সর্বশেষ আপডেট : ৩৪ মিনিট ৩৩ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জামালগঞ্জে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করে ধর্ষণের ভিডিও ইন্টারনেটে : গ্রেপ্তার ২

2. daily sylhet dhorshonজামালগঞ্জ সংবাদদাতা::
প্রেমিক সেজে প্রেমের অভিনয় করে স্কুলছাত্রী প্রেমিকার মন ভুলিয়ে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে নৌকায় ধর্ষণ করে এক বখাটে। ঘনিষ্ট এক বন্ধুকে দিয়ে ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করা হয়। পরে ওই ভিডিও ক্লিপটি ছড়িয়ে দেওয়া হয় ইন্টারনেটে। বিষয়টি স্কুলছাত্রীর পরিবারের নজরে আসায় থানায় মামলা দায়ের হয়। এরপর পুলিশ ওই ভিডিও ধারণকারী ও নৌকার মাঝিকে গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো নৌকার মাঝি একই গ্রামের বাবুল মিয়ার ছেলে হাবিবুর রহমান (২২) ও ভিডিও ধারনকারী শুকুর আলীর ছেলে আল ইসলাম (২১)। জঘন্য এই ঘটনাটি ঘটেছে জামালগঞ্জ উপজেলার সুরমা নদীতে।

ধর্ষক ফরহাদ মিয়ার বাড়ি জামালগঞ্জ উপজেলার সাচনাবাজারের পাশ্ববর্তী মফিজনগর গ্রামে। সে গ্রামের সিদ্দিক মিয়ার ছেলে। তবে ঘটনার মূল আসামী বখাটে ফরহাদ এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে। পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করার জন্য খোঁজছে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, মফিজনগর গ্রামের সিদ্দিক মিয়ার ছেলে বখাটে ফরহাদ মিয়া (২২) সাচনা কালীবাড়ি গ্রামের ৭ম শ্রেণীর এক স্কুলছাত্রীর সাথে প্রেমের অভিনয় করে। গত ৩০ মার্চ তাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে নৌকায় করে সুরমা নদীতে ঘুরতে যায়। পরে ওই নৌকায় তাকে ধর্ষণ করে। এসময় তার বন্ধু গ্রামের শুকুর আলীর ছেলে আল ইসলামকে দিয়ে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ধর্ষণের ভিডিও চিত্র ধারণ করে রাখে। ধর্ষণের বিষয়টি কাউকে না জানানোর জন্য শাসিয়ে দেয়া হয় মেয়েটিকে। পরে ভিডিও ধারনকারী আল ইসলাম বন্ধুর প্রেমিকাকে কু-প্রস্তাব দেয়। এতে ওই স্কুলছাত্রী রাজী না হওয়ায় ধর্ষণের ভিডিও ক্লিপটি ইন্টারনেটে ছেড়ে দেয় সে। ভিডিও ক্লিপটি বাজারের কম্পিউটার ব্যবসায়ীর দোকান হয়ে এলাকার যুবকদের হাতে পৌঁছে যায়।

এক পর্যায়ে বিষয়টি ওই ছাত্রীর পরিবারের নজরে পড়ে। এ ঘটনায় গত ১৭ এপ্রিল অভিযুক্ত ফরহাদ, আল ইসলাম ও হাবিবুর রহমানকে আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন এবং তথ্য প্রযুক্তির অপব্যবহার আইনে মামলা দায়ের করেন ছাত্রীর বাবা। পুলিশ রাতেই আল ইসলাম ও হাবিবুর রহমানকে গ্রেপ্তার করে। পর দিন ১৮ এপ্রিল সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে ওই ছাত্রীর মেডিকেল পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। আদালতে ১ম শ্রেণীর জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে জবানবন্দি দিয়েছে ধর্ষণের শিকার মেয়ে।

জামালগঞ্জ থানার ওসি মো. আতিুকর রহমান বলেন, ‘ওই স্কুলছাত্রীকে অপহরণ করে ধর্ষণের পর ভিডিও চিত্র প্রচার করার অভিযোগে থানায় তিনজনের নামে মামলা দায়ের হয়েছে। ঘটনার ভিডিও চিত্র ধারণকারী আল ইসলাম, নৌকার মাঝি হাবিবুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মূল আসামী ফরহাদ পলাতক আছে। ছাত্রীর মেডিকেল পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে এবং সে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে। মেডিকেল রিপোর্ট ও আদালতের জবানবন্দি আমাদের হাতে এসে পৌঁছেনি। পুলিশ মূল আসামী ফরহাদ মিয়া গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: