সর্বশেষ আপডেট : ১৩ মিনিট ২ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ১৭ জানুয়ারী, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ৪ মাঘ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ইলিয়াস নিখোঁজের চার বছর আজ : অপেক্ষার প্রহর ফুরায়নি পরিবারের

36মোহাম্মদ আলী শিপন :: বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলী নিখোঁজের চার বছর পূর্ণ হচ্ছে আজ রোববার। তাকে ফিরিয়ে পাওয়ার জন্য অপেক্ষার প্রহর গুণছেন তাঁর জন্মস্থান সিলেটের বিশ্বনাথবাসী। ২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল রাতে ইলিয়াস আলী ও তাঁর গাড়ি চালক আনসার আলী ঢাকার বনানী থেকে নিখোঁজ হন। কিন্তু আজও তাদের কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। বিএনপি’র জাতীয় নির্বাহী কমিটির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক, সিলেট জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও সাবেক সাংসদ ইলিয়াস আলী নিখোঁজ হওয়ার খবর তাঁর নির্বাচনী এলাকা সিলেটের (বিশ্বনাথ-বালাগঞ্জ-ওসমানীনগরে) সর্বত্র ছড়িয়ে পড়লে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীসহ সর্বস্থরের মানুষ রাজ পথে নেমে আসেন।

জানাগেছে, দলমত নির্বিশেষে সব বয়সের নারী-পুরুষ আশায় বুক বেঁধে বসে আছেন তাদের চিরচেনা সেই প্রিয় মানুষটি আবার তাদের মাঝে ফিরে আসবেন। ইলিয়াস আলী নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি মানতে নারাজ অনেকেই। বাস্তব যতই নির্মম হউক তবুও যে সত্য তিনি নিখোঁজ হয়েছেন। নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে নেতাকর্মী,সমর্থক, শুভাকাংখিসহ সাধারন মানুষ মানষিক ভাবে ভেঙে পড়েছেন। অনেকেই মসজিদ মন্দিরে করছেন বিশেষ প্রার্থনা। কেউ কেউ পীর ফকিরের বাড়ীতে ধরনা দিচ্ছেন। পীর ফকিরের উক্তি অনুযায়ী অনেকেই জোর গলায় বলছেন ইলিয়াস আলী বেঁচে আছেন। তিনি শিগগিরই ফিরে আসবেন আমাদের মাঝে। অনেকেই ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, এমন একজন জনপ্রিয় রাজনীতিবিদ গুম হলেন অথচ চার বছর অতিবাহিত হতে চলছে কিন্তু আজও তাঁর কোনো সন্ধান বের করতে পারছেনা সরকার। এই যদি হয় স্বাধীন দেশের অবস্থা তাহলে সাধারন নাগরিকের নিরাপত্তা কোথায় দাড়াবে? ইলিয়াস আলীকে নিয়ে মানুষের মুখে মুখে নানা জল্পনা কল্পনা চলছে। ইলিয়াস আলী আবার জীবিত অবস্থায় ফিরে আসবেন এমনটাই প্রত্যাশা তাঁর জন্মস্থান বিশ্বনাথবাসীর। ।

কাউকে দেখলেই এগিয়ে যান সূর্যবান বিবি। জড়িয়ে ধরে হাউমাউ করে কাঁদেন, ছেলের খবর জানতে চান। তবে তাঁর চোখ এখন আর সজল হয় না। কাঁদতে কাঁদতে শুকিয়ে গেছে অশ্রু। চার বছর ধরে অনবরত কেঁদে চলেছেন ছেলে ইলিয়াস আলীর জন্য।
পরিবারের সদস্যদের বিশ্বাস, এখনো বেঁচে আছেন ইলিয়াস আলী। যেকোনো সময় তিনি ফিরে আসবেন। এ জন্য টেলিভিশন চালু করলেই তারা চেয়ে থাকে পর্দার নিচের অংশে, যেখান দিয়ে একটার পর একটা খবরের শিরোনাম বয়ে চলে। পুরো পরিবার অপেক্ষা করছে সেই দিনের জন্য, যেদিন টিভিগুলোতে ব্রেকিং নিউজ দেখাবে যে ‘ইলিয়াস আলীর সন্ধান পাওয়া গেছে’। শুধু পরিবারের সদস্যরা নয়, ইলিয়াস আলীর জন্মভূমি বিশ্বনাথ তথা সিলেটের লাখো মানুষও একই অপেক্ষায় দিন গুনছে।

২০১২ সালের ১৭ এপ্রি রাতে নিজের গাড়িতে করে বনানী থেকে বাসায় ফেরার পথে নিখোঁজ হন ইলিয়াস আলী। তাঁর সঙ্গে গাড়িচালক আনসার আলীও নিখোঁজ হন। মহাখালী থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় তাঁর গাড়ি। ঘটনার প্রতিবাদে দেশজুড়ে শুরু হয় আন্দোলন। পালিত হয় হরতাল, মিছিল, সভা-সমাবেশ, মানববন্ধন, গণস্বাক্ষর সংগ্রহসহ নানা কর্মসূচি। হরতাল পালনের সময় সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলায় জনতার সঙ্গে পুলিশ ও আওয়ামী লীগের সংঘর্ষ হয়। পুলিশের গুলিতে নিহত হয় বিএনপির তিন কর্মী। আহত হয় শতাধিক। ঘটনার পর উপজেলার অজ্ঞাতপরিচয় আট হাজার মানুষকে আসামি করে মামলা করে পুলিশ। জেল খাটে কয়েক শতাধিক নেতা-কর্মী।

ইলিয়াস নিখোঁজের প্রতিবাদে ও তাঁর সন্ধানের দাবিতে বিশ্বনাথ একসময় উত্তাল হয়ে ওঠে। কিন্তু সময়ের ব্যবধানে আন্দোলন থিতু হয়ে এসেছে। এখন উপাসনালয়ে প্রার্থনা ছাড়া এ ইস্যুতে বিএনপির কোনো কর্মসূচি চোখে পড়ে না। ইলিয়াস আলী নিখোঁজের পর তাঁর মা সূর্যবান বিবি ও পরিবারের সদস্যদের সান্তনা দিতে বিশ্বনাথের রামধানা গ্রামের বাড়িতে ঢল নামত নেতা-কর্মী ও সাধারণ মানুষের। সময়ের ব্যবধানে সেই দৃশ্যও এখন বদলে গেছে। এখন আর কাতর মাকে সান্তনা দিতে নেতা-কর্মীরা সেভাবে ওই বাড়িতে যায় না। ওই পরিবারের খোঁজখবরও আগের মতো নেয় না নেতা-কর্মীরা। তবে এখনো আশা ছাড়েনি ইলিয়াস পরিবার। ছেলে ফিরে আসবে-এ আশায় বুক বেঁধে আছেন মা। স্বামীকে ফিরে পাওয়া যাবে-এ আশায় দিন পার করছেন স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনা। আর বাবার ফেরার অপেক্ষায় পথ চেয়ে থাকে তিন সন্তান-সাইয়ারা নাওয়াল, আবরার ইলিয়াস ও লাবিব সারা।

তাহসিনা রুশদীর লুনা বলেন, যখনই টেলিভিশনের সামনে বসি সংবাদের স্ক্রলের দিকে চেয়ে থাকি। একটা ব্রেকিং নিউজের জন্য অপেক্ষা করি; যেখানে লেখা থাকবে ‘ইলিয়াস আলীকে পাওয়া গেছে’। আমরা প্রতিটি মুহূর্ত তাঁর ফেরার অপেক্ষায় আছি। আমাদের বিশ্বাস, তিনি বেঁচে আছেন এবং ফিরে আসবেন। এখন আল্লাহ ওপর ভরশা করে বসে আছে আমাদের পরিবার।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: