সর্বশেষ আপডেট : ৪ ঘন্টা আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বিএনপির রাজনীতিতে শফিক রেহমান কেন এত গুরুত্বপূর্ণ?

full_312045024_1461135889নিউজ ডেস্ক: বিএনপি’র নীতি নির্ধারণে শফিক রেহমান কেন এতটা গুরুত্বপূর্ণ তা এখনও আলোচনায়। বিএনপিতে তার প্রাথমিক সদস্য পদ নেই। তারপরেও কেন তিনি বিএনপি’তে এতো প্রভাবশালী? বিএনপি’র সাথে শফিক রেহমানের ঘনিষ্ঠতা অনেকটা প্রকাশ্য। কেন তিনি বিএনপির প্রাণপুরুষ তার গ্রেপ্তারের পর এমন প্রশ্ন জনমনে।

দলটির কোন পদ-পদবীতে তিনি নেই। কিন্তু তবুও তিনি দলে ‘ক্ষমতাবান’ হিসেবে পরিচিত। দলের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে অনেক সিনিয়র নেতা ভূমিকা রাখতে না পারলেও, তিনি দলকে প্রভাবিত করতে পারেন। বিএনপিতে পর্দার আড়াল থেকে যিনি সবচেয়ে বেশি প্রভাব বিস্তার করতে পারেন তিনি হচ্ছেন সদ্য গ্রেফতার হওয়া সাংবাদিক রেহমান।

বিএনপি’র অনেক নেতা মনে করেন শফিক রেহমান খালেদা জিয়ার অত্যন্ত আস্থাভাজন হিসেবে পরিচিত। যাদের পরামর্শ বা মতামতকে খালেদা জিয়া সবচেয়ে বেশি মূল্যায়ন করেন তাদের মধ্যে শফিক রেহমান অন্যতম।

শফিক রেহমান নিজেই সে কথা জানিয়েছেন অতীতে। গত মার্চ মাসের শুরুতে এক সাক্ষাৎকারে শফিক রেহমান বলেছিলেন “আমি কৃতজ্ঞ যে তিনি (খালেদা জিয়া) আমার এ রকম উপদেশ মাঝে-মধ্যে নিয়েছেন।”

বিএনপি’র নীতি নির্ধারণে শফিক রেহমানের মতামতকে যথেষ্ট গুরুত্ব দেয়া হয়। শফিক রেহমান মনে করেন, তিনি রাজনীতির বাইরে থাকার কারণে অনেক ক্ষেত্রে হয়তো সঠিক সিদ্ধান্তে উপনীত হতে পেরেছিলেন।

তিনি বলেন, “ম্যাডাম (খালেদা জিয়া) হয়তো সেটা বুঝতে পেরেছিলেন যে, রাজনৈতিক ক্ষেত্রে আমি হয়তো তাকে সঠিক সময়ে সঠিক উপদেশ দিয়েছি। তিনি যখন জেল থেকে ছাড়া পেলেন তখন আমার বাড়িতে এসেছিলেন।” বিভিন্ন সময়ে বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার বক্তব্যের বিষয়বস্তু নির্ধারণেও শফিক রেহমানের ভূমিকা থাকে বলে জানা যায়। এছাড়া বিভিন্ন নির্বাচনে তিনি বিএনপি’র ইশতেহার প্রণয়নেও ভূমিকা রেখেছেন।

বিএনপি থেকে শমসের মবিন চৌধুরীর পদত্যাগের পর দলটির পক্ষে যে কয়েকজন ব্যক্তি ঢাকার কূটনীতিক পাড়ায় যোগাযোগ রাখেন তাদের মধ্যে শফিক রেহমান অন্যতম।

তার প্রতিফলন লক্ষ্য করা যায় সর্বশেষ অনুষ্ঠিত বিএনপি’র কাউন্সিলে। সে কাউন্সিলে শফিক রেহমান আন্তর্জাতিক কমিটির আহবায়কের দায়িত্ব পালন করেছেন।

১৯৮০’র দশকে ‘যায় যায় দিন’ সাপ্তাহিক পত্রিকা সম্পাদনার মাধ্যমে শফিক রেহমানের পরিচিতি গড়ে উঠে।

স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের সময় তৎকালীন সামরিক শাসক এইচ এম এরশাদ শফিক রেহমানকে দেশ ছাড়তে বাধ্য করেন। কিন্তু তখন বিএনপি’র সঙ্গে তার এত ঘনিষ্ঠতা ছিলনা। ১৯৯২ সালের দিকে তিনি লন্ডন থেকে ফিরে আসার পর ক্রমেই বিএনপি’র দিকে ঝুঁকে পড়েন।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেছিলেন, “আমরা সবাই একসময় মুসলিম লীগে ছিলাম। পরে সবাই আওয়ামী লীগ হয়েছি। এরপরে কেউ আওয়ামী লীগ আবার কেউ বিএনপি হয়েছে।”

প্রসঙ্গত, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে সজীব ওয়াজেদকে অপহরণ ও হত্যা পরিকল্পনা মামলায় শফিক রেহমান বর্তমানে কারাগারে আছেন। সূত্র: বিবিসি

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: