সর্বশেষ আপডেট : ৩৬ মিনিট ৫ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

২৪ ঘণ্টায় জাপানে ২৫২ কম্পন

20আন্তর্জাতিক ডেস্ক : গত ২৪ ঘণ্টায় সূর্যোদয়ের দেশ জাপানে ২৫২ বার ভূমিকম্প হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির আবহাওয়া কর্তৃপক্ষ।

শনিবার (১৬ এপ্রিল) কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে স্থানীয় সংবাদমাধ্যম এমনটা জানিয়েছে।

জাপান মেটোরোলজিক্যাল এজেন্সি বলছে, স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার (১৪ এপ্রিল) রোত ৬টা ২৬ মিনিট থেকে শনিবার সকাল ১১টা পর্যন্ত ২৫২বার ভূমকম্প হয়েছে। যা ১৯৯৫ সালের ভয়াবহ ভূমিকম্পের চেয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।

সর্বশেষ জাপানে শক্তিশালী কম্পনের রেশ না কাটতেই কুমামতো প্রদেশে শনিবার স্থানীয় সময় বিকেল সোয়া ৫টার দিকে ফের ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে। রিকটার স্কেলে এ কম্পনের মাত্রা ছিলো ৫ দশমিক ৩।

কর্তৃপক্ষ বলছে, দেশটির কুমামতো প্রদেশে আঘাত হানা এ ভূমিকম্পের গভীরতা ছিল ভূ-পৃষ্ঠ থেকে ১০ কিলোমিটার। যার উৎপত্তিস্থল ছিলো দেশটির কুমামতো-চিহি এলাকায়।

এর আগে স্থানীয় শনিবার রাত ১টা ২৫ মিনিটে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের এই প্রদেশে শক্তিশালী ভূমিকম্প হয়। রিকটার স্কেলে এ কম্পনের মাত্রা ছিলো ৭।

ইউএসজিএস জানায়, জাপানের কিয়েশু পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে ১২০ কিলোমিটার দূরে এই ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল ছিলো দেশটির ইউকি শহর থেকে মাত্র ১৩ কিলোমিটার দূরে, ভূ-পৃষ্ঠের ১০ কিলোমিটার গভীরে।

এর কিছুক্ষণের মধ্যেই ওই অঞ্চলে ৫ দশমিক ৮ ও ৫ দশমিক ৭ মাত্রার আরও দু’টি কম্পন অনুভূত হয়। এ নিয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় জাপানের ওই অঞ্চলে তিন দফা ভূমিকম্প হয়েছে। এতে অনেক হতাহতের ঘটনাও ঘটেছে।

ক্ষণে ক্ষণে ভূমিকম্প হওয়ায় জাপান সরকার আশঙ্কা করছে, ২০১১ সালের সুনামির পর এটা দেশটির জন্য বড় ধরনের বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে।

স্থানীয়ভাবে সুনামি সতর্ক জারিসহ কুমামতো বিমানবন্দরের সব ফ্লাইট বাতিল করেছে সরকার। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে ট্রেন যোগাযোগও।

এছ‍াড়া শনিবার দেশটির দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে পৃথকটি পাঁচটি ক্রীড়া অনুষ্ঠান বাতিল করেছে কর্তৃপক্ষ।

গত বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) রাতে কুমামতো ও কিয়েশু প্রদেশে ৬ দশমিক ৪ মাত্রার ভূমিকম্প আঘাত হানে। এতে বিপুল সংখ্যক বাড়ি-ঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। রাতের ওই ভূমিকম্পে ধ্বংসস্তূপের নিচে চাপা পড়ে অন্তত ৯ জনের মৃত্যু হয়, আহত হন সহস্রাধিক।

দেশটির রাজধানী টোকিওতে এক সংবাদ সম্মেলনে জাপানের মন্ত্রিপরিষদ সচিব ইয়াশিদো সুগা বলেন, ২০১১ সালের সুনামির পর এটি বড় ধরনের ভূমিকম্প। ১৯টি বাড়ি ধসে কবরস্থানে পরিণত হয়েছে। আমরা উদ্ধার তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছি।

দফা দফায় এসব ভূমিকম্পের আঘাতে এ পর্যন্ত ২৯ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে বলে নিশ্চিত করেছে স্থানীয় সংবাদমাধ্যম।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: