সর্বশেষ আপডেট : ৩০ মিনিট ২৭ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ২০ অগাস্ট, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৫ ভাদ্র ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

দ্বন্দ্ব আর হুমকি মধ্যেই বুধবার সৌদি যাচ্ছেন ওবামা

75আন্তর্জাতিক ডেস্ক: গত সাত দশক ধরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও তেল সমৃদ্ধ সৌদি আরবের মধ্যে সুসম্পর্ক বিরাজ করছে। এই সর্ম্পক আরো জোরদার করতে কয়েকবার সৌদি সফরে গেছেন বারাক ওবামা। তবে সম্প্রতি দু’দেশের মধ্যকার সর্ম্পকে কিছুটা টানাপোড়েন চলছে। আর এরইমধ্যে আগামীকাল বুধবার সৌদি সফরে যাচ্ছেন ওবামা।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ৮০ বছর বয়সি সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজের সাথে এক ব্যক্তিগত সাক্ষাতের জন্য বুধবার রাজধানী রিয়াদে পৌঁছবেন। তারপর বৃহস্পতিবার তিনি সৌদি আরব, বাহরাইন, কুয়েত, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কাতার ও ওমানের নেতৃবৃন্দের উপসাগরীয় সহযোগিতা পরিষদের শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিবেন।

বেশকিছু কারণে সম্প্রতি সৌদি ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে সম্পর্ক আর আগের মতো নেই। ওবামার শাসনামলে ইরান ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান, ইসলামিক স্টেট তথা আইএসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ, সিরিয়ার ভবিষ্যৎ এবং ইয়েমেনের সাথে সৌদির যুদ্ধে জড়িয়ে পড়া নিয়ে উভয়ের বেশ অবিশ্বাস ও অসন্তুষ্টি লক্ষ্য করা গেছে।

সৌদিদের নিয়ে সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে ওবামার তীক্ষ্ণ মন্তব্য সম্পর্কের তিক্ততাকে আরো গভীর করেছে। যেমনটা বলছেন ‘কার্নেগি এনডোমেন্ট ফর ইন্টারন্যাশনাল পিস’ এর মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক এক সিনিয়র সহযোগী, দেশ দুইটির মধ্যকার সম্পক্যে বেশ ফাটল ধরেছে। এটা পাথরের মতো হয়ে গেছে।

যে কারণে এই দুই দেশের একে অপরের দরকার তা হলো, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সৌদি আরবকে তার আঞ্চলিক নিরাপত্তার জন্য সামরিক ও বুদ্ধিবৃত্তিক সহযোগিতা করে থাকে। এই সপ্তাহের সফরে এরকম আরো কিছু সহযোগিতার ঘোষণা ওবামার কাছ থেকে আশা করা যাচ্ছে।

বিনিময়ে সৌদি আরব আল-কায়েদার মতো সন্ত্রাসীগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে যুদ্ধে সহায়তা করে থাকে। এর সাথে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তাদের প্রয়োজনীয় যত তেল আমদানি করে তার জোগানোর দায়িত্বও এই সৌদির। মার্কিনীদের কাছে প্রতিদিন প্রায় দশ লাখ ব্যারেল তেল বিক্রি করে সৌদি আরব।

আশা করা হচ্ছে এই সপ্তাহের সফরেও যুক্তরাষ্ট্র এই এলাকায় ব্যালিস্টিক ক্ষেপনাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা মোতায়েন করবে এবং ইরান ও অন্যান্য দেশ থেকে সাইবার আক্রমণ প্রতিহত করতে সৌদি আরবের জন্য নতুন সহযোগিতা প্রদান করবে।

সম্প্রতি যদিও তাদের তেলের রিজার্ভ মার্কিনিদের কাছে গুরুত্ব হারিয়েছে তারপরও যুক্তরাষ্ট্র চায় সৌদি আরবের সাথে একটা ভাল সম্পর্ক বজায় রাখতে। কারণ এর মাধ্যমে তারা মধ্যপ্রাচ্যে স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে চায়। সৌদি আরব আল-কায়েদা এবং অতি সম্প্রতি আইএসের বিরুদ্ধে যুদ্ধের ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্রের সাথে একত্রে কাজ করেছে। সিরিয়ার গৃহযুদ্ধের অবসানেও যুক্তরাষ্ট্র সৌদির সহায়তা চায়।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: