সর্বশেষ আপডেট : ২ মিনিট ৪৮ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে তাঁতিপাড়ার ঝুঁকিপূর্ণ সেই বাসা

30স্টাফ রিপোর্টার : সিলেট নগরীর তাঁতিপাড়ার সেই বাসাটি ভেঙ্গে ফেলা হচ্ছে। সকাল ১১টায় কর্পোরেশন বাসাটি ভাঙ্গার কাজ শুরু করে। ওই বাসার মালিক হচ্ছেন দি এইডেড হাইস্কুলের সাবেক শিক্ষক ফজলুল হক।

সূত্র জানায়, গত দুইদিন থেকে নগরীর ঝুঁকিপূর্ণ ভবনগুলো খালি করতে মাইকিং করা হচ্ছে। মাইকিংয়ের সময় বলা হচ্ছে- ‘নিরাপত্তার জন্য জানানো যাচ্ছে যে এই বাসা ভূমিকম্পের ঝুঁকিতে রয়েছে। বসবাস করা মোটেই নিরাপদ নয়। যাঁরা বসবাস করছেন, জানমাল রক্ষার স্বার্থে সত্ত্বর বসবাস গুটান…।’

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিভিল এন্ড এনভায়রনমেন্টাল ইঞ্জিনিয়ারিং (সিইই) বিভাগের সাবেক বিভাগীয় প্রফেসর ড. জহির বিন আলম জানান, তাদের বিভাগের পক্ষ থেকে কয়েক বছর আগে সিলেট নগরীর শতাধিক ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের সায়েন্টিফিক অ্যাসেসম্যান্ট করা হয়। এ অনুযায়ী নগরীর ঝুঁকিপূর্ণ ভবনসমূহকে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ভাগ করা হয়েছে। এর মধ্যে ২৭-৩২টি ভবনকে তারা ঝুঁকিপূর্ণ হিসাবে চিহ্নিত করেন। এর মধ্যে ২৩টি ভবনকে ‘ভয়ংকর’ হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে এবং এগুলোর ব্যাপারে সিটি কর্পোরেশনকে ‘ত্বরিৎ’ পদক্ষেপ গ্রহণের পরামর্শ দেয়া হয়েছে। এসব ভবনকে কোন কোনটিকে ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে, কোনটিকে রেট্রোফিটিং এবং ওজন কমাতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি বাকি ভবনগুলোর মধ্যে কোনটা হেলে পড়েছে কিংবা দেবে গেছে। এগুলোর কাঠামো ঠিক করে ‘রিনোভেশন ওয়ার্ক’ করতে হবে।

গত বুধবার সিলেটসহ সারাদেশে রিখটার স্কেলে ৬.৯ মাত্রার অনুভূত হওয়ার পর সিসিক কর্তৃপক্ষ নড়েচড়ে বসেন। নতুন করে শুরু হয় নোটিশ জারি। খালি করার নির্দেশ দেয়া হয় ঝুঁকিপূর্ণ ভবনগুলো। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ভবন খালি করা না হলে সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে ভেঙে ফেলারও সতর্ক বার্তা জারি করা হয়।

গত রোববার সিলেট নগরীর তাঁতীপাড়ার ৯ নম্বর বাসার মালিককে তার ঝুঁকিপূর্ণ বাসাটি খালি করার নির্দেশ দিয়ে নোটিশ পাঠায় সিসিক। তিন দিনের সময় বেঁধে দিয়ে বাসার মালিককে জানানো হয়েছে স্বেচ্ছায় তিনি বাসা খালি না করলে বৃহস্পতিবার সিটি করপোরেশন বাসাটি ভেঙে ফেলবে। বুধবার বাসার মালিককে চূড়ান্ত নোটিশ পাঠানো হয়। এর আগেও একাধিকবার ওই ভবন মালিককে নোটিশ দেয়া হলে তিনি বাসা খালি করেননি।

এছাড়া সিটি করপোরেশনের মালিকানাধীন সিটি সুপার মার্কেটের ব্যবসায়ীদেরও মার্কেট খালি করার নোটিশ দেয়া হয়েছে। ওই মার্কেটে প্রায় ৩৫০টি দোকান রয়েছে। আগামী একসপ্তাহের মধ্যে মার্কেট খালি করে অন্যত্র সরে যেতে সিসিক’র পক্ষ থেকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সরে না গেলে সিটি করপোরেশন ‘অ্যাকশনে’ যাবে বলে নগরভবন সূত্র জানিয়েছে।
এ দুইটি স্থাপনা ছাড়াও সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে আরো কয়েকটি ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের মালিকদের নোটিশ করা হয়েছে। তাদেরকেও স্থাপনাগুলো খালি করতে সময় বেঁধে দেয়া হচ্ছে।

এ ব্যাপারে সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবীব জানান- শাহাজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞদের দিয়ে নগরীর ৩২টি ঝুঁকিপূর্ণ ভবন চিহ্নিত করা হয়েছিল। এর মধ্যে বাসা-বাড়ি ছাড়াও রয়েছে কালেক্টরেট ভবন-৩, এসএ রেকর্ড রুম, কাস্টমস ও ভ্যাট অফিসসহ কয়েকটি সরকারি ভবন।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: