সর্বশেষ আপডেট : ৫ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

গাছের সাথে পা উপরে দিয়ে বেঁধে পিটিয়ে হত্যা

প্রতীকী

প্রতীকী

নিউজ ডেস্ক :: কুমিল্লায় পরকীয়ার জের ধরে সোহাগ (৩২) নামের এক যুবককে গাছের সাথে পা উপরের দিকে ঝুলিয়ে বেঁধে রেখে পিটিয়ে হত্যা করেছে তারই বন্ধুরা। শনিবার রাতে শাসনগাছা এলাকা থেকে মোবাইলের মাধ্যমে ডেকে নিয়ে সাতরা এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটায়। এ ঘটনায় মাহবুব হোসেন (৩২) নামের আরও এক যুবক আহত হন। নিহত সোহাগ নগরীর শাসনগাছা এলাকার মৃত জাহাঙ্গীরের পুত্র।
পুলিশ রাতেই নিহতের লাশ উদ্ধার করে কুমিল্লা মর্গে প্রেরণ করেছেন। গতকাল রবিবার কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ ফরেনসিক বিভাগে তার ময়নাতদন্ত শেষে সোহাগের পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের মা জোহরা আক্তার বেবী বাদী হয়ে ৫ জনকে আসামী করে গতকাল রোবাবর দুপুরে কোতয়ালী মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে পারভেজ ও তাঁর স্ত্রী পলাতক রয়েছেন। নিহতের সোহাগের ৫টি সন্তান ও ২টি স্ত্রী রয়েছে। সে এলাকায় মাদক ব্যবসার সাথেও জড়িত রয়েছে বলেও জানা গেছে।
স্থানীয়রা জানান- পারভেজ হোসেন নামের এক ব্যক্তি কুমিল্লা নগরের সাতরা এলাকায় ভাড়া থাকেন। পারভেজের সঙ্গে সোহাগ ও মাহবুবের বন্ধুত্ব হয়। একপর্যায়ে পারভেজের স্ত্রীর সঙ্গে সোহাগ ও মাহবুব অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। বিষয়টি টের পেয়ে শনিবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে মুঠোফোনে সোহাগ ও মাহবুবকে সাতরা এলাকায় ডেকে নেয় পারভেজ।
কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে পারভেজ এলোপাতাড়ি লাঠি দিয়ে পিটিয়ে সোহাগ ও মাহবুবকে জখম করে। মাহবুব ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে গেলে সোহাগকে গাছের সাথে বেঁধে রেখে অমানসিক নির্যাতন করে হত্যা করে পালিয়ে যায়। পরে এলাকাবাসী তাদেরকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে সোহাগের মৃত্যু হয়। আহত মাহবুব কুমিল্লা ট্রমা সেন্টারে চিকিৎসাধীন রয়েছে। তার ডান পা ভেঙ্গে গেছে। শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।
এ বিষয়ে নিহতের বন্ধু শরীফ জানায়, সোহাগকে পারভেজ ও পারভেজের লোকজন আটক করে গাছের সাথে পা উপরে দিয়ে বেঁধে রাখে। বাধার পর সোহাগের মোবাইল দিয়ে জাবেদ ফোন দিতে বলে মাহাবুবকে। সোহাগ মাহবুবকে ফোন দিয়ে আসতে বলে এবং বলে ভাই আমাকে বেধে রেখেছে তোমরা আস এবং আমাকে ছাড়িয়ে নিয়ে যাও। মাহাবুব আসলে তাকে মেরে পায়ে আঘাত করলে সে কোন রকম ছুটে পালিয়ে যায়। এরা আমাকে ও অনেক মেরেছে।
কিন্তু সোহাগকে তারা পা গুলো উপরের দিকে ঝুলিয়ে বেধে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় প্রচন্ড আঘাত করলে সে সেখানে মৃত্যুবরণ করে। সেখান থেকে আমি সোহাগের মৃত দেহটি কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসি। সোহাগ আমাকে বার বার বলেছিল ভাই আমাকে একটু পানি খাওয়া, পানি। আমি আর বাচবোনা একটু পানি খাওয়া। কিন্তু এরা একটু পানি খাওয়ানোর সুযোগ ও দেয়নি।
এ বিষয়ে কোতোয়ালি মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সামসুজ্জামান বলেন, পরকীয়ার জের ধরে এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। মুঠোফোনে সোহাগ ও মাহবুুবকে সাতরা এলাকায় ডেকে নেয় পারভেজ। কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে পারভেজ এলোপাতাড়ি লাঠি দিয়ে পিটিয়ে সোহাগ ও মাহবুবকে জখম করে। এর পর রাস্তার পাশের একটি নালার কাছে তাঁদের ফেলে রাখে। এলাকাবাসী তাঁদের উদ্ধার করে নগরের একটি হাসপাতালে নেয়। রাত সাড়ে আটটায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোহাগ মারা যান।
তাঁর মাথা, পিঠ ও পেটে জখমের চিহ্ন রয়েছে। সোহাগের বাড়ি কুমিল্লা নগরের শাসনগাছা এলাকায়। আর মাহবুব নগরের ট্রমা সেন্টারে চিকিৎসাধীন। তার ডান পা ভেঙে গেছে। শরীরে বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ঘটনার পর থেকে পারভেজ ও তাঁর স্ত্রী পলাতক রয়েছেন। লাশ ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে। এ বিষয়ে কোতয়ালী কোতয়ালী মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: