহকারী ফারুক হোসেন, পিয়ন নয়ন আলী ও ব্যারিস্টার ফখরুল ইসলামের জুনিয়র আইনজীবী মেহেদী হাসান।

২০১৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক কে এম সামসুল আলম আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: