সর্বশেষ আপডেট : ৫ মিনিট ১৮ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ২৮ মে, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সাপের ফনায় ‘ঝাপান খেলা’

Snake Picture (1)জাহিদুর রহমান তারিক, ঝিনাইদহ::
ঝিনাইদহে বাংলা বর্ষবরণ উপলক্ষে এবারও ঐতিহ্যবাহী ‘ঝাপান খেলা’র আয়োজন করা হয়। শহরের পুরাতন ডিসি কোর্ট চত্বরে এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করে জেলা প্রশাসন। ঝাপান খেলা দেখতে জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে হাজারো দর্শক হাজির হন কোর্ট চত্বরে। ঢাক-ঢোলের বাদন আর নাচ গানে সাপুড়েরা দর্শকদের মন ভরিয়ে তোলেন।

কয়েকজন সাপুড়ে জানান, তারা বিভিন্ন স্থানে ঝাপান খেলায় অংশ নেন। মনসা ও নাগের জন্ম, দেবতার তুষ্টি, স্বামী ভক্তি কাহিনী সম্বলিত আবহমান বাংলার ঐতিহ্যবাহী গানের নাম ঝাপান গান। বেহুলা লখিন্দরের জীবন বাঁচাতে দেবপুরীতে পৌঁছে সাপের সঙ্গে নেচে গেয়ে স্বর্গের দেবতাদের খুশি করে।

দেবতাদের অনুরোধে মনসা লখিন্দরসহ চাঁদের অন্য সন্তানদের জীবন ফিরিয়ে দেয়। বেহুলা সবকিছু নিয়ে বাড়ি ফেরে।
হাজারো দর্শকের ভীড়ে শহরের পুরাতন ডিসি কোর্ট চত্বর কানায় কানায় পরিপূর্ণ হয়ে উঠে।
সাপুড়েকে নিজে নাচতে হয় আর সাপও তার সঙ্গে হেলে-দুলে নাচে। কোনো তন্ত্র মন্ত্র নেই এ খেলাতে। নানা অঙ্গ ভঙ্গি করে সাপকে ফনা তুলে দীর্ঘক্ষণ রাখতে হয় মঞ্চে। যার সাপ যত বেশি উচুঁ হয়ে বেশি সময় মঞ্চে থাকতে পারে সেই সাপুড়ে বেশি পয়েন্ট পান।

ঝিনাইদহের শৈলকুপা থেকে আসা সাপুড়ে সবুজ এবং ঝিনাইদহের ওস্তাদ শহিদুল ইসলাম প্রিয়.কমকে বলেন, ‘এটা আমাদের বাপ দাদার পৈত্রিক পেশা। আমার আগে আমার বাবা তার আগে তার বাবা সকলেই সাপ খেলা দেখিয়ে জীবন ধারণ করতেন। আমরা বাংলাদেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত সাপ নিয়ে ঘুরে বেড়াই।
ঝিনাইদহের জেলা প্রশাসক মাহবুব আলম তালুকদার জানান, কালের বিবর্তনে লোকাচারের অনেক কিছুই এখন হারিয়ে গেছে। কিন্তু ঝাপান গানের কোনো হেরফের হয়নি। সেই মধ্যযুগ হয়ে একবিংশ শতাব্দীর মানুষের কাছে এখনও সমান জনপ্রিয়তা ধরে রেখেছে এটি।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: